টমাস আলভা এডিসন এর জীবনী - Thomas Edison Biography in Bengali
টমাস আলভা এডিসন এর জীবনী - Thomas Edison Biography in Bengali

টমাস আলভা এডিসন এর জীবনী

Thomas Edison Biography in Bengali

টমাস আলভা এডিসন এর জীবনী – Thomas Edison Biography in Bengali : আবিষ্কারের মেশিন টমাস আলভা এডিসন টমাস আলভা এডিসনকে অনেকে বলেন , ‘ আবিষ্কারের মেশিন ‘ । সহস্রাধিক ছোট বড় আবিষ্কারের পেটেন্ট নিয়েছিলেন তিনি নিজের নামে ৷ একটি মানুষের মধ্যে এত উদ্ভাবনী শক্তি আর কখনও দেখা গেছে কিনা সন্দেহ । তাঁর বয়স যখন মাত্র সাত বছর তখনই তিনি একটি পরীক্ষাগার তৈরি করে ফেলেছিলেন টুকিটাকি জিনিস দিয়ে বিভিন্ন গাছের পাতা জলেতে মিশিয়ে সেই দ্রবণগুলোকে পরস্পরের সঙ্গে মিলিয়ে দেখতেন রং বদলায় কিনা । দরিদ্র বাবা – মায়ের সন্তান টমাস আলভা এডিসন কিশোর বয়স থেকেই ঘোড়ার গাড়ি চালাতেন আর বাজারে সবজি বিক্রি করতেন । কিন্তু যা আয় হতো তার বেশিরভাগই খরচ হতো রাসায়নিক দ্রব্য কেনার জন্য । সতেরো বছর বয়সে এডিসন সামান্য একটা চাকরি নিলেন ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন টেলিগ্রাফ কোম্পানিতে । তখন টেলিগ্রাফ অফিস থেকে একই সময়ে একটির বেশি সঙ্কেত পাঠানো যেত না । এডিসনের মনে হলো বিদ্যুতের সাহায্যে একই সঙ্গে অনেকগুলো সঙ্কেত পাঠানো যেতে পারে । তখন তড়িৎ বিজ্ঞানের জন্ম হয়েছে সবেমাত্র । মাত্র ৩০ বছর আগে মাইকেল ফ্যারাডে বিদ্যুৎ উৎপাদন পদ্ধতি আবিষ্কার করতে পেরেছেন । কিন্তু ফ্যারাডের লেখা বইটি ইতিমধ্যে এডিসনের পড়া হয়ে গেছে । তাই কাউকে কিছু না বলে এডিসন নিজের বাড়িতে টেলিগ্রাফের সঙ্গে বিদ্যুতের ব্যবহার নিয়ে পরীক্ষা করতে লাগলেন । ব্যাটারী তখন কিনতে পাওয়া যেত না বলে এডিসন নিজেই একটা ব্যাটারী তৈরি করে নিলেন ।

  আবিষ্কারের মেশিন টমাস আলভা এডিসন এর একটি সংক্ষিপ্ত জীবনী । টমাস আলভা এডিসন এর জীবনী – Thomas Edison Biography in Bengali বা টমাস আলভা এডিসন এর আত্মজীবনী বা (Thomas Edison Jivani Bangla. A short biography of Thomas Edison. Thomas Edison Birth, Place, Life Story, Life History, Biography in Bengali) টমাস আলভা এডিসন এর জীবন রচনা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

টমাস আলভা এডিসন কে ছিলেন ? Who is Thomas Edison ?

টমাস আলভা এডিসন (Thomas Edison) ছিলেন মার্কিন উদ্ভাবক এবং ব্যবসায়ী। তিনি গ্রামোফোন, ভিডিও ক্যামেরা এবং দীর্ঘস্থায়ী বৈদ্যুতিক বাতি (বাল্ব) সহ বহু যন্ত্র তৈরি করেছিলেন যা বিংশ শতাব্দীর জীবনযাত্রায় ব্যাপক প্রভাব ফেলেছিল।

টমাস আলভা এডিসন এর জীবনী – Thomas Edison Biography in Bengali :

নাম (Name) টমাস আলভা এডিসন (Thomas Edison)
জন্ম (Birthday) ১১ ফেব্রুয়ারি ১৮৪৭ (11th February 1847)
জন্মস্থান (Birthplace) মিলান, ওহাইও
অভিভাবক (Parents)/পিতামাতা স্যামুয়েল ওগডেন এডিসন জুনিয়র (পিতা)

ন্যান্সি মেথিউস এলিয়ট (মাতা)

দাম্পত্য সঙ্গী (Spouse) মেরি স্টিলওয়েল 

মিনা এডিসন 

পেশা (Occupation) বৈজ্ঞানিক, ব্যবসায়ী
সন্তান (Childrens) মেরিওন এসটেলা এডিসন (১৮৭৩-১৯৬৫)

টমাস আলভা এডিসন জুনিয়র (১৮৭৬-১৯৩৫)

উইলিয়াম লেস্লি এডিসন (১৮৭৮-১৯৩৭)

মেডিলিন এডিসন(১৮৮৮-১৯৭৯)

চার্লস এডিসন (১৮৯০-১৯৬৯)

থিওডর মিলার এডিসন (১৮৯৮-১৯৯২)

মৃত্যু (Death) ১৮ অক্টোবর ১৯৩১ (18th October 1931)
মৃত্যুস্থান (Deathplace) ওয়েস্ট অরেঞ্জ, নিউ জার্সি

টমাস আলভা এডিসন এর জন্ম ও পিতামাতা – Thomas Edison Birthday and Parents :

 টমাস আলভা এডিসন (Thomas Edison) ১৮৪৭ সালে মিলান ওহাইওতে জন্মগ্রহণ করেন। তবে টমাস আলভা এডিসন (Thomas Edison) পোর্ট হুরন, মিশিগানে বেড়ে উঠেন কারণ তার পরিবার ১৮৫৪ সালে এই স্থানে স্থানান্তরিত হয়েছিলেন। তিনি ছিলেন স্যামুয়েল ওগডেন এডিসন জুনিয়রের  সপ্তম এবং শেষ সন্তান। এবং ন্যান্সি ম্যাথিউজ এলিয়ট তার মা।

টমাস আলভা এডিসন এর টেলিগ্রাফ যন্ত্র আবিষ্কার – Thomas Edison Invention Telegraph :

 কয়েক মাসের মধ্যেই টমাস আলভা এডিসন (Thomas Edison) একটা টেলিগ্রাফ যন্ত্র তৈরি করে ফেললেন । যার সাহায্যে এক সঙ্গে অনেক সঙ্কেত পাঠানো যেতে পারে । কিন্তু তৎক্ষণাৎ টমাস আলভা এডিসন (Thomas Edison) তার আবিষ্কারটি প্রকাশ করলেন না । কারণ , দারিদ্রের সঙ্গে লড়াই করে তিনি ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলেন । তাই টমাস আলভা এডিসন (Thomas Edison) চেয়েছিলেন এই আবিষ্কারটি বিক্রি করে তিনি বড়ো অঙ্কের অর্থ পাবেন ৷ তখন আমেরিকার সবচেয়ে বড় টেলিগ্রাফ কোম্পানি ছিলো ‘ গোল্ড ইনডিকেটর টেলিগ্রাফ ‘ কোম্পানি । সেখানে গিয়ে প্রস্তাবটি রাখতে না রাখতেই পেলেন অপ্রত্যাশিত প্রতিদান । কোম্পানি এডিসনকে দিলো চল্লিশ হাজার ডলার । ১৮৭০ সালে এই টাকার মূল্য যে কতো ছিল সেটা বুঝিয়ে বলা যাবে না । এই অর্থ নিয়ে টমাস আলভা এডিসন (Thomas Edison) নিউইয়র্ক থেকে ৪০ মাইল দূরে মেনলো পার্ক নামক জায়গায় বিশাল এক কারখানা খুলে ফেললেন । সেই কারখানার শ্রমিক ছিল একশ’রও বেশি । তৈরি হতো টেলিগ্রাম যন্ত্রের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ ৷ 

টমাস আলভা এডিসন এর ফনোগ্রাফ আবিষ্কার – Thomas Edison Invention Phonograph :

 এভাবে টমাস আলভা এডিসন (Thomas Edison) বিরাট শিল্পপতি হয়ে উঠতে পারতেন । কিন্তু আবিষ্কারের নেশা তাঁর পিছু ছাড়েনি । কয়েক বছর বাদে টমাস আলভা এডিসন একটা জনসমাবেশ ডেকে ফেললেন । স্টেজের ওপর দাঁড় করানো ছিল একটা হাতাওয়ালা টিনের সিলিন্ডার । তার ওপর একটা সরু পিন এবং তার পিনের সঙ্গে আটকানো একটা ধাতব চোঙ । হঠাৎ করে তিনি হাতলটাকে ঘোরাতে শুরু করলেন আর গান ধরলেন , ‘ মেরি হ্যাড এ লিটল ল্যাম্ব ‘ । গানটি শেষ করেই দুটি তার নতুন করে যোগ করলেন একটা ব্যাটারীর সঙ্গে । তারপর আবার ঘোরাতে শুরু করলেন সেই হাতলটা । চোঙের ভিতর থেকে ভেসে এলো সেই কন্ঠ , সেই সুর । দারুণ হাততালি পড়ল দর্শকদের কাছ থেকে । এমন ম্যাজিক কেউ আগে কখনও দেখেনি । কিন্তু টমাস আলভা এডিসন তাঁদের বার বার বলতে লাগলেন , এটা ম্যাজিক নয় , এটা বিজ্ঞান । প্রথমে তো কেউ বিশ্বাস করলেন না । যন্ত্রটা আধুনিক গ্রামোফোনের আদিরূপ , এডিসন নাম দিয়েছিলেন ফোনোগ্রাফ । 

 কিন্তু টেলিগ্রাফের নতুন পদ্ধতির পরেই ফোনোগ্রাফ নয় । ইতিমধ্যে ১২০ টি নতুন আবিষ্কারের পেটেন্ট করা হয়ে গেছে । যদিও এগুলো যুগান্তকারী আবিষ্কারের মধ্যে পড়ে না । তাহলেও এগুলোর মধ্যে তার সৃজনশীল প্রতিভার স্বাক্ষর রয়েই গেছে । ১৮৪৭ সালে ১২ ই ফেব্রুয়ারি তাঁর জন্ম ওহিও প্রদেশের মেনলোতে । আর ফোনোগ্রাফ আবিষ্কার হয়েছিল ১৮৭৭ সালে । অর্থাৎ তখন তাঁর বয়স মাত্র তিরিশ । এত তাড়াতাড়ি একসঙ্গে বিত্তশালী ও খ্যাতিমান বিজ্ঞানী হয়ে ওঠা আর কারু পক্ষেই সম্ভব হয়নি । 

[আরও দেখুন, জগদীশ চন্দ্র বসুর জীবনী – Jagdish Chandra Bose Biography in Bengali]

টমাস আলভা এডিসন এর বিদ্যুৎ আবিষ্কার – Thomas Edison Invention Electricity :

 পরবর্তীকালে ১৮৭৮ সালে খেয়াল চাপল মানুষকে বৈদ্যুতিক আলো দেখাতে হবে । বাজ পড়ার সময় চোখ ঝলসে দেয় যে সেতো বিদ্যুতেরই কাজ । এর কণামাত্র কি পৃথিবীতে কৃত্রিমভাবে তৈরি করা যাবে না ? রাস্তায় তখন টিমটিম করতো গ্যাসের আলো । বাড়ির ভিতর মোম তেলের আলো । 

 টমাস আলভা এডিসনের মাথায় এলো এমন কোনো জিনিস খুঁজে বের করতে হবে যার ভিতর দিয়ে বিদ্যুৎ প্রবাহ গেলে গরম ও উজ্জ্বল হয়ে ওঠে । হাতের কাছে যা পান তা দিয়েই তিনি ব্যাটারীর দু’প্রান্ত যোগ করে দেখতে লাগলেন । প্রথমে তামার তারে কাগজ জড়িয়ে দেখলেন কাগজটা গরম হয়ে উঠছে আর একটু পরে আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে যাচ্ছে । তারপর নরম ধাতু নিয়ে পরীক্ষা করলেন । ধাতুগুলো উজ্জ্বল হয়ে উঠলো । কিন্তু একটু পরেই গলে গেল । তার মনে হলো , দহনে সাহায্য করছে না তো বাতাসের অক্সিজেন ? তাই এবার একটা কাঁচের বাতাস যথাসম্ভব বের করে নিলেন । হ্যা , তার ধারণাই ঠিক । ধাতব ফিলামেন্টটি জ্বলল প্রায় দশ মিনিট ধরে । একটা সমস্যার সমাধান হয়ে গেলো বলে প্রচণ্ড উৎসাহিত হয়ে উঠলেন টমাস আলভা এডিসন ।

 দিন – রাত নানারকম জিনিসের ফিলামেন্ট তৈরি করে পরীক্ষা করতে লাগলেন এডিসন । তাঁর জীবনীকার নরম্যান ওয়াইমার বলেছিলেন এডিসন প্রায় ন’হাজার রকম জিনিসের ফিলামেন্ট তৈরি করেছিলেন । কিন্তু এগুলোর কোনটিই ঠিকমতো কাজে আসেনি । অন্য কেউ হলে এ গবেষণা থেকে বিরত থাকতেন ।

 একদিন রাতে টেবিলে বসে চিন্তা করলেন এডিসন । পাশে রাখা তেলের ল্যাম্পের তেল বোধ হয় ফুরিয়ে আসছিলো । তাই সলতেটা বাড়িয়ে দিতেই ভুষো কালি বেরোতে লাগলো । এডিসনের হঠাৎ মনে হলো আরে , কার্বন তো কোন জিনিসের তেতে ওঠার ব্যাপারে বাধা দিতে পারে । ছুটে গিয়ে নিয়ে এলেন একটি কাপড় সেলাই করার সুতা । সেটিকে ভিজিয়ে কার্বনে মাঞ্জা দিয়ে উনুনে দিয়ে শুকিয়ে নিলেন । তারপর কাঁচের জারের ভিতর রেখে বায়ুশূন্য অবস্থায় ব্যাটারীর সঙ্গে যোগ করে দিলেন । সঙ্গে সঙ্গে ঘরময় ছড়িয়ে পড়ল আলো ।

বাতিটি জ্বলছে কিনা বোঝাই যাচ্ছিলো না । তাছাড়া আলোটি জ্বলছে । তো জ্বলছেই , আর নেভেই না । পনেরো মিনিট , আধঘণ্টা , একঘণ্টা , দু’ঘণ্টা কেটে গেল আলোটা তবু নিভল না । তার সামনে দাঁড়িয়ে উত্তেজনায় দরদর করে ঘামছিলেন টমাস আলভা এডিসন । আলোটা নিভল ৪৫ ঘণ্টা অর্থাৎ দুদিন পর । এতটা সময় এডিসন আলোটার দিকে তাকিয়ে মন্ত্রমুগ্ধের মতো বসেছিলেন । দু’রাত ঘুমাননি । শুধু খাবার দিয়ে যেতে বলেছিলেন আলোটির পাশে । কিন্তু আলোটি নিভে যাওয়ার পর মনে হলো এডিসন খুব একটা সন্তুষ্ট নন । তিনি চান আরও বেশিক্ষণ জ্বলুক বৈদ্যুতিক আলো । তাই আবার শুরু হলো তাঁর গবেষণা। 

[আরও দেখুন, প্রফুল্ল চন্দ্র রায়ের জীবনী – Prafulla Chandra Ray Biography in Bengali]

 অবশেষে দেখলেন কার্বন ভেজানো বাঁশের আঁশ দিয়ে ফিলামেন্ট তৈরি করলে আলোটি কয়েক মাস ধরে জ্বলবে । তাও আবার যে সে বাঁশ নয় । দক্ষিণ আফ্রিকার আমাজান নদীর অববাহিকায় যে বাঁশ জন্মে তার কার্যকারিতাই সবচেয়ে বেশি ।

 এরপর এলো সেই ঐতিহাসিক রাত । ১৮৮০ সালের ১ জানুয়ারি । মেলো পার্কের গাছে গাছে আর ল্যাম্পপোষ্টে ঝোলানো হলো । টমাস আলভা এডিসনের তৈরি শতাধিক বাল্ব । দিনের আলোর মতো স্বচ্ছ হয়ে উঠল রাস্তাঘাট আর ঘরবাড়ি । উত্তেজিত জনতার ভিড়ে তিল ধারণের আর জায়গা রইলো না মেন্‌লো পার্কে । টমাস আলভা এডিসন সবাইকে বলতে লাগলেন ‘ এ আর কি দেখছেন , সারা শহর আমি আলোর বন্যায় ভাসিয়ে দিতে পারি । ‘

 কথাটা যে নিছক আত্মম্ভরিতা নয় , টমাস আলভা এডিসন প্রমাণ করে দিলেন আড়াই বছর পরেই । ১৮৮২ সালের ৪ ঠা সেপ্টেম্বর রাতে এলো আর এক স্বরণীয় মুহূর্ত । এর আগে সরকারের অনুরোধে প্রায় দুই বছর ধরে তিনি নিউইয়র্কের মাটির নিচে বৈদ্যুতিক লাইন পাতার কাজ করালেন । প্রায় হাজার খানেক বাড়িতে ইলেক্ট্রিক ওয়ারিং হলো । তাছাড়া একটি বড় শহরে তো আর ব্যাটারী দিয়ে আলো জ্বালানো যায় না । তাই একটা ছোটখাটো পাওয়ার হাউজও তৈরি করেছিলেন ।

টমাস আলভা এডিসন এর মৃত্যু – Thomas Edison Death :

 এডিসনের প্রতিভা ছিল বিস্ময়কর । যে বিষয়ে হস্তক্ষেপ করেছেন তাতেই লাভ করেছেন সাফল্য । বিশ্ব বিজ্ঞাপনের ইতিহাসের বিস্ময় প্রতিভা মহান বিজ্ঞানী এডিসন ১৯৩১ খ্রিঃ ১৮ ই অক্টোবর ওয়েস্ট অরেঞ্জে চুরাশি বছর বয়সে পরলোক গমন করেন ।

টমাস আলভা এডিসন এর জীবনী – Thomas Edison Biography in Bengali FAQ :

  1. টমাস আলভা এডিসন কে ছিলেন ?

Ans: টমাস আলভা এডিসন ছিলেন মার্কিন উদ্ভাবক এবং ব্যবসায়ী ।

  1. টমাস আলভা এডিসন এর জন্ম কবে হয় ?

Ans: টমাস আলভা এডিসন এর জন্ম ১১ ফেব্রুয়ারি ১৮৪৭ সালে হয় ।

  1. টমাস আলভা এডিসন এর পিতার নাম কী ?

Ans: টমাস আলভা এডিসন এর পিতার নাম স্যামুয়েল ওগডেন এডিসন জুনিয়র ।

  1. টমাস আলভা এডিসন এর মাতার নাম কী ?

Ans: টমাস আলভা এডিসন এর মাতার নাম ন্যান্সি মেথিউস এলিয়ট ।

  1. টমাস আলভা এডিসন কী আবিষ্কার করেন ?

Ans: টমাস আলভা এডিসন টেলিগ্রাফ যন্ত্র আবিষ্কার করেন ।

  1. টমাস আলভা এডিসন কবে ফোনোগ্রাফ আবিষ্কার করেন ?

Ans: টমাস আলভা এডিসন ১৮৭৭ সালে ফোনোগ্রাফ আবিষ্কার করেন ।

  1. টমাস আলভা এডিসন কবে জন্মগ্রহণ করেন ?

Ans: টমাস আলভা এডিসন জন্মগ্রহণ করেন ১১ ফেব্রুয়ারি ১৮৪৭ সালে হয় ।

  1. টমাস আলভা এডিসন কবে মারা যান ?

Ans: টমাস আলভা এডিসন মারা যান ১৮ অক্টোবর ১৯৩৩ সালে ।

[আরও দেখুন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর জীবনী – Rabindranath Tagore Biography in Bengali

আরও দেখুন, ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর জীবনী – Ishwar Chandra Vidyasagar Biography in Bengali

আরও দেখুন, সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের জীবনী – Sourav Ganguly Biography in Bengali

আরও দেখুন, মেরি কম এর জীবনী – Mary Kom Biography in Bengali

আরও দেখুন, শচীন টেন্ডুলকারের জীবনী – Sachin Tendulkar Biography in Bengali]

টমাস আলভা এডিসন এর জীবনী – Thomas Edison Biography in Bengali

   অসংখ্য ধন্যবাদ সময় করে আমাদের এই ” টমাস আলভা এডিসন এর জীবনী – Thomas Edison Biography in Bengali  ” পােস্টটি পড়ার জন্য। টমাস আলভা এডিসন এর জীবনী – Thomas Edison Biography in Bengali পড়ে কেমন লাগলো কমেন্টে জানাও। আশা করি এই টমাস আলভা এডিসন এর জীবনী – Thomas Edison Biography in Bengali পোস্টটি থেকে উপকৃত হবে। এই ভাবেই BhugolShiksha.com ওয়েবসাইটের পাশে থাকো যেকোনো প্ৰশ্ন উত্তর জানতে এই ওয়েবসাইট টি ফলাে করো এবং নিজেকে  তথ্য সমৃদ্ধ করে তোলো , ধন্যবাদ।

Subscribe Our YouTube Channel

Join Our Telegram Channel

E-mail Subscription