শক্তি প্রবাহ (পরিবেশ ভূগোল - ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Energy Flow - Environmental geography Geography
শক্তি প্রবাহ (পরিবেশ ভূগোল - ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Energy Flow - Environmental geography Geography

পরিবেশ ভূগোল – ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর

শক্তি প্রবাহ | Energy Flow – Environmental geography (Geography) Question and Answer in Bengali

শক্তি প্রবাহ (পরিবেশ ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Energy Flow (Environmental geography – Geography) : পরিবেশ ভূগোল – Environmental geography (ভূগোল – Geography) শক্তি প্রবাহ – Energy Flow প্রশ্ন ও উত্তর  নিচে দেওয়া হল। এই (শক্তি প্রবাহ – Energy Flow – পরিবেশ ভূগোল Environmental geography – ভূগোল Geography) প্রশ্নোত্তর গুলি স্কুল, কলেজ ও বিভিন্ন প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষার জন্য খুব ইম্পর্টেন্ট। তোমরা যারা শক্তি প্রবাহ – Energy Flow – পরিবেশ ভূগোল – Environmental geography (ভূগোল – Geography) অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর (Short Question and Answer) খুঁজে চলেছো, তারা নিচে দেওয়া প্রশ্নউত্তর ভালো করে পড়তে পারো।

শক্তি প্রবাহ (Energy Flow) পরিবেশ ভূগোল – ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর

1. শক্তি প্রবাহের বৈশিষ্ট্য ( CHARACTERISTICS ENERGY FLOW ) 

Ans: শক্তি প্রবাহের প্রধান প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলি নিম্নরূপ A ) শক্তির মূল উৎস সূর্য : সূর্য শক্তি শক্তিপ্রবাহের প্রধান উৎস । উদ্ভিদ এই শক্তিকে সালোকসংশ্লেষ দ্বারা খাদ্য সঞ্চয় করে । B ) শক্তি প্রবাহ একমুখী : ইহা একমুখী । সৌরশক্তি উৎপাদক থেকে খাদ্যশৃঙ্খলের দ্বারা ক্রমান্বয়ে প্রগৌণ খাদক স্তরে পৌঁছায় । পরিবেশ ভূগোল • ৩৫৫ C ) আবর্তনহীন শক্তি : পরিবেশের O2 , CO , প্রভৃতি শক্তির মতো বাস্তুতন্ত্রে সেরূপ শক্তির আবর্তন ঘটে না । D ) ক্রমহ্রাসমান শক্তি : বাস্তুতন্ত্রে শক্তির ক্রমান্বয়ে হ্রাস বা অপচয় হয় । E ) তাপগতিবিদ্যার নিয়ম : এতে তাপগতিবিদ্যার নিয়ম প্রযোজ্য হয় । যেমন— ক ) শক্তির সৃষ্টি বা বিনাশ নেই ; কেবল মাত্র রূপান্তর ঘটে । খ ) শক্তি রূপান্তরের অপচয় হয়ে শক্তির হ্রাস ঘটে ।

2. “ শক্তি প্রবাহ কি একমুখী ” — ব্যাখ্যা । 

Ans; বাস্তুরীতিতে শক্তিপ্রবাহ একমুখী , অর্থাৎ সৌরশক্তি প্রথমে উৎপাদকের দেহে সঞ্চারিত হয় , পরে তা বিভিন্ন খাদকের মধ্যে স্থানান্তরিত হয় । কিন্তু ঐ শক্তি উৎপাদকরা ব্যবহারকারীদের ( খাদকের ) কাছ থেকে পুনরুদ্ধার করতে পারে না বা ঐ শক্তি পুনরায় সূর্যে ফিরে যায় না ।

3. শক্তি প্রবাহ কি বহুমুখী হয় ? 

Ans: কোন বাস্তুতন্ত্রে অনেকগুলি খাদ্যশৃঙ্খল এক বা একাধিক পর্যায়ে সংযুক্ত হয়ে জটিল খাদ্য জালক গঠন করে । এই খাদ্য জালের শক্তিপ্রবাহ একমুখী হওয়ার বদলে বহুমুখী হয় । y আকৃতির বা সার্বজনীন শক্তিপ্রবাহের মডেল দ্বারা এটি জানা যায় ।

4. শক্তির অর্জন ( ENERGY AQUISITION ) । 

Ans; বাস্তুতন্ত্রে শক্তির মূল উৎস হল সূর্যের আলো । সূর্য থেকে আসা আলোকশক্তি উদ্ভিদের ক্লোরোফিল দ্বারা শোষিত হয় । এই ক্লোরোফিল সালোকসংশ্লেষের সময় এই শোষিত আলোকশক্তিকে রাসায়নিক শক্তিতে রূপান্তরিত করে । উৎপন্ন খাদ্যের মধ্যে এই শক্তি স্থৈতিক শক্তি হিসাবে আবদ্ধ থাকে । একেই শক্তির অর্জন বলে । সৌরশক্তির মাত্র 0.1 % সালোকসংশ্লেষ প্রক্রিয়ায় আবদ্ধ হয় ।

5. শক্তির ব্যবহার । 

Ans: উৎপাদকের দেহে সঞ্চিত আসল উৎপাদন শক্তি শাকাষী প্রাণী বা প্রথম শ্রেণীর খাদকের গ্রহণ করে । অনুরূপভাবে , প্রথম শ্রেণীর খাদকেরা আসল শক্তিকে দ্বিতীয় শ্রেণীর খাদকেরা ( গৌণ খাদক ) ও দ্বিতীয় শ্রেণীর খাদকের আসল শক্তি আবার তৃতীয় শ্রেণীর খাদকের ( প্রগৌণ খাদক ) মধ্যে সঞ্চারিত হয় । এইভাবে খাদকের মাধ্যমেই প্রাণীরা শক্তি অর্জন করে । খাদ্যশৃঙ্খলের বিভিন্ন ধাপে ধাপে আসল শক্তির পরিমাণ কমে এবং পরবর্তী স্তরে অর্জিত শক্তির পরিমাণ কমে যায় ।

6. বাস্তুসংস্থানিক পিরামিড ( ECOLOGY OF PYRAMID ) । 

Ans; বাস্তুতন্ত্রে এক ট্রপিক স্তর থেকে অন্য ট্রপিক স্তরে শক্তি স্থানান্তরের সময় কিছু শক্তি তাপশক্তি রূপে নির্গত হয় । তখন নিম্ন থেকে উচ্চ ট্রপিক স্তরে শক্তির পরিমাণ হ্রাস পায় । তাই উচ্চ ট্রপিক স্তরে কম সংখ্যক জীবকে খাদ্য ও শক্তির যোগান দিতে পারে । সেইজন্য উচ্চ স্তরে জীবের সংখ্যা নিম্নস্তর অপেক্ষা কম হয় । তখন ট্রপিক লেভেলগুলো পরস্পর সাজালে শঙ্কু – আকৃতির হয় । একেই বাস্তুসংস্থানিক পিরামিড বা শঙ্কু বলে ।

7. সংখ্যার পিরামিড ( PYRAMID OF NUMBER ) ।
Ans: বাস্তুসংস্থানিক পিরামিডের শীর্ষ হতে ভূমি পর্যন্ত ক্রমপর্যায় অনুযায়ী জীবের সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পেতে থাকে । যেমন — সর্বোচ্চ শ্রেণীর খাদকের সংখ্যার তুলনায় তৃতীয় শ্রেণীর খাদকের সংখ্যা বেশি , আবার তৃতীয় এর তুলনায় দ্বিতীয়তে বেশি এবং দ্বিতীয় ও তৃতীয় – এর তুলনায় প্রথম শ্রেণীতে জীবের সংখ্যা বেশি , আবার উৎপাদকের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি । এই পিরামিড জীবের জীবভর ও শক্তির স্থানান্তরকে উল্লেখ করে না । একটি হ্রদের ইকোসিস্টেম – এর প্রকৃষ্ট উদাহরণ ।

8. শক্তির পিরামিড ( PYRAMID OF ENERGY ) । 

Ans: কোন বাস্তুরীতি বা বাস্তুতন্ত্রে খাদ্যস্তর অনুসারে জীবের বিভিন্ন অর্জিত শক্তির পরিমাণ ক্রমপর্যায়ে সাজালে যে পিরামিড শিখর গঠিত হয় , তাকে বাস্তুতন্ত্রের শক্তি পিরামিড বলে । এ ব্যাপারে রেমন্ড লিন্ডম্যান 1942 খ্রিস্টাব্দে তার বিখ্যাত 10 শতাংশ সূত্র প্রবর্তন করেন । এই সূত্রানুসারে কোন খাদকের মোট শক্তির 10 % কাজে লাগে ও 90 % শক্তি অপচয় হয় ।

9. খাদ্যশৃঙ্খলের বৈশিষ্ট্য ।

Ans: খাদ্যশৃঙ্খলের উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য হল নিম্নরূপ — A ) প্রাথমিক ভিত্তি : উদ্ভিদ বা উৎপাদকই হল খাদ্যশৃঙ্খলের মূল ভিত্তি । B ) ক্রমহ্রাসমান সংখ্যা : উৎপাদক থেকে উচ্চস্তরের দিকে জীবসংখ্যা হ্রাস পায় । C ) খাদ্যত্তর : খাদ্যশৃঙ্খলের খাদ্যস্তর 3-5 এর মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকে । D ) E ) একমুখী : নিচের পুষ্টিস্তর থেকে সর্বোচ্চ পুষ্টিস্তর পর্যন্ত শক্তিপ্রবাহ একমুখী হয় । অধিক জটিলতা : বাস্তুতন্ত্রে জীববৈচিত্র্য বেশি হলে খাদ্যশৃঙ্খলও জটিল হয় ; খাদ্যাজাল তৈরি হয় ।

10. খাদ্যশৃঙ্খলের গুরুত্ব । 

Ans: বাস্তুতন্ত্রে খাদ্যশৃঙ্খলের নানা গুরুত্বপূর্ণ দিক আছে ; যেমন— i ) পুষ্টি সরবরাহ : এতে উৎপাদক স্তর থেকে যাবতীয় খাদকস্তরের শক্তি সঞ্চারিত হয়ে থাকে । ii ) সুগঠিত বাস্তুরীতি : খাদ্যশৃঙ্খল ছোট হলে বাস্তুতন্ত্রও অধিক সুগঠিত হয় । iii ) জীবজগতের অস্তিত্ব : খাদ্যশৃঙ্খল জীবজগতের অস্তিত্বকে বজার রাখতে সাহায্য করে । iv ) সুরক্ষিত বাস্তুতন্ত্র : উদ্ভিদ জগৎ ধ্বংস হলে খাদ্যশৃঙ্খল নষ্ট হয়ে বাস্তুতন্ত্র বিঘ্নিত হবে । v ) খাদ্য – খাদকের সুদৃঢ় সম্পর্ক : খাদ্যশৃঙ্খলে জীববৈচিত্র্য যত অধিক হবে ততই খাদ্য – খাদকের সম্পর্কের ভিত্তি দৃঢ় হবে ।

11. বিয়োজক । 

Ans: বাস্তুতন্ত্রের অন্তর্গত মৃতজীবী আণুবীক্ষণিক যে সকল জীব উৎপাদক ও খাদকের মৃতদেহ বা পরিত্যক্ত দেহাংশ থেকে পুষ্টি সংগ্রহ করে বেঁচে থাকে এবং ঐ সকল জীবের দেহাংশের জটিল যোগকে সরল জৈব যৌগ পরিণত করে ও তা পরিবেশে ফিরে যেতে সাহায্য করে তাদের বিয়োজক বলে । এরা ভূ – জৈব রাসায়নিক চক্র সম্পন্ন হতে সাহায্য করে । উদাহরণ : বিভিন্ন প্রকার ব্যাকটেরিয়া , ছত্রাক , আদ্যপ্রাণী এবং অ্যাকটিনোমাইসিটিস ইত্যাদি ।

12. উৎপাদক ( PRODUCER ) । 

Ans: ইকোসিস্টেমের অন্তর্গত যেসকল জীব সৌরশক্তি শোষণ করে কার্বন , হাইড্রোজেন , অক্সিজেন প্রভৃতি অজৈব উপাদানের সাহায্যে জটিল খাদ্য প্রস্তুতিতে সক্ষম , তাদের উৎপাদক বলে । উদাহরণ : সবুজ উদ্ভিদ , সালোকসংশ্লেষকারী ব্যাকটিরিয়া , কোমোসিন্থেটিক জীবাণু ইত্যাদি ।

13. Green Bench . 

Ans: পরিবেশ দূষণ সম্পর্কিত বিভিন্ন প্রকার মামলার দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য ভারতীয় সুপ্রীম কোর্টের নির্দেশে রাজ্যের হাইকোর্ট যে বিশেষ বিচার সভা গঠন করেছেন তাকে গ্রীন বেশ বলে । সুতরাং গ্রীনবেও হল সবুজায়নের জন্য বিচারালয় । 1986 খ্রিঃ প্রতিষ্ঠিত হবার পর গঙ্গা দূষণ রোধ , তাজমহল , জাতীয় ও সংস্কৃতি সম্পন্ন দূষণরোধে শ্রীনব্যে উল্লেখযোগ্য কাজ করে চলেছে ।

14. ট্রপিক লেভেল ( TROPHIC LEVEL ) ।

Ans: ‘ Trophic Level’- এর ” Trophic ‘ শব্দের অর্থ ‘ পরিপুষ্ট ‘ ও ‘ Level ‘ অর্থ ‘ অবস্থান ‘ । একটি বাস্তুতন্ত্রের বিভিন্ন স্তরের মধ্যে খাদ্য ও শক্তির স্থানান্তর ঘটে । এইভাবে এক জাতীয় অনুন্নত জীব থেকে অন্য জাতীয় অপেক্ষাকৃত উন্নত জীবের মধ্যে শক্তি স্থানান্তরিত হয় যে স্তরের মাধ্যমে তাকে ট্রপিক লেভেল বা পুষ্টিস্তর বলে ।

ট্রপিক স্তরের প্রথম স্তরে সবুজ উদ্ভিদ ও পরবর্তীকালে প্রাথমিক , মাধ্যমিক ও প্রগৌণ স্তর থাকে । যেমন : সবুজ উদ্ভিদ শাকাশী ( হারভিভোরাস ) → মাংসাশী ( কারনিভোরাস ) → সর্বভুক ( ওমনিভোরাস ) → বিয়োজক ।

15. শিকার ও শিকারীর ECOLOGICAL পার্থক্য । 

Ans: শিকার বলতে বোঝায় যে প্রাণীকে ধরা হবে ইহাই হল খাদ্য । শিকারী বলতে বোঝায় যে শিকার বা খাদ্য সংগ্রহ করেছে । অর্থাৎ খাদ্য – খাদক এই দুইয়ের মধ্যে প্রত্যক্ষ সম্পর্ক বজায় থাকে । খাদকের বেঁচে থাকার জন্য খাদ্য প্রয়োজন । সেই অর্থে খাদক হল নির্ভরশীল উপাদান । খাদ্য হল এক্ষেত্রে স্বাধীন ।

15. খাদ্যশৃঙ্খলের শীর্ষে মানুষের অবস্থান । 

Ans: মানুষ খাদ্যশৃঙ্খলের শীর্ষে বাস করে কারণ মানুষ সর্বভুক প্রাণী । মানুষ সরাসরি স্বভোজী অর্থাৎ উৎপাদককে ও অন্য প্রাণীকে নিজেদের পুষ্টি হিসাবে গ্রহণ করে । মানুষ খাদ্যশৃঙ্খলের শীর্ষে অবস্থান করায় মানুষের পুষ্টির জন্য বিভিন্ন দিক থেকে শক্তি এসে থাকে । সেই কারণে প্রাথমিক , দ্বিতীয় , তৃতীয় ইত্যাদি শ্রেণীর খাদকের তুলনায় সংঘাত স্বাভাবিক নিয়মে অনেক কম হয় ।

16. লিডম্যানের 10 শতাংশ সূত্র । 

Ans: 1945 খ্রিস্টাব্দে লিল্ডম্যান বাস্তুতন্ত্রের শক্তিপ্রবাহের ব্যাখ্যা করতে গিয়ে দশ শতাংশ সূত্র ‘ প্রবর্তন করেন । এই নিয়মে বলা হয় , প্রাথমিক খাদকেরা উৎপাদকের উৎপাদিত খাদ্যশক্তির যতটা ভক্ষণ করে তার 10 শতাংশ ব্যবহারকারীর দেহগঠনে কাজে লাগে । ইহা তাপগতি বিদ্যার নিয়মে স্থানান্তরের সময় হ্রাস পায় । ওই 10 শতাংশ শক্তি পরবর্তী খাদ্যস্তরে যায় ।

উদাহরণ : উৎপাদক → প্রাথমিক খাদক → দ্বিতীয় / গৌণ খাদক ( 1000 ক্যালোরী শক্তি ) ( 100 ক্যালোরী শক্তি ) ( 10 ক্যালোরী শক্তি ) → প্রগৌণ খাদক ( 1 ক্যালোরী শক্তি )

17. খাদ্যজাল ( Food Web ) । 

Ans: কোন বাস্তুতন্ত্রে জীব সম্প্রদায়ের মধ্যে অনেকগুলো খাদ্যশৃঙ্খল বিভিন্ন খাদকদের দ্বারা আন্তঃসম্পর্ক থাকে । এই বিভিন্ন প্রজাতির খাদকদের দ্বারা আন্তঃ সম্পর্কযুক্ত অনেকগুলো খাদ্যশৃঙ্খলকে একত্রে খাদ্যজালিকা বলে । কোন প্রাণী কোন খাদ্যশৃঙ্খলের প্রথম শ্রেণীর খাদক অর্থাৎ তৃণভোজী হলেও সেই প্রাণীটিই দ্বিতীয় বা তৃতীয় পর্যায়ভুক্ত হতে পারে । কোন বাস্তুতন্ত্রে সমস্ত সজীব জীব একাধিক খাদ্যশৃঙ্খলে বিন্যস্ত থেকে শক্তি প্রবাহ দ্বারা পারস্পরিক সম্বন্ধ যুক্ত হয়ে সামগ্রিক যে শক্তি জালক সৃষ্টি করে তাকে খাদ্যজাল ( Food Web ) বলে ।

18. লিমেনেটিক অঞ্চল । 

Ans: উন্মুক্ত সমুদ্র জলে যে গভীর অংশ পর্যন্ত সূর্যালোক প্রবেশ করতে পারে , মূলত 200 মিটার জলরাশি পর্যন্ত সূর্যালোক প্রবেশ করে , তাই অগভীর মহীসোপান অঞ্চল ও অগভীর মগ্নচড়া এই লিমেনেটিক অঞ্চলের অন্তর্গত । এই অঞ্চলে প্রচুর প্লাংটন জন্মায় । তাই অঞ্চলটি মৎস্যশিকার ক্ষেত্র হিসাবে প্রসিদ্ধ ।

19.  জীব কেন্দ্রীভবন ( BIO – CONCENTRATION ) ।

Ans: খাদ্যশৃঙ্খলে এক জীবদেহ থেকে অন্য জীবদেহে শক্তি ও পুষ্টি পদার্থ সঞ্চারিত হয় । এই শক্তি সঞ্চারণের সময় নানান রাসায়নিক উপাদান বা রাসায়নিক যৌগ জীবদেহে কেন্দ্রীভূত হয় । একে বলা হয় জীব কেন্দ্রীভবন । যেমন মানুষের থাইরয়েড গ্রন্থিতে এইভাবে আয়োডাইট – এর কেন্দ্রীভবন ঘটে ।

20. জৈবসঞ্জয়ন ( Bioaccumulation ) 

Ans: যেসব বিষাক্ত দূষকের জৈববিশ্লেষণ ঘটে না বা মুত্রের মাধ্যমে রেচিত হয় না তারা জীবদেহে প্রবেশের পর কোন একটি নির্দিষ্ট অঙ্গে সঞ্চিত হয় এবং ঘনত্ব বৃদ্ধি পায় । জীবদেহে দূষকের এই ধরণের সঞ্চয়কে Bioaceumulation বলে । এরা প্রধানত মেদকলায় সজ্জিত হয় ।

21. জীব বিবর্ধন ( BIO – MAGNIFICATION ) । 

Ans: খাদ্যশৃঙ্খলে খাদ্যের মাধ্যমে এক জীবদেহ থেকে অন্য জীবদেহে শক্তি ও পুষ্টি সঞ্চারিত হয় । এরূপ শক্তি সঞ্চরণের সময় বিভিন্ন ক্ষতিকারক রাসায়নিক উপাদান ( বিশেষত DDT ) বা রাসায়নিক যৌগ জীবদেহে প্রবেশ করে কেন্দ্রীভূত হয় । খাদ্যশৃঙ্খলের প্রথম স্তর থেকে পরবর্তী খাদ্যস্তরে এই কেন্দ্রীভবনের পরিমাণ ক্রমশ বাড়তে থাকে । তখন জীবদেহে ঐ সকল রাসায়নিক যৌগের বিষক্রিয়াজনিত বিভিন্ন প্রকার অস্বাভাবিকতা দেখা যায় । জীবদেহে রাসায়নিক পদার্থের এরূপ ক্রমবৃদ্ধির প্রক্রিয়াকে জীব – বিবর্ধন বলে । DDT , BHC ইত্যাদি বিষাক্ত কীটনাশকগুলি দেহে প্রবেশ করলে তার কোন ক্ষয় হয় না । এটি পরিবেশ ভূগোল : ৩৬৩ প্রধানত মেদকলায় সঞ্চিত হয় । ধরা যাক একটি শৈবালের দেহে 0.04 PPM ( Parts Per million ) সঞ্চিত হল । একটি ছোট মাছ তার জীবদ্দশায় 5 টি এই ধরণের শৈবাল খেলে তার দেহে সঞ্চিত DDT এর পরিমাণ হবে 0.04 × 5 = 0.2 PPM । একটি বড় মাছ এই রূপ 5 টি ছোট মাছ খেলে তার দেহে সঞ্জিত DDT হবে 0.2 x 5 = 1 PPM । আর্সেনিক , সিসা , পারদ ইত্যাদি ভারী ধাতুগুলি এইভাবে সঞ্চিত হতে পারে ।

FILE INFO : শক্তি প্রবাহ – Energy Flow | পরিবেশ ভূগোল – ভূগোল প্রশ্নোত্তর (Environmental geography – Geography)

File Details:

PDF Name : শক্তি প্রবাহ – Energy Flow | পরিবেশ ভূগোল – ভূগোল প্রশ্নোত্তর (Environmental geography – Geography)

Price : FREE

Download Link : Click Here To Download

INFO : Geography – Environmental geography – Question and Answer | ভূগোল – পরিবেশ ভূগোল – শক্তি প্রবাহ (Energy Flow) প্রশ্নোত্তর

” ভূগোল (Geography) – পরিবেশ ভূগোল (Environmental geography) – শক্তি প্রবাহ – Energy Flow “ একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ টপিক বিভিন্ন শ্রেনীর পরীক্ষা (Class 5, 6, 7, 8, 9,  Madhyamik, Class 11, Higher Secondary – HS, College & University Exam) এবং বিভিন্ন চাকরির (WBCS, WBSSC) পরীক্ষায় এখান থেকে প্রশ্ন অবশ্যম্ভাবী । সে কথা মাথায় রেখে BhugolShiksha.com এর পক্ষ থেকে ভূগোল পরীক্ষা প্রস্তুতিমূলক প্রশ্নো ও উত্তর উপস্থাপনের প্রচেষ্টা করা হলাে। ছাত্রছাত্রী, পরীক্ষার্থীদের উপকারে লাগলে, আমাদের প্রয়াস  ভূগোল (Geography) পরিবেশ ভূগোল (Environmental geography) – শক্তি প্রবাহ – Energy Flow / শক্তি প্রবাহ সংক্ষিপ্ত ছোট প্রশ্ন ও উত্তর / শক্তি প্রবাহ (পরিবেশ ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Energy Flow (Environmental geography – Geography)  SAQ / Short Question and Answer / শক্তি প্রবাহ (পরিবেশ ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Energy Flow (Environmental geography – Geography) Quiz / শক্তি প্রবাহ (পরিবেশ ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Energy Flow (Environmental geography – Geography) QNA / শক্তি প্রবাহ (পরিবেশ ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Energy Flow (Environmental geography – Geography) Question and Answer FREE PDF Download ) পরীক্ষা প্রস্তুতিমূলক প্রশ্নোত্তর সফল হবে।

শক্তি প্রবাহ (পরিবেশ ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Energy Flow (Environmental geography – Geography) Question and Answer in Bengali

আশা করি এই ” শক্তি প্রবাহ (পরিবেশ ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Energy Flow – Environmental geography Geography ”  পোস্টটি থেকে উপকৃত হয়েছেন। স্কুল, কলেজ ও বিভিন্ন ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনার ডিজিটাল মাধ্যম BhugolShiksha.com । এর প্রধান উদ্দেশ্য পঞ্চম শ্রেণী থেকে নবম শ্রেণী, মাধ্যমিকউচ্চ মাধ্যমিক সমস্ত বিষয় এবং গ্রাজুয়েশনের শুধুমাত্র ভূগোল বিষয়কে  সহজ বাংলা ভাষায় আলোচনার মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীদের কাছে সহজ করে তোলা।

শক্তি প্রবাহ (পরিবেশ ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Energy Flow (Environmental geography – Geography)

আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ সময় করে আমাদের এই ” শক্তি প্রবাহ (পরিবেশ ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Energy Flow (Environmental geography – Geography) ” পােস্টটি পড়ার জন্য। এই ভাবেই আমাদের ভূগোল শিক্ষা – Bhugol Shiksha – BhugolShiksha.com ওয়েবসাইটের পাশে থাকুন। ভূগোল বিষয়ে যেকোনো প্ৰশ্ন উত্তর জানতে এই ওয়েবসাইটটি ফলাে করুন এবং নিজেকে ভৌগোলিক  তথ্য সমৃদ্ধ করে তুলুন , ধন্যবাদ।

Subscribe Our YouTube Channel

Join Our Telegram Channel

E-mail Subscription