উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান – সরকারের বিভিন্ন বিভাগ (ষষ্ঠ অধ্যায়) প্রশ্নোত্তর সাজেশন | Higher Secondary Political Science Suggestion

15902
উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান - সরকারের বিভিন্ন বিভাগ (ষষ্ঠ অধ্যায়) প্রশ্নোত্তর সাজেশন | Higher Secondary Political Science Suggestion

Higher Secondary Political Science Suggestion | WBCHSE HS Exam Qustion and Answer | উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান (দ্বাদশ শ্রেণীর) প্রশ্নোত্তর সাজেশন

সরকারের বিভিন্ন বিভাগ (ষষ্ঠ অধ্যায়)

MCQ প্রশ্নোত্তর

সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো।

1. তত্ত্বগতভাবে ক্ষমতাস্বতন্ত্রীকরণ নীতির অস্তিত্ব রয়েছে

(a) ভারতে (b) ব্রিটেনে (c) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে (d) জাপানে

Ans. (c) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে

2. “ন্যায়বিচারের দীপশিখাটি অন্ধকারের মধ্যে নিভে গেলে কী ভীষণ সেই অন্ধকার।”একথা কে বলেছেন?

(a) গেটেল (b) লর্ড ব্রাইস (c) মার্কস (d) বাকার

Ans. (b) লর্ড ব্রাইস

3. “দ্বিতীয় পরিষদ হলো স্বাধীনতার অপরিহার্য নিরাপত্তা।” এ কথা বলেছেন

(a) লক (b) গ্রিন (c) লর্ড অ্যাক্টন (d) লর্ড কার্জন

Ans. (c) লর্ড অ্যাক্টন

4. “পার্লামেন্টের হলো খেলার বিষয়।” বলেছেন

(a) হিটলার (b) বেনিটো মুসোলিনি (c) রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (d) স্তালিন

Ans. (a) হিটলার

5. সবচেয়ে ক্ষমতাশালী বিচার বিভাগ রয়েছে —

(a) ব্রিটেনে (b) ভারতে (c) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে (d) চিনে

Ans. (c) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে

6. মার্কিন রাষ্ট্রপতির কার্যকালের মেয়াদ –

(a) ৩ বছর (b) ৪ বছর (c) ৫ বছর (d) ৬ বছর

Ans. (b) ৪ বছর

7. অরাজনৈতিক অথবা স্থায়ী প্রশাসকরা হলেল –

(a) মন্ত্রীপরিষদের সদস্য (b) আইন বিভাগের সদস্য (c) বিচার বিভাগের সদস্য (d) আমলাতন্ত্রের সদস্য

Ans. (d) আমলাতন্ত্রের সদস্য

8. “পার্লামেন্ট একটি ক্রীড়নকমাত্র”, বলেছেন –

(a) মুসোলিনি (b) হিটলার (c) ফ্রাঙ্কো (d) বিসমার্ক

Ans. (a) মুসোলিনি

9. — বিভাগকে সংবিধানের অভিভাবক বলে মনে করা হয় –

(a) শাসন বিভাগ (b) আইন বিভাগ (c) বিচার বিভাগ (d) কোনোটিই নয়

Ans. (c) বিচার বিভাগ

10. দ্বিকক্ষবিশিষ্ট আইনসভার সমর্থক হলেন –

(a) ল্যাস্কি (b) বেন্থাম (c) লর্ড ব্রাইস (d) ফ্রাঙ্কলিন

Ans. (c) লর্ড ব্রাইস

11. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটে প্রতিটি অঙ্গরাজ্য থেকে প্রতিনিধি নির্বাচিত হন –

(a) ৩ জন (b) ২ জন (c) ৫ জন (d) ৪ জন

Ans. (b) ২ জন

12. আমলাতন্ত্রের প্রধান কাজ –

(a) সরকারের নীতিসমূহের রূপায়ণ (b) আইন প্রণয়ন (c) সংবিধানের ব্যাখ্যা (d) এদের সবক’টি

Ans. (a) সরকারের নীতিসমূহের রূপায়ণ

13. ব্রিটেনের নিয়মতান্ত্রিক শাসক হলেন –

(a) প্রধানমন্ত্রী (b) স্পিকার (c) রাজা বা রানি (d) লর্ড চ্যান্সেলার

Ans. (c) রাজা বা রানি

14. ধরনের সরকারের ক্ষেত্রে আইনসভার উচ্চকক্ষটি আবশ্যক–

(a) এককেন্দ্রিক (b) যুক্তরাষ্ট্রীয় (c) রাষ্ট্রপতি শাসিত (d) সংসদীয়

Ans. (d) সংসদীয়

15. আইনসভা কর্তৃক বিচারপতিরা নির্বাচিত হন –

(a) গ্রেট ব্রিটেনে (b) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে (c) ভারতে (d) সুইজারল্যান্ডে

Ans. (d) সুইজারল্যান্ডে

16. মার্কিন রাষ্ট্রপতি হলেন রাষ্ট্রের —–– প্রধান।

(a) সাংবিধানিক (b) প্রকৃত (c) সাংবিধানিক ও প্রকৃত (d) কোনোটিই নয়

Ans. (c) সাংবিধানিক ও প্রকৃত

17. একটি বহু পরিচালক শাসন ব্যবস্থার উদাহরণ হলো_________

(a) ভারত (b) আমেরিকা (c) সুইজারল্যান্ড (d) ইংল্যান্ড

Ans. (c) সুইজারল্যান্ড

18. অর্ডিনান্স জারি করার ক্ষমতা রয়েছে_________

(a) শাসন বিভাগের (b) আইন বিভাগের (c) বিচার বিভাগের (d) এদের মধ্যে কোনোটিই নয়

Ans. (a) শাসন বিভাগের

19. পশ্চিমবঙ্গের আইনসভার কক্ষ রয়েছে _________

(a) একটি (b) দু’টি (c) তিনটি (d) চারটি

Ans. (a) একটি

20. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আইনসভার উচ্চকক্ষের নাম _________

(a) লর্ডসভা (b) সিনেট (c) জনপ্রতিনিধিসভা (d) লোকসভা

Ans. (b) সিনেট

21. সুইজারল্যান্ডের আইনসভার একটি কক্ষের নাম

(a) জাতীয় পরিষদ (b) সিনেট (c) কমন্সসভা (d) জনপ্রতিনিধিসভা

Ans. (a) জাতীয় পরিষদ

22. সুইজারল্যান্ডের আইনসভার দ্বিতীয় কক্ষের নাম _________

(a) রাজ্য পরিষদ (b) কমন্সসভা (c) কাউন্সিল (d) প্রতিনিধিসভা

Ans. (a) রাজ্য পরিষদ

23. চিনের আইনসভাকে বলা হয় –

(a) জাতীয় গণকংগ্রেস (b) কংগ্রেস (c) সিনেট (d) কাউন্সিল

Ans. (a) জাতীয় গণকংগ্রেস

24. ভারতের নামসর্বস্ব শাসক হয়ে

(a) প্রধানমন্ত্রী (b) মন্ত্রী পরিষদ (c) রাষ্ট্রপতি (d) পার্লামেন্ট

Ans. (c) রাষ্ট্রপতি

25. ভারতের শাসন বিভাগের প্রকৃত শাসক হলেন _________

(a) প্রধানমন্ত্রী (b) পার্লামেন্ট (c) রাষ্ট্রপতি (d) সুপ্রিম কোর্ট

Ans. (a) প্রধানমন্ত্রী

26. আইনসভার জননী বলা হয় _________

(a) ব্রিটিশ পার্লামেন্টকে (b) ফরাসি পার্লামেন্টকে (c) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্টকে (d) ভারতের পার্লামেন্টকে

Ans. (a) ব্রিটিশ পার্লামেন্টকে

27. দ্বিকক্ষবিশিষ্ট আইনসভা প্রথম চালু হয় —

(a) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে (b) ফ্রান্সে (c) ব্রিটেনে (d) রাশিয়াতে

Ans. (c) ব্রিটেনে

28. Government of England গ্রন্থের লেখক হলেন–

(a) লাওয়েল (b) মন্তেস্কু (c) বেজহট। (d) লর্ড অ্যাকটন

Ans. (a) লাওয়েল

29. ব্রিটেনের পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ লর্ডসভাকে ‘বিত্তশালীদের দুর্গ’ বলেছেন

(a) রামসে ম্যুর (b) লর্ড ব্রাইস (c) ল্যাস্কি (d) মিল

Ans. (a) রামসে ম্যুর

30. “চারটি চোখ দুটি চোখের অপেক্ষা অনেক ভালো। দেখে।” বলেছেন –

(a) লর্ড ব্রাইস (b) ল্যাস্কি (c) ব্লুন্টসলি (d) মিল

Ans. (c) ব্লুন্টসলি

31. ভারতে জরুরি অবস্থা জারি করা হয় –

(a) ১৯৭০ খ্রি: (b) ১৯৭৫ খ্রি: (c)১৯৭৭ খ্রি: (d) ১৯৮০ খ্রি:

Ans. (b) ১৯৭৫ খ্রি:

32. কোন দেশের আইনসভার উচ্চকক্ষ সমপ্রতিনিধিত্বের নীতির ভিত্তিতে গঠিত?

(a) ভারত (b) ব্রিটেন (c) সুইজারল্যান্ড। (d) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

Ans. (d) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

33.‘স্পিরিট অব দ্য লজ গ্রন্থের রচয়িতা কে?

(a) মার্কস (b) হেগেল (C) মন্তেস্কু (d) লেনিন

Ans. (C) মন্তেস্কু

34. ব্রিটিশ পালামেন্টের নিম্নকক্ষের নাম

(a) লর্ডসভা (b) কমন্সসভা (c) লোকসভা (d) রাজ্যসভা

Ans. (b) কমন্সসভা

35. উত্তরাধিকার সূত্রে মনোনীত শাসক দেখা যায়

(a) পাকিস্তানে (b) ভারতে (C) গ্রেট ব্রিটেনে (d) শ্রীলঙ্কাতে

Ans. (C) গ্রেট ব্রিটেনে

36. এককক্ষবিশিষ্ট আইনসভার সমর্থক হলেন

(a) হ্যারল্ড ল্যাক্সি (b) লর্ড ব্রাইস (c) জন স্টুয়ার্ট মিল (d) হেনরি মেইন

Ans. (a) হ্যারল্ড ল্যাক্সি

37. ক্ষমতাস্বতন্ত্রীকরণ নীতির প্রয়োগ ঘটেছে –

(a) ব্রিটেনে (b) পাকিস্তানে (c) নেপালে (d) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে

Ans. (d) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে

38.সরকারের কার্যাবলিকে মূলত _________ ভাগে ভাগ করা যায়—

(a) দুই (b) তিন (c) চার (d) পাঁচ

Ans. (b) তিন

39. ব্রিটিশ পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষের নাম –

(a) লর্ডসভা (b) সিনেট (c) লোকসভা (d) কমন্সসভা

Ans. (a) লর্ডসভা

40. ভারতের রাষ্ট্রপতিকে কে পরামর্শ দিতে পারে?

(a) প্রধানমন্ত্রী (b) কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভা (c) সুপ্রিম কোর্ট (d) হাইকোর্ট

Ans. (c) সুপ্রিম কোর্ট

41. ভারতের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষের নাম –

(a) লোকসভা (b) রাজ্যসভা (c) পার্লামেন্ট (d) আইনসভা

Ans. (a) লোকসভা

42. ভারতের পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষের নাম –

(a) রাজ্যসভা (b) লোকসভা (c) পার্লামেন্ট (d) সংসদ

Ans. (a) রাজ্যসভা
অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর [ মান – ১]

1. Spirit of Laws গ্রন্থটি কার লেখা ?

Ans. Spirit of LaWS গ্রন্থটি মন্তেস্কুর লেখা। (2)

2. আমলাতন্ত্র বলেতে কী বোঝো?

3. আইনসভার সার্বভৌমত্ব বলতে কী বোঝায়?

Ans. আইনসভার সার্বভৌমত্ব বলতে আইনসভার চরম ও চূড়ান্ত ক্ষমতাকে বোঝায়। গ্রেট ব্রিটেনের আইনসভা এরূপ সার্বভৌম ক্ষমতার অধিকারী।

4. আইনসভার বিচার-সংক্রান্ত কাজগুলি কী?

Ans. আইনসভার বিচার-সংক্রান্ত কাজগুলি হলো বিচারকদের সংখ্যা নির্ধারণ, বিচারকদের নিয়োগ করা ও পদচ্যুত করা।

5. এমন দুটি রাষ্ট্রের নাম লেখো যার বিচার বিভাগের বিচারবিভাগীয় পর্যালোচনার ক্ষমতা রয়েছে।

Ans. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতের বিচার বিভাগের বিচারবিভাগীয় সমীক্ষা বা পর্যালোচনার ক্ষমতা রয়েছে।

6. কোন দেশের বিচারপতি জনগণের দ্বারা নিযুক্ত হন?

Ans. সুইজারল্যান্ডের ক্যান্টনগুলিতে বিচারপতি জনগণের দ্বারা নিযুক্ত হন।

7. শাসন বিভাগের একক পরিচালক বলতে কী বোঝায় ?

Ans. শাসন বিভাগীয় সমস্ত কাজ যখন একজন মাত্র পরিচালকের নির্দেশ এবং নেতৃত্বে পরিচালিত হয়, তখন তাকে একক পরিচালক বলে।

8. যুক্তরাষ্ট্রীয় সরকার কাকে বলে?

Ans. যুক্তরাষ্ট্রীয় সরকার বলতে সেই সরকারকে বোঝায় যেখানে একটি লিখিত সংবিধানের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় সরকার ও অঙ্গরাজ্যের সরকারগুলির মধ্যে ক্ষমতা ভাগ। করে দেওয়া হয়।

9. শাসন বিভাগের যেকোনো একটি কাজ উল্লেখ করো।

Ans. শাসন বিভাগের একটি কাজ হলো নীতি নির্ধারণ করা।

10. শাসন বিভাগের ক’টি অংশ ও কী কী?

Ans. শাসন বিভাগের দুটি অংশ – রাজনৈতিক ও অ-রাজনৈতিক অংশ।

11. ভারতের আইনসভা ক’টি কক্ষ নিয়ে গঠিত?

Ans. ভারতের আইনসভা দু’টি কক্ষ নিয়ে গঠিত।

12. সিনেটের সদস্যগণ কীভাবে নির্বাচিত হন?

Ans. জনগণের দ্বারা প্রত্যক্ষভাবে নির্বাচিত হন।

13. বিচার বিভাগের স্বাধীনতার একটি প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করো।

Ans. গণতন্ত্রের সাফল্যের জন্য বিচার বিভাগের স্বাধীনতা প্রয়োজন।

14. ভারতের শাসন বিভাগ একক না বহু পরিচালক বিশিষ্ট শাসকযুক্ত ?

Ans. ভারতের শাসন বিভাগের ক্ষেত্রে একক পরিচালক এবং বহু পরিচালকযুক্ত শাসন ব্যবস্থা উভয়েরই সমন্বয় ঘটেছে বলে মনে করা হয়।

15. শাসন বিভাগের দু’টি কাজ উল্লেখ করো।

Ans. শাসন বিভাগের দু’টি কাজ হলো – (i) দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার ব্যবস্থা করা এবং (ii) নীতি নির্ধারণ ও রূপায়ণ করা।

16. বিচার বিভাগ কীভাবে মৌলিক অধিকারের রক্ষাকর্তা হিসেবে কাজ করে?

Ans. আইন ও সংবিধানের ব্যাখ্যাকার এবং সংরক্ষক হিসেবে বিচার বিভাগ মৌলিক অধিকারের রক্ষাকর্তা রূপে কাজ করে।

17. একক পরিচালক ও বহ পরিচালক বিশিষ্ট শাসকের মধ্যে একটি পার্থক্য লেখো।

Ans. একক পরিচালক বিশিষ্ট শাসকের হাতে শাসন বিভাগের সমস্ত কাজকর্ম ন্যস্ত থাকে এবং শাসন বিভাগ তার নেতৃত্বে ও নির্দেশ অনুযায়ী পরিচালিত হয়। অন্যদিকে, বহু পিরচালক বিশিষ্ট শাসকের ক্ষেত্রে শাসন বিভাগের প্রকৃত ক্ষমতা সমক্ষমতাসম্পন্ন বহ ব্যক্তির হাতে ন্যস্ত থাকে।

18. সংসদীয় শাসন ব্যবস্থায় কত ধরনের শাসক থাকেন?

Ans. সংসদীয় শাসন ব্যবস্থায় দু’ধরনের শাসক থাকেন। যথা – (i) প্রকৃত শাসক (ii) নামসর্বস্ব শাসক।

19. স্থায়ী প্রশাসক বলতে কী বোঝো?

Ans. প্রশাসনিক কার্যে স্থায়ীভাবে নিযুক্ত কর্মচারীদের স্থায়ী প্রশাসক বলা হয়।

20. শাসন বিভাগ কাদের নিয়ে গঠিত হয়?

Ans. ব্যাপক অর্থে শাসন বিভাগ রাষ্ট্রপ্রধান থেকে শুরু করে প্রশাসনের সাধারণ কর্মচারী পর্যন্ত সমস্ত পদাধিকারীকে নিয়ে গঠিত।

21. এককক্ষবিশিষ্ট আইনসভা কোন কোন দেশে রয়েছে?

Ans. এককক্ষবিশিষ্ট আইনসভা রয়েছে তুরস্ক, বুলগেরিয়া, রোমানিয়া, পানামা প্রভৃতি রাষ্ট্রে।

22. এককক্ষবিশিষ্ট আইনসভার বিপক্ষে একটি যুক্তি দাও।

Ans. আইনসভা এককক্ষবিশিষ্ট হলে অনেক ক্ষেত্রে সময়ের অভাবে দ্রুত আইন প্রণয়ন করতে হয়, ফলে আইনের ভুলত্রুটি থেকে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

23. দ্বিকক্ষবিশিষ্ট আইনসভা রয়েছে কোন কোন দেশে?

Ans. দ্বিকক্ষবিশিষ্ট আইনসভা রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, ভারত প্রভৃতি রাষ্ট্রে।

24. দ্বিকক্ষবিশিষ্ট আইনসভার কয়েকজন সমর্থকের নাম লেখো।

Ans. জন স্টুয়ার্ট মিল, লর্ড ব্রাইস, লর্ড অ্যাকটন, গেটেল, দ্যুগুই, জেফারসন, লেকি প্রমুখ রাষ্ট্রবিজ্ঞানী দ্বিকক্ষবিশিষ্ট আইনসভার সমর্থক ছিলেন।

25. দ্বিকক্ষবিশিষ্ট আইনসভার বিরোধী কারা?

Ans. ল্যাস্কি, বেন্থাম, আবে সিঁয়ে, ফ্রাঙ্কলিন প্রমুখ রাষ্ট্রবিজ্ঞানী দ্বিকক্ষবিশিষ্ট আইনসভার বিরোধী ছিলেন।

26. দ্বিকক্ষবিশিষ্ট আইনসভার বিপক্ষে একটি যুক্তি দাও।

Ans. দ্বিকক্ষবিশিষ্ট আইনসভার বিপক্ষে একটি যুক্তি হলো দ্বিকক্ষবিশিষ্ট আইনসভার গঠনকাঠামো অগণতান্ত্রিক।
রচনাধর্মী প্রশ্নোত্তর [ মান (৮) ]

1. শাসন বিভাগের মূল কাজগুলি আলোচনা করো।

অথবা, আধুনিক রাষ্ট্রে শাসন বিভাগের কার্যাবলি সংক্ষেপে আলোচনা করো।

2.ক্ষমতাস্বতন্ত্রীকরণ নীতির পক্ষে ও বিপক্ষে যুক্তিগুলি আলোচনা করো।

3. আধুনিক রাষ্ট্রে আইনসভার বা আইন বিভাগের কার্যাবলি আলোচনা করো।

4. আধুনিক রাষ্ট্রে বিচার বিভাগের কার্যাবলি আলোচনা করো।

5. বিচারবিভাগীয় সক্রিয়তা বলতে কী বোঝো? বিচারবিভাগীয় স্বাধীনতা কীভাবে সংরক্ষিত হয় তা ব্যাখ্যা করো।

6.দ্বিকক্ষবিশিষ্ট আইনসভার পক্ষে ও বিপক্ষে যুক্তি দাও।
আরোও দেখুন:-

Higher Secondary Political Science Suggestion | উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান সাজেশন

উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান – আন্তর্জাতিক সম্পর্ক (প্রথম অধ্যায়) Click here
উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান – দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী পর্বের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক (দ্বিতীয় অধ্যায়) Click here
উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান – বিদেশনীতি (তৃতীয় অধ্যায়) Click here

         ” উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান – সরকারের বিভিন্ন বিভাগ (ষষ্ঠ অধ্যায়) “ একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ টপিক উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা (Higher Secondary / HS Exam / WBCHSE – West Bengal Council of Higher Secondary Education / Class XII 12 / Uccha Madhyamik Pariksha) এবং বিভিন্ন চাকরির (WBCS, WBSSC, RAIL, PSC, DEFENCE) পরীক্ষায় এখান থেকে প্রশ্ন অবশ্যম্ভাবী । সে কথা মাথায় রেখে BhugolShiksha.com এর পক্ষ থেকে উচ্চমাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান পরীক্ষা (দ্বাদশ শ্রেণী) প্রস্তুতিমূলক প্রশ্নোত্তর এবং সাজেশন (Higher Secondary Political Science Suggestion / WBCHSE – West Bengal Council of Higher Secondary Education / HS Class XII 12 / Uccha Madhyamik Pariksha / HS Exam Guide / MCQ , Short , Descriptive  Type Question and Answer / FREE PDF Download) উপস্থাপনের প্রচেষ্টা করা হলাে। ছাত্রছাত্রী, পরীক্ষার্থীদের উপকারেলাগলে, আমাদের প্রয়াস  উচ্চ মাধ্যমিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান পরীক্ষা (দ্বাদশ শ্রেণী) প্রস্তুতিমূলক প্রশ্নোত্তর এবং সাজেশন (Higher Secondary Political Science Suggestion / WBCHSE – West Bengal Council of Higher Secondary Education / HS Class XII 12 / Uccha Madhyamik Pariksha / HS Exam Guide / MCQ , Short , Descriptive  Type Question and Answer / FREE PDF Download) সফল হবে।
    স্কুল, কলেজ ও বিভিন্ন ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনার ডিজিটাল মাধ্যম BhugolShiksha.com । এর প্রধান উদ্দেশ্য পঞ্চম শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর সমস্ত বিষয় এবং গ্রাজুয়েশনের শুধুমাত্র ভূগোল বিষয়কে  সহজ বাংলা ভাষায় আলোচনার মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীদের কাছে সহজ করে তোলা। এছাড়াও সাধারণ-জ্ঞান, পরীক্ষা প্রস্তুতি, ভ্রমণ গাইড, আশ্চর্যজনক তথ্য, সফল ব্যাক্তিদের জীবনী, বিখ্যাত ব্যাক্তিদের উক্তি,  প্রাণী জ্ঞান, কম্পিউটার, বিজ্ঞান ও বিবিধ প্রবন্ধের মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীদের মননকে বিকশিত করে তোলা।
        আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ সময় করে আমাদের পােস্টটি পড়ার জন্য। এই ভাবেই ভূগোল শিক্ষা – BhugolShiksha.com ওয়েবসাইটের পাশে থাকুন। ভূগোল বিষয়ে যেকোনো প্ৰশ্ন উত্তর জানতে এই ওয়েবসাইট টি ফলাে করুন এবং নিজেকে  তথ্য সমৃদ্ধ করে তুলুন , ধন্যবাদ।
নিচের বাটনে ক্লিক করে শেয়ার করেন বন্ধুদের মাঝে