উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান – ভারতের বিচার বিভাগ (নবম অধ্যায়) প্রশ্নোত্তর সাজেশন | Higher Secondary Political Science Suggestion

5192
উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান - ভারতের বিচার বিভাগ (নবম অধ্যায়) প্রশ্নোত্তর সাজেশন | Higher Secondary Political Science Suggestion

Higher Secondary Political Science Suggestion | WBCHSE HS Exam Qustion and Answer | উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান (দ্বাদশ শ্রেণীর) প্রশ্নোত্তর সাজেশন

ভারতের বিচার বিভাগ (নবম অধ্যায়)

MCQ প্রশ্নোত্তর

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো।

1. জেলার সর্বোচ্চ আদালত হলো—

(a) দায়রা আদালত (b) ন্যায় পঞ্চায়েত (c) জেলা জজের আদালত (d) মুনসেফ আদালত

Ans. (c) জেলা জজের আদালত

2. ভারতের সংবিধানের অভিভাবক –

(a) রাষ্ট্রপতি (b) প্রধানমন্ত্রী (c) সুপ্রিম কোর্ট (d) কেউই নন

Ans. (c) সুপ্রিম কোর্ট

3. রাষ্ট্রপতি এবং উপরাষ্ট্রপতির নির্বাচন-সংক্রান্ত বিবাদ মীমাংসা করে

(a) প্রধানমন্ত্রী (b) আইনমন্ত্রী (c) সুপ্রিম কোর্ট (d) হাইকোর্ট

Ans. (c) সুপ্রিম কোর্ট

4. ভারতের বিচার ব্যবস্থার শীর্ষে রয়েছে –

(a) সুপ্রিম কোর্ট (b) হাইকোর্ট (c) লোক আদালত (d) ক্রেতা সুরক্ষা আদালত

Ans. (a) সুপ্রিম কোর্ট

5. সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতির সংখ্যা –

(a) ২৬ (b) ২৭ (c) ২৮ (d) ৩০

Ans. (a) ২৬

6. ভারতের বিচার ব্যবস্থার প্রকৃতি হলো—

(a) খণ্ডিত (c) দ্বৈত (d) যুক্তরাষ্ট্রীয়

Ans. (b) অখণ্ড

7. রাজ্যের সর্বোচ্চ আদালত হলো—

(a) সুপ্রিম কোর্ট (b) লোক আদালত (c) হাইকোর্ট (d) ক্রেতা সুরক্ষা আদালত

Ans. (c) হাইকোর্ট

8. হাইকোর্টের বিচারপতিদের নিয়োগ করেন

(a) রাষ্ট্রপতি (b) প্রধানমন্ত্রী (c) উপরাষ্ট্রপতি (d) আইনমন্ত্রী

Ans. (a) রাষ্ট্রপতি

9. বর্তমানে ভারতে হাইকোর্টের সংখ্যা –

(a) ১৮ (b) ২০ (c) ২১ (d) ২৫

Ans. (c) ২১

10. হাইকোর্টের বিচারপতিদের অবসরকালীন বয়স হলো

(a) ৬০ বছর (b) ৬২ বছর (c) ৬৫ বছর (d) ৭০ বছর

Ans. (b) ৬২ বছর

11. হাইকোর্টের ক্ষমতার এলাকা হলো—

(a) ২টি (b) ৩টি (c) ৪টি (d) ৫টি

Ans. (a) ২টি

12. কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতিদের নিয়োগ করেন—

(a) রাজ্যপাল (b) মুখ্যমন্ত্রী (c) রাষ্ট্রপতি (d) প্রধানমন্ত্রী

Ans. (c) রাষ্ট্রপতি

13. সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের নিয়োগ করেন

(a) প্রধানমন্ত্রী (b) উপরাষ্ট্রপতি (c) রাষ্ট্রপতি (d) স্পিকার

Ans. (c) রাষ্ট্রপতি

14. ভারতের যুক্তরাষ্ট্রীয় আদালত হলো –

(a) সুপ্রিম কোর্ট (b) হাইকোর্ট (c) লোক আদালত (d) অধস্তন আদালত

Ans. (a) সুপ্রিম কোর্ট

15. সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের অবসরগ্রহণের বয়স হলো

(a) ৬০ বছর (b) ৬২ বছর (c) ৬৫ বছর (d) ৭০ বছর

Ans. (c) ৬৫ বছর

16. ভারতের সংবিধানের ব্যাখ্যাকর্তা হলোহলেন –

(a) রাষ্ট্রপতি (b) প্রধানমন্ত্রী (c) আইনমন্ত্রী (d) সুপ্রিম কোর্ট

Ans. (d) সুপ্রিম কোর্ট

17. ভারতের সর্বোচ্চ আপিল আদালত হলো—

(a) সুপ্রিম কোর্ট (b) হাইকোর্ট। (c) লোক আদালত (d) অধস্তন আদালত

Ans. (a) সুপ্রিম কোর্ট

18. সুপ্রিম কোর্টের আপিল এলাকার সংখ্যা –

(a) ৩ (b) ৪(c) ৫ (d) ৬

Ans. (b) ৪

19. স্বাধীন ভারতের প্রথম প্রধান বিচারপতি হলেন –

(a) হরিলাল কেনিয়া (b) ফতেমা বিবি (c) পি. সদাশিবম (d) কে.জি. বালাকৃষ্নণ

Ans. (a) হরিলাল কেনিয়া

20. ভারতের অভিলেখ আদালত হলো –

(a) সুপ্রিম কোর্ট (b) হাইকোর্ট। (c) তোক আদালত (d) ন্যায় পঞ্চায়েত

Ans. (a) সুপ্রিম কোর্ট

21. লোক আদালত প্রথম গঠিত হয়েছিল –

(a) কলকাতায় (b) মুম্বাইতে (c) দিল্লিতে (d) চেন্নাইয়ে

Ans. (c) দিল্লিতে

22. ক্রেতা সুরক্ষা আইন তৈরি হয় –

(a) ১৯৮৫ খ্রি. (b) ১৯৮৬ খ্রি. (c) ১৯৮৭ খ্রি. (d) ১৯৮৮ খ্রি.

Ans. (b) ১৯৮৬ খ্রি.

23. ন্যায় পঞ্চায়েতের সদস্যসংখ্যা –

(a) ৩ (b) ৫ (c) ৭ (d) ৯

Ans. (b) ৫

24. ক্রেতা আদালতের প্রধান উদ্দেশ্য হলো –

(a) ক্রেতাকে উৎসাহ দেওয়া (b) ক্রেতাদের সুরক্ষা দেওয়া (c) জিনিসের মান ঠিক করা (d) জিনিসপত্রের অপচয় বন্ধ করা

Ans. (b) ক্রেতাদের সুরক্ষা দেওয়া

25. সুপ্রিম কোর্টের কার্যক্ষেত্রকে মূলত ক’টি ভাগে ভাগ করা যায়?

(a) দুই ভাগে (b) তিন ভাগে (c) চার ভাগে (d) পাঁচ ভাগে

Ans. (c) চার ভাগে

26. ত্রিস্তরবিশিষ্ট ক্রেতা আদালতের সর্বোচ্চ স্তরটির নাম কী ?

(a) ব্লক স্তর (b) জাতীয় স্তর (c) জেলা স্তর (d) রাজ্য স্তর

Ans. (c) জেলা স্তর

27. যথাবিহিত আইন পদ্ধতি অনুসারে বিচার করতে পারে

(a) ব্রিটেনের লর্ডসভা (b) ভারতের সুপ্রিম কোর্ট (c) মার্কিন সুপ্রিম কোর্ট (d) কলকাতার হাইকোর্ট

Ans. (c) মার্কিন সুপ্রিম কোর্ট

28. সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের পদচ্যুত করেন

(a) প্রধানমন্ত্রী (b) রাষ্ট্রপতি (c) উপরাষ্ট্রপতি (d) প্রধান বিচারপতি

Ans. (b) রাষ্ট্রপতি

29. সুপ্রিম কোর্টের গঠন বিষয়ে বলা আছে সংবিধানের

(a) ১২৪ নং ধারায় (b) ১২৬ নং ধারায়। (c) ১৩১ নং ধারায় (d) ১৩২ নং ধারায়

Ans. (a) ১২৪ নং ধারায়

অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [ মান – ১ ]

1. রাষ্ট্রপতি কখন সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ গ্রহণ করেন?

Ans. রাষ্ট্রপতি যদি মনে করেন আইন বা তথ্য-সংক্রান্ত বিষয়ে কোনো সর্বজনীন গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে বা উঠতে পারে, তাহলে তিনি সেই বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ চাইতে পারেন। (১৪৩(১) নং ধারা)।

2.সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের কীভাবে অপসারণ করা যায়?

Ans. সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের অপসারণ করার ক্ষেত্রে ইমপিচমেন্ট পদ্ধতির সাহায্য। – নেওয়া হয়। এই পদ্ধতি অনুযায়ী, রাষ্ট্রপতি কোনো বিচারপতিকে প্রমাণিত অসদাচরণ বা অসামর্থ্যের অভিযোগের ভিত্তিতে অপসারণ করতে পারেন। 3. ভারতের সুপ্রিম কোর্টের কার্যনির্বাহী প্রধান বিচারপতিকে কে নিয়োগ করেন?

Ans. ভারতের রাষ্ট্রপতি।

4. সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের বেতন, ভাতা ইত্যাদি কোন তহবিল প্রদান করা হয় ?

Ans. ভারতের সঞ্চিত তহবিল থেকে।

5. ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের মূল এলাকা বলতে কী বোঝায়?

Ans. কোনো মামলা সরাসরি সুপ্রিম কোর্টের যে এলাকায় দাখিল করা যায় তাকেই এলাকা বলে।

6. আপিল এলাকা বলতে কী বোঝায়?

Ans. সুপ্রিম কোর্টের যে এলাকায় নিম্ন আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা যায়। সেই এলাকাকেই বলে আপিল এলাকা।

7. ভারতীয় সংবিধানের কত নং ধারা অনুযায়ী মৌলিক অধিকার রক্ষার জন্য নাগরিকগণ সুপ্রিম কোর্টের কাছে আবেদন জানাতে পারে ?

Ans. ৩২ নং ধারা।

8. সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের কার্যকাল কত দিন?

Ans. সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিরা ৬৫ বছর বয়স পর্যন্ত স্বপদে অধিষ্ঠিত থাকতে পারেন।

9. সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিদের কীভাবে নিযুক্ত করা হয়?

Ans. সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিরা রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নিযুক্ত হন। তাদের নিয়োগের আগে। রাষ্ট্রপতিকে অবশ্যই প্রধান বিচারপতির সাথে পরামর্শ করতে হবে।

10. হাইকোর্টের বিচারপতিদের কার্যকালের মেয়াদ কত দিন?

Ans. হাইকোর্টের বিচারপতিরা ৬২ বছর বয়স পর্যন্ত স্বপদে অধিষ্ঠিত থাকতে পারেন। অবশ্য তার পূর্বেই তারা পদত্যাগ করতে পারেন অথবা পদচ্যুত হতে পারেন।

11. হাইকোর্টের বিচারপতির পদে নিযুক্ত হওয়ার মোগ্যতা কী?

Ans. হাইকোর্টের বিচারপতি পদে নিযুক্ত হওয়ার জন্য — বিচারপতিকে অবশ্যই ভারতীয় নাগরিক হতে হবে। ভারতের কোনো বিচারালয়ে কমপক্ষে ১০ বছর যেকোনো বিচারবিভাগীয় পদে কাজের অভিজ্ঞতা অথবা অন্তত ১০ বছর কোনো হাইকোর্টে বা দুই বা ততোধিক। হাইকোর্টে একাদিক্রমে আইনজীবী হিসেবে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

12. ভারতের সর্বোচ্চ আপিল আদালতের নাম কী ?

Ans. সুপ্রিম কোর্ট।

13. লোক আদালত গঠনের উদ্দেশ্য কী?

Ans. সাধারণ মানুষের জন্য স্বল্প ব্যয়ে, সহজ উপায়ে, দ্রুত বিরোধ নিষ্পত্তির ব্যবস্থা করাই তোক আদালত গঠনের উদ্দেশ্য।

14. লোক আদালতের এক্তিয়ারভুক্ত বিষয়গুলি কী?

Ans. লোক আদালতের এক্তিয়ারভুক্ত বিষয়গুলি হলো, পথ দুর্ঘটনা-সংক্রান্ত ক্ষতিপূরণ নির্ধারণ, সম্পত্তি বিষয়ক বিরোধ, দাম্পত্য বিরোধের মীমাংসা ইত্যাদি।

15. ভারতে অখণ্ড বিচার ব্যবস্থা বলতে কী বোঝো?

Ans. ভারতীয় যুক্তরাষ্ট্রে দ্বৈত বিচার ব্যবস্থার পরিবর্তে সারা দেশের জন্য অখণ্ড বিচার ব্যবস্থা প্রবর্তিত হয়েছে। এই অখণ্ড বিচার ব্যবস্থার শীর্ষে রয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। এছাড়া রয়েছে অঙ্গরাজ্যগুলির হাইকোর্ট এবং বিভিন্ন ধরনের অধস্তন আদালত। 16. ভারতের সর্বোচ্চ আদালত এবং সর্বনিম্ন আদালতের নাম লেখো।

Ans. ভারতের সর্বোচ্চ আদালতের নাম সুপ্রিম কোর্ট এবং সর্বনিম্ন আদালত হলো ন্যায় পঞ্চায়েত।

17. সুপ্রিম কোর্টের বিচারবিভাগীয় পর্যালোচনার ক্ষমতা বলতে কী বোঝায়?

Ans. কেন্দ্র ও অঙ্গরাজ্যগুলির দ্বারা প্রণীত সাংবিধানিক আইন, আদেশ বা নির্দেশের বৈধতা বিচারকে সুপ্রিম কোর্টের বিচারবিভাগীয় পর্যালোচনার ক্ষমতা বলে।

18. কোন কোন ক্ষেত্রে হাইকোর্ট সুপ্রিম কোর্টের চেয়ে বেশি ক্ষমতা ভোগ করে?

Ans. হাইকোর্ট সুপ্রিম কোর্টের থেকে বেশি ক্ষমতা ভোগ করে এমন দু’টি উল্লেখযোগ্য ক্ষেত্র হলো—নাগরিকদের মৌলিক অধিকার সংরক্ষণ ছাড়াও অন্য যে কোনো উদ্দেশ্যে। হাইকোর্ট লেখনির্দেশ জারি করতে পারে। কিন্তু এই ক্ষমতা ভারতের সুপ্রিম কোর্টের নেই। তাছাড়া জরুরি অবস্থাতেও হাইকোর্টের ‘বন্দি-প্রত্যক্ষীকরণ ইত্যাদি লেখ। জারির অধিকারকে সাময়িকভাবেও খর্ব করা যায় না।

19. ভারতের বিচার ব্যবস্থার দু’টি বৈশিষ্ট্য লেখো।

Ans. ভারতের বিচার ব্যবস্থার দুটি বৈশিষ্ট্য হলো- ভারতের বিচার ব্যবস্থা কেন্দ্রীভূত এবং অখণ্ড প্রকৃতির।

সারা দেশে প্রায় একই দেওয়ানি ও ফৌজদারি আইন অনুযায়ী বিচারকার্য সম্পাদন করা হয়।

20. আইনের যথাবিহিত পদ্ধতি (Due process of Law) বলতে কী বোঝায়?

Ans. আইনের যথাবিহিত পদ্ধতি’-র বিষয়টি বিচারবিভাগীয় সমীক্ষার প্রকৃতি বিশ্লেষণের একটি উল্লেখযোগ্য দিক। মার্কিন সুপ্রিম কোর্টে এই পদ্ধতি অনুসৃত হয়। উক্ত পদ্ধতি অনুযায়ী, সুপ্রিম কোর্ট আইনটি যথাযথ সাংবিধানিক পদ্ধতি অনুসরণ করে প্রণীত হয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখে এবং তা স্বাভাবিক ন্যায়নীতি লঙ্ঘন করেছে কি না তা-ও বিচার করে। উল্লেখ্য যে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের এই ক্ষমতা নেই।

21. আইন নির্দিষ্ট পদ্ধতি’ বলতে কী বোঝায়?

Ans. আইন নির্দিষ্ট পদ্ধতি’ বলতে উপযুক্ত আইনসভা কর্তৃক বিধিসম্মতভাবে প্রণীত আইনের মাধ্যমে নির্ধারিত পদ্ধতিকে বোঝানো হয়। এখানে আইন বলতে পার্লামেন্ট ও রাজ্য আইনসভা প্রণীত আইনের কথা বলা হয়েছে। ?

22. হাইকোর্টের মূল এলাকা কী?

Ans. রাজস্ব-সংক্রান্ত যাবতীয় বিষয় হাইকোর্টের মূল এলাকায় স্থান পেয়েছে। অনেক ক্ষেত্রে দেওয়ানি মামলাকেও মূল এলাকার অন্তর্ভুক্ত করা হয়। তবে সব হাইকোর্টের মূল এলাকাভুক্ত ক্ষমতা নেই। কেবলমাত্র কলকাতা, চেন্নাই ও মুম্বাই হাইকোর্টের এই ক্ষমতা রয়েছে।

23. লোক আদালতের দু’টি উপযোগিতা উল্লেখ করো।

Ans. লোক আদালতের দুটি উপযোগিতা হলো— লোক আদালত সমাজের দুর্বলতর শ্রেণিকে বিনামূল্যে আইনি সাহায্য দেওয়ার জন্য কাজ করে। এ লোেক আদালতগুলিতে মামলার নিষ্পত্তি দ্রুত হয়ে থাকে।

24. ভারতের সর্বোচ্চ ফৌজদারি আদালতের নাম কী ?

Ans. সুপ্রিম কোর্ট।

25. ভারতীয় সংবিধানের কত নং ধারা অনুযায়ী হাইকোর্ট নাগরিকদের মৌলিক অধিকার সংরক্ষণের ব্যবস্থা করতে পারে ?

Ans. ২২৬ নং ধারা।

26. সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি কীভাবে নিযুক্ত হন?

Ans. সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতিকে নিয়োগ করেন রাষ্ট্রপতি। অবশ্য নিয়োগের আগে রাষ্ট্রপতি প্রয়োজনমতো সুপ্রিম কোর্ট ও হাইকোর্টের বিচারপতিদের সঙ্গে পরামর্শ করতে পারেন।

27. বিচারবিভাগীয় স্বাতন্ত্র্য বলতে কী বোঝো?

Ans. বিচারপতিদের স্বাধীনতা ও নিরপেক্ষতা বজায় রাখার জন্য বিচার বিভাগের স্বাতন্ত্র জরুরি। বিচারবিভাগীয় স্বাতন্ত্র বলতে বোঝায় বিচার বিভাগকে আইন বিভাগ ও শাসন বিভাগের প্রভাব থেকে মুক্ত রাখা।

28. রাষ্ট্রপতি কী কারণে হাইকোর্টের কোনো বিচারপতিকে পদচ্যুত করতে পারেন?

Ans. রাষ্ট্রপতি প্রমাণিত অসদাচরণ বা অক্ষমতার অভিযোগে হাইকোর্টের কোনো বিচারপতিকে পদচ্যুত করতে পারেন।

29. সুপ্রিম কোর্টের বিচারকদের কে নিয়োগ করেন?

Ans. রাষ্ট্রপতি।

রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [ মান – ৮ ]

1. বিচারবিভাগীয় সক্রিয়তা বলতে কী বোঝো? ভারতবর্ষে বিচারবিভাগীয় সক্রিয়তা রয়েছে কি?

2. বিচারবিভাগীয় সক্রিয়তা বলতে কী বোঝায়? ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের গঠন, ও কার্যাবলি ব্যাখ্যা করো।

3. ক্রেতা সুরক্ষা আদালত সম্পর্কে একটি টীকা লেখো।

4. বিচারবিভাগীয় সক্রিয়তা বলতে কী বোঝায়? ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের গঠন, ও কার্যাবলি ব্যাখ্যা করো।

5. ক্রেতা সুরক্ষা আদালত সম্পর্কে একটি টীকা লেখো।

6. হাইকোর্টের গঠন ও কার্যাবলি ব্যাখ্যা করো।

7. ভারতের তোক আদালতের গঠন ও কার্যাবলি বিশ্লেষণ করো।

8. ভারতের বিচার ব্যবস্থার বৈশিষ্ট্যসমূহ আলোচনা করো।
আরোও দেখুন:-

Higher Secondary Political Science Suggestion | উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান সাজেশন

উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান – আন্তর্জাতিক সম্পর্ক (প্রথম অধ্যায়) Click here
উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান – দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী পর্বের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক (দ্বিতীয় অধ্যায়) Click here
উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান – বিদেশনীতি (তৃতীয় অধ্যায়) Click here

         ” উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান – ভারতের বিচার বিভাগ (নবম অধ্যায়) “ একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ টপিক উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা (Higher Secondary / HS Exam / WBCHSE – West Bengal Council of Higher Secondary Education / Class XII 12 / Uccha Madhyamik Pariksha) এবং বিভিন্ন চাকরির (WBCS, WBSSC, RAIL, PSC, DEFENCE) পরীক্ষায় এখান থেকে প্রশ্ন অবশ্যম্ভাবী । সে কথা মাথায় রেখে BhugolShiksha.com এর পক্ষ থেকে উচ্চমাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান পরীক্ষা (দ্বাদশ শ্রেণী) প্রস্তুতিমূলক প্রশ্নোত্তর এবং সাজেশন (Higher Secondary Political Science Suggestion / WBCHSE – West Bengal Council of Higher Secondary Education / HS Class XII 12 / Uccha Madhyamik Pariksha / HS Exam Guide / MCQ , Short , Descriptive  Type Question and Answer / FREE PDF Download) উপস্থাপনের প্রচেষ্টা করা হলাে। ছাত্রছাত্রী, পরীক্ষার্থীদের উপকারেলাগলে, আমাদের প্রয়াস  উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান পরীক্ষা (দ্বাদশ শ্রেণী) প্রস্তুতিমূলক প্রশ্নোত্তর এবং সাজেশন (Higher Secondary Political Science Suggestion / WBCHSE – West Bengal Council of Higher Secondary Education / HS Class XII 12 / Uccha Madhyamik Pariksha / HS Exam Guide / MCQ , Short , Descriptive  Type Question and Answer / FREE PDF Download) সফল হবে।
    স্কুল, কলেজ ও বিভিন্ন ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনার ডিজিটাল মাধ্যম BhugolShiksha.com । এর প্রধান উদ্দেশ্য পঞ্চম শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর সমস্ত বিষয় এবং গ্রাজুয়েশনের শুধুমাত্র ভূগোল বিষয়কে  সহজ বাংলা ভাষায় আলোচনার মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীদের কাছে সহজ করে তোলা। এছাড়াও সাধারণ-জ্ঞান, পরীক্ষা প্রস্তুতি, ভ্রমণ গাইড, আশ্চর্যজনক তথ্য, সফল ব্যাক্তিদের জীবনী, বিখ্যাত ব্যাক্তিদের উক্তি,  প্রাণী জ্ঞান, কম্পিউটার, বিজ্ঞান ও বিবিধ প্রবন্ধের মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীদের মননকে বিকশিত করে তোলা।
        আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ সময় করে আমাদের পােস্টটি পড়ার জন্য। এই ভাবেই ভূগোল শিক্ষা – BhugolShiksha.com ওয়েবসাইটের পাশে থাকুন। ভূগোল বিষয়ে যেকোনো প্ৰশ্ন উত্তর জানতে এই ওয়েবসাইট টি ফলাে করুন এবং নিজেকে  তথ্য সমৃদ্ধ করে তুলুন , ধন্যবাদ।
নিচের বাটনে ক্লিক করে শেয়ার করেন বন্ধুদের মাঝে