উচ্চমাধ্যমিক প্রাকৃতিক ভুগোল ষষ্ঠ অধ্যায় – মৃত্তিকা | পরীক্ষা প্রস্তুতিমূলক প্রশ্নোত্তর | Higher Secondary Geography Exam Guide | Bhugol Shiksha

5674

উচ্চমাধ্যমিক ভূগোল – HS Geography

প্রাকৃতিক ভুগোল ষষ্ঠ অধ্যায় – মৃত্তিকা

পরীক্ষা প্রস্তুতিমূলক প্রশ্নোত্তর


MCQ প্রশ্নোত্তর [ মান – 1 ]

1. তুন্দ্রা মৃত্তিকার নীচে অবস্থিত চিরতুষার স্তরকে বলা হয়—
(a) পার্মাফ্রস্ট (b) ডুরিক্রাস্ট (c) এলুভিয়েশন (d) ক্যাটেনা

ans. (a) পার্মাফ্রস্ট

2. মৃত্তিকার B স্তরে অদ্রবণীয় পদার্থের সয়ের ফলে গঠিত একটি কঠিন আবরণকে বলা হয় –
(a) হার্ডপ্যান (b) ডুরিক্রাস্ট (c) রেনজিনা (d) পার্মাফ্রস্ট

ans. (b) ডুরিক্রাস্ট

3. কৃয় মৃত্তিকার অপর নাম হলো –
(a) ডাফ বা মাল (b) ক্যাটেনা (c) রেগুর (d) আঞ্চলিক মৃত্তিকা

ans. (c) রেগুর

4. চেস্টনাট ও সিরোজম হলো –
(a) মরু অঞলের মৃত্তিকা (b) নিরক্ষীয় অঞলের মৃত্তিকা (c) নাতিশীতোষ্ণু অঞলের মৃত্তিকা (d) কোনোটিই নয়

ans. (a) মরু অঞলের মৃত্তিকা

5. হার্ডপ্যান লক্ষ করা যায় –
(a) পডসল (b) ল্যাটেরাইট (c) সিরোজেম (d) কৃয় মৃত্তিকায়

ans. (b) ল্যাটেরাইট

6. মৃত্তিকার উল্লম্ব প্রস্থচ্ছেদকে বলা হয় –
(a) রোরাইজন (b) পরিলেখ (c) ক্যাটেনা (d) রেগোলিথ

ans. (b) পরিলেখ

7. মৃত্তিকার সব স্তর দেখা যায় –
(a) পরিণত (b) অপরিণত (c) কঙ্কালসার (d) চারনোজেম মৃত্তিকাতে

ans. (a) পরিণত

8. ভূত্বকের উপরিভাগে আবহবিকারের ফলে সৃষ্ট শিলাচূর্ণকে বলা হয় –
(a) টেররোসা (b) রেনজিনা (c) রেগোলিথ (d) চারনোজেম

ans. (c) রেগোলিথ

9. জৈব পদার্থের পরিমাণ কম থাকে –
(a) A হরাইজনে (b) B হরাইজনে (c) C হরাইজনে (d) কোনোটিই নয়

ans. (b) B হরাইজনে

10. এলুভিয়েশন প্রক্রিয়া লক্ষ করা যায় মৃত্তিকার—
(a) C স্তরে (b) B স্তরে (c) A স্তরে (d) C ও A উভয়ই স্তরে

ans. (c) A স্তরে

11. মৃত্তিকাবিজ্ঞানের যে অংশে মৃত্তিকা ও উদ্ভিদের পারস্পরিক সম্পর্ক নিয়ে আলোচিত হয় তাকে বলে—

(a) জুলজি (b) পেডোলোজি (c) বায়োলজি (d) ইডফোলজি

ans. (d) ইডফোলজি

12. মৃত্তিকার pH-এর মান 7-এর কম হলে –
(a) আম্লিক (b) ক্ষারকীয় (c) প্রশমিত (d) অতিক্ষারকীয়

ans. (a) আম্লিক

13. মৃত্তিকাবিজ্ঞানের জনক হলেন –
(a) জেনি (b) ডকুচেভ (C) মিলনে (d) হিলগার্ড

ans. (b) ডকুচেভ

14. মৃত্তিকা পরিলেখের ধারণা সর্বপ্রথম দিয়েছেন –
(a) ডকুচেভ (b) মিলনে (c) জেনি (d) হিলগার্ড

ans. (a) ডকুচেভ

15. মৃত্তিকার ‘A’ ও ‘B’ স্তরকে একত্রে বলে –
(a) ক্যাটেনা (b) পেডন (c) সোলাম (d) পরিলেখ

ans. (c) সোলাম

16. আবহবিকারের ফলে সৃষ্ট শিথিল শিলাচূর্ণ –
(a) রেগোলিথ (b) পেড়ন(c) ক্যাটেনা (d) সোলাম

ans. (a) রেগোলিথ

17. মৃত্তিকার প্রাথমিক কণাগুলি সমষ্টিতে পরিণত হয়ে একক গঠন করলে তাকে বলে –
(a) পেড়ন (b) পলিপেড়ন (c) পেড (d) এপিপেড়ন

ans. (c) পেড

18. ইলুভিয়েশন প্রক্রিয়া লক্ষ করা যায় মৃত্তিকার –
(a) C স্তরে (b) B স্তরে (c) A স্তরে (d) কোনোটিই নয়

ans. (b) B স্তরে

19. অ্যালুমিনিয়াম ও লৌহ অক্সাইড মিশ্রিত মৃত্তিকাকে বলা হয়—
(a) ল্যাটেরাইট (b) চারনোজেম (c) পডসল (d) পেডালফার মৃত্তিকা

ans. (a) ল্যাটেরাইট

20. প্রেইরি ও স্তেপ তৃণভূমি অঞলে লক্ষ করা যায় –
(a) পডসল (b) ল্যাটেরাইট (c) পেডোক্যাল (d) চারনোজেম মৃত্তিকা

ans. (d) চারনোজেম মৃত্তিকা

21. পিট বা বগ মৃত্তিকা দেখা যায় –
(a) আগ্নেয় শিলায় (b) স্থলভাগে (c) জলাভূমিতে (d) চুনাপাথরের ওপরে

ans. (c) জলাভূমিতে

22. চুনাপাথর ও মার্বেল থেকে সৃষ্ট মৃত্তিকাকে বলা হয় –

(a) রেগোলিথ (b) পার্মাফ্রস্ট (c) রেনজিনা (d) ডুরিক্রাস্ট

ans. (c) রেনজিনা

23. মরুপ্রায় ও মরুভূমি অঞলে লবণাক্ত মৃত্তিকা গঠনের প্রক্রিয়াকে বলা হয় –
(a) রেনজিনা (b) স্যালিনাইজেশন (c) হার্ডপ্যান (d) কোনোটিই নয়

ans. (b) স্যালিনাইজেশন


অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [ মান – 1]

1. খনিজকরণ কাকে বলে?

ans. হিউমাস থেকে খনিজ গঠনকারী প্রক্রিয়াকেই বলা হয় খনিজকরণ। এটি হলো খনিজ পদার্থের প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়া।

2. মৃত্তিকার জলধারণ ক্ষমতা কাকে বলে?

ans. একক আয়তনের মৃত্তিকার রন্ধ্রে যে পরিমাণ জল সঞ্জিত হয় তার পরিমাণকে বলা হয় মৃত্তিকার জলধারণ ক্ষমতা।

3. মৃত্তিকার সচ্ছিদ্রতা কাকে বলে?

ans. মৃত্তিকার ছিদ্র বা রন্ধ্র দিয়ে বায়ু, জল চলাচল করতে পারে। সেই ছিদ্রযুক্ত মৃত্তিকাকে মৃত্তিকার সচ্ছিদ্রতা বলে।

4. অ্যারিডিসল ও ভার্টিসল মৃত্তিকার বৈশিষ্ট্য লেখো।

ans. অ্যারিডিসল : এটি শুষ্ক অঞলের মৃত্তিকা, মৃত্তিকার রং হালকা হয়

ভার্টিসল : এটি কাদাকণা সমৃদ্ধ মৃত্তিকা, প্রচুর পরিমাণে জল ধরে রাখতে পারে।

5. এন্টিসল ও মলিসল মৃত্তিকার বৈশিষ্ট্য লেখো।

ans.এন্টিসল : এই মৃত্তিকা বয়সে নবীন, স্তর সুস্পষ্ট নয়, কম উর্বরতাযুক্ত।

মলিসল : এই মৃত্তিকা খুব শক্ত নয়, রং গাঢ় কালো, নাতিশীতোয় জলবায়ু অঞ্চলে দেখা যায়।

6. ইনসেপটিসল ও হিস্টোসল মৃত্তিকার বৈশিষ্ট্য লেখো।

ans. ইনসেপটিসল : এটি বয়সে নবীন, অপরিণত মৃত্তিকা, আদ্র ও আদ্ৰপ্ৰায় জলবায়ুতে দেখা যায়।

হিস্টোসল : এই মৃত্তিকায় জৈব পদার্থ বেশি থাকে, কাদাকণার পরিমাণ খুব কম।

7. অক্সিসল ও আলটিসল মৃত্তিকার বৈশিষ্ট্য লেখো।

ans. অক্সিসল : আর্দ্র জলবায়ুতে দেখা যায়, এই মৃত্তিকার উপরিস্তরে Fe & AI পড়ে থাকে।

আলটিসল : ক্রান্তীয় ও মৌসুমি জলবায়ুতে দেখা যায়, Fe & AI অধিক থাকে।

8. স্পােডোেসল ও আলফিসল মৃত্তিকার বৈশিষ্ট্য লেখো।

ans. স্পােডোসল : এই মৃত্তিকা ধূসর ও অনুর্বর প্রকৃতির।

আলফিসল : এই মৃত্তিকা প্রেইরি অঞ্চলে সৃষ্টি হয় এবং উর্বর প্রকৃতির।

9. অ্যান্ডিসল ও জেলিসল মৃত্তিকার বৈশিষ্ট্য লেখো।

ans. অ্যান্ডিসল : এই মৃত্তিকা অগ্ন্যুৎপাতে সৃষ্ট ছাই জমাটবদ্ধ হয়ে সৃষ্টি হয়।

জেলিসল : পার্বত্যভূমির উচ্চ অংশে সৃষ্টি হয়।

10. মৃত্তিকার অবনমন কাকে বলে?

ans. প্রাকৃতিক ও অপ্রাকৃতিক কারণে যখন মৃত্তিকার গুণগত মান নষ্ট হয় এবং মৃত্তিকা। উর্বরতা হারায়, তখন তাকে মৃত্তিকার অবনমন বলে।

11 . ল্যাটেরাইজেশন কী?

ans. আদ্র-গ্রীষ্মমণ্ডলীয় জলবায়ু অঞলে যে প্রক্রিয়ায় মৃত্তিকার উপর স্তর থেকে সিলিকা অপসৃত হয় এবং আয়রন ও অ্যালুমিনিয়াম কণা সঞ্চিত হয়ে থাকে, তাকে ল্যাটেরাইজেশন বলে। ও মৃত্তিকা গঠনের উপাদানগুলি কী? উত্তর মৃত্তিকা গঠনকারী প্রধান প্রধান উপাদানগুলি হলো—জলবায়ু, ভূমিরূপ, জৈবপদার্থ, উৎস পদার্থ, সময়। s=f (cl, 0, r, p, t) s=Soil, f=factor, cl=climate, o=organic, r=relief, p=parent material, t=time.

12. মৃত্তিকা গঠনের পদ্ধতিগুলি কী?

ans. মৃত্তিকা গঠনের পদ্ধতিগুলি হলো—হিউমিফিকেশন, খনিজকরণগুলি, পড়জোলাইজেশন, ল্যাটেরাইজেশন, প্লেইজেশন, স্যালিলাইজেশন, এলুভিয়েশন, ইলুভিয়েশন ইতাদি।

13. হিউমিফিকেশন কাকে বলে?

ans. সাধারণত রেগোলিথের ওপর মৃত উদ্ভিদ ও প্রাণীর দেহাবশেষ পচে এক ধরনের জটিল কালো রঙের পদার্থ সৃষ্টি করে, যাকে হিউমাস বলে। এইরূপে হিউমাস গঠন প্রক্রিয়াকে বলা হয় হিউমিফিকেশন।

14. রেগোলিথ কী?

ans. যান্ত্রিক ও রাসায়নিক আবহবিকারের ফলে শিলা চূর্ণবিচূর্ণ হয়ে আদি শিলার ওপর শিথিল এক পাতলা আস্তরণ সৃষ্টি হয় একে রেগোলিথ বলে।

15. সোলাম কী ?

ans. আবহবিচূর্ণিত শিলাচূর্ণের সঙ্গে জৈব সংমিশ্রণে পরিপূর্ণ মৃত্তিকার সৃষ্টি হলে তাকে সোলাম বলে।

16. মৃত্তিকার ক্যাটেনা কাকে বলে?

ans. ভূমিঢালের তারতম্য অনুযায়ী ঢালের বিভিন্ন অংশে ভিন্ন ভিন্ন মৃত্তিকার সৃষ্টি হয়। ঢালের সাথে মৃত্তিকার এই ভিন্নতার সম্পর্ককে মৃত্তিকার ক্যাটেনা বলে।

17. মৃত্তিকার pHকী ?

ans. সাধারণত মৃত্তিকার অম্লত্ব, ক্ষারত্ব পরিমাপক স্কেল হলো pH ; মৃত্তিকার pH-এর মান 7-এর কম হলে আম্লিক হয় এবং pH-এর মান 7-এর বেশি হলে ক্ষারকীয় হয়ে থাকে।

18. ড্যুরিক্রাস্ট বলতে কী বোঝো?

ans. তৃণভূমি অঞলে যেখানে সারনোজেম মৃত্তিকার সৃষ্টি হয়, সেখানে বৃষ্টিপাতের। স্বল্পতা হেতু ধৌত প্রক্রিয়ায় ক্ষয় খুব কমই হয়ে থাকে। এর ফলে মৃত্তিকার নিম্নস্তরে চুনজাতীয় পদার্থ সঞ্জিত হয়ে যে কঠিন স্তর গঠিত হয়, তাকে রিক্রাস্ট বলা হয়।

19. রেনজিনা কী?

ans. গাঢ় রঙের এক ধরনের অনাঞলিক মৃত্তিকাকে বলা হয় রেনজিনা। এই মৃত্তিকার A স্তর ভঙ্গুর প্রকৃতির হয়। I?

20. ডাফ ও মাল কাকে বলে?

ans. সরলবর্গীয় অরণ্য অঞ্চলে অবস্থিত মৃত্তিকা প্রােফাইলের ‘O’ স্তরটিকে বলা হয় ডাফ। পর্ণমোচী অরণ্য অঞ্চলে অবস্থিত মৃত্তিকা প্রােফাইলের ‘0 স্তরটিকে বলা হয় মাল।

21. মিশেল কী ?

ans. মৃত্তিকার কলয়েডগুলির মধ্যে ঋণাত্মক তড়িৎ, খনিজ এবং জৈব কলয়েড থাকলে তাকে মিশেল বলে।

22. মৃত্তিকার স্তরায়ণ কাকে বলে?

ans. ভূপৃষ্ঠের কোনো স্থানের মৃত্তিকাকে উল্লম্বভাবে প্রস্তচ্ছেদ করলে কতকগুলি সুস্পষ্ট স্তর দেখা যায়, এগুলিকে বলা হয় মৃত্তিকার স্তরায়ণ।

23. জনক শিলা কাকে বলে?

ans. ভূত্বকের উপরিভাগে বারিমণ্ডল, শিলামণ্ডল ও জীবমণ্ডলের ক্রিয়ার ফলে যে। মৃত্তিকার সৃষ্টি হয়, তাকে বলা হয় জনক শিলা।

বিশ্লেষণ বা বর্ণনাভিত্তিক প্রশ্নোত্তর [ মান (7) ]

1. মৃত্তিকা সৃষ্টির প্রক্রিয়াগুলির সংক্ষিপ্ত পরিচয় দাও । এলুভিয়েশন ও ইলুভিয়েশনের মধ্যে পার্থক্য লেখো।

2. কীভাবে মৃত্তিকার অবক্ষয় ঘটে থাকে ? মৃত্তিকা সংরক্ষণের উপায়গুলি সংক্ষেপে বর্ণনা করো।

3. আঞ্চলিক, অআঞ্চলিক ও আন্তঃআলিক মৃত্তিকার মধ্যে পার্থক্য লেখো। পেডালফার ও পেডোক্যাল মৃত্তিকার মধ্যে পার্থক্য লেখো।



        “ উচ্চমাধ্যমিক প্রাকৃতিক ভুগোল ষষ্ঠ অধ্যায় – মৃত্তিকা ” একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ টপিক উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় (Higher Secondary – HS) এবং বিভিন্ন চাকরির (WBCS, WBSSC, RAIL, PSC, DEFENCE) পরীক্ষায় এখান থেকে প্রশ্ন অবশ্যম্ভাবী । সে কথা মাথায় রেখে ভূগোল শিক্ষা – Bhugol Shiksha এর পক্ষ থেকে উচ্চমাধ্যমিক ভূগোল পরীক্ষা প্রস্তুতিমূলক প্রশ্নোত্তর (Higher Secondary Geography Exam Guide) উপস্থাপনের প্রচেষ্টা করা হলাে। ছাত্রছাত্রী, পরীক্ষার্থীদের উপকারেলাগলে, আমাদের প্রয়াস (উচ্চ মাধ্যমিক ভূগোল পরীক্ষা প্রস্তুতিমূলক প্রশ্নোত্তর – Higher Secondary Geography Exam Guide) সফল হবে।
স্কুল, কলেজ ও বিভিন্ন ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনার ডিজিটাল মাধ্যম www.BhugolShiksha.com । এর প্রধান উদ্দেশ্য পঞ্চম শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর সমস্ত বিষয় এবং গ্রাডুয়েশনের ভূগোল বিষয়কে  সহজ বাংলা ভাষায় আলোচনার মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীদের কাছে সহজ করে তোলা। এছাড়াও সাধারণ-জ্ঞান, পরীক্ষা প্রস্তুতি, ভ্রমণ গাইড, আশ্চর্যজনক তথ্য, সফল ব্যাক্তিদের জীবনী, বিখ্যাত ব্যাক্তিদের উক্তি,  প্রাণী জ্ঞান, কম্পিউটার, বিজ্ঞান ও বিবিধ প্রবন্ধের মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীদের মননকে বিকশিত করে তোলা।

       আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ সময় করে আমাদের পােস্টটি পড়ার জন্য। এই ভাবেই BhugolShiksha.com এর পাশে থাকুন। ভূগোল বিষয়ে যেকোনো প্ৰশ্ন উত্তর জানতে এই ওয়েবসাইট টি ফলাে করুন এবং নিজেকে তথ্য সমৃদ্ধ করে তুলুন , ধন্যবাদ।

নিচের বাটনে ক্লিক করে শেয়ার করেন বন্ধুদের মাঝে