মহেশ বাবুর জীবনী - Mahesh Babu Biography in Bengali
মহেশ বাবুর জীবনী - Mahesh Babu Biography in Bengali

মহেশ বাবুর জীবনী

Mahesh Babu Biography in Bengali

মহেশ বাবুর জীবনী – Mahesh Babu Biography in Bengali : প্রিন্স অফ টলিউড, দক্ষিণের অন্যতম হ্যান্ডসাম অভিনেতা হলেন মহেশ বাবু (Mahesh Babu)। তার ব্যক্তিত্ব, সরলতা এবং আনুষ্ঠানিক পোশাকের মোহনীয়তা একটি ভিন্ন স্তরে রয়েছে।

      আজও মহেশ বাবু (Mahesh Babu) এর হাসি সবচেয়ে সুন্দর হাসির মধ্যে গণ্য হয়। নতুন প্রজন্মের এমন একজন সুপারস্টার মহেশ বাবু (Mahesh Babu)। যার নারীদের মধ্যে, তার ফ্যান ফলোয়িং সবচেয়ে বেশি। মহেশ বাবু (Mahesh Babu) তেমনই একজন তারকা। যার অভিনয়ে শুধু মানুষই বিশ্বাসী নয়। বরং তার চেহারাও মানুষ পছন্দ করে।

       আজ তার ক্রেজ পরবর্তী স্তরে। মহেশ বাবু (Mahesh Babu) তেলেগু ভাষার সর্বোচ্চ পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত অভিনেতাদের একজন। মহেশবাবু আজ যে অবস্থানেই থাকুন না কেন। সেখানে যাওয়ার জন্য, তাকে বেশ কয়েকবার নিজেকে প্রমাণ করতে হয়েছিল। কিন্তু এর পরেও তাদের অব্যাহত ব্যর্থতা আসে।

     এর মধ্যে মহেশ বাবু (Mahesh Babu) কয়েকটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করতেন। এরপর ব্যর্থতার মুখে পড়তে হয় মহেশ বাবুকে। তবে মহেশ বাবু (Mahesh Babu) অডিশন থেকেও অনেক সমর্থন পেয়েছেন।  সিনেমা চলে না। কিন্তু তার ফ্যান ফলোয়িং ক্রমাগত বেড়েই চলেছে।

  দক্ষিণ ভারতীয় চলচ্চিত্র অভিনেতা মহেশ বাবু এর একটি সংক্ষিপ্ত জীবনী । মহেশ বাবু এর জীবনী – Mahesh Babu Biography in Bengali বা মহেশ বাবু এর আত্মজীবনী (Mahesh Babu Jivani Bangla. A short biography of Mahesh Babu. Mahesh Babu Birth, Place, Life Story, Life History, Biography in Bengali) মহেশ বাবু এর জীবনী বা জীবন রচনা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

মহেশ বাবু কে ? Who is Mahesh Babu ?

মহেশ বাবু (Mahesh Babu) একজন ভারতীয় অভিনেতা। তেলুগুভাষী চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য মহেশ বাবু (Mahesh Babu) সুবিখ্যাত। পারিবারিক নাম মহেশ ঘাট্টামানেনি। মহেশ বাবু (Mahesh Babu) ১৯৭৪ সালের আগস্ট মাসে জন্ম গ্রহণ করেন। বাবা কৃষ্ণ ঘাট্টামানেনি অভিনেতা হওয়ার সুবাদে চার বছর বয়সেই মহেশ ক্যামেরার সামনে দাঁড়ানোর সুযোগ পায়। ১৯৭৯ সালে নিদ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে তার অভিনয় জীবনের সূত্রপাত হয়। ১৯৯৯ সালে মুক্তি পাওয়া রাজাকুমারুডু চলচ্চিত্রে মহেশ বাবু (Mahesh Babu) প্রথম নায়কের চরিত্রে অভিনয় করেন।

মহেশ বাবুর জীবনী – Mahesh Babu Biography in Bengali :

নাম (Name) মহেশ বাবু ঘাট্টামানেনি (Mahesh Babu)
জন্ম (Birthday) ৯ আগস্ট ১৯৭৪ (9th August 1974)
জন্মস্থান (Birthplace) চেন্নাই, ভারত
পিতামাতা (Parents) কৃষ্ণ ঘাট্টামানেনি (পিতা)

ইন্দিরা দেবী (মাতা)

পেশা অভিনেতা, মডেল
জাতীয়তা ভারতীয়
কর্মজীবন ১৯৭৯ – বর্তমান
উচ্চতা ৬ ফুট ২ ইঞ্চি
দাম্পত্য সঙ্গী নম্রতা শিরোদকর

মহেশ বাবুর প্রারম্ভিক জীবন – Mahesh Babu Early Life : 

মহেশ বাবু (Mahesh Babu) এর জন্ম ১৯৭৫ সালের ৯ আগস্ট চেন্নাইয়ে। মহেশ বাবু (Mahesh Babu) তার পিতামাতার 5 সন্তানের মধ্যে চতুর্থ সন্তান। তার বাবা বিখ্যাত তেলেগু চলচ্চিত্র অভিনেতা কৃষ্ণা ঘটামানেনি।  যিনি তেলেগু ভাষায় 350 টিরও বেশি চলচ্চিত্র করেছেন। 2009 সালে মহেশ বাবু (Mahesh Babu) পদ্মভূষণ পুরস্কারে ভূষিত হন। তার মা ইন্দিরা দেবী।  তার বড় ভাই ঘট্টমানেনী রমেশ বাবু। পদ্মাবতী ও মঞ্জুলা রূপ। যদিও প্রিয়দর্শিনী মহেশ বাবুর থেকে ছোট।

       মহেশ বাবু (Mahesh Babu) এর শৈশবের বেশিরভাগ সময় কেটেছে চেন্নাইয়ে। তাঁর মামা দুর্গা আম্মার স্থান। কারণ তার বাবা কৃষ্ণ তার চলচ্চিত্র নিয়ে খুব ব্যস্ত ছিলেন। তাই মহেশ বাবু (Mahesh Babu) তার লেখাপড়া ও লেখাপড়ার তদারকি করতেন। সে তার ভাইবোনদের সাথে ক্রিকেট খেলে। তাও চেন্নাইয়ের ভিজিপি গোল্ডেন বিচে। তার বাবাও এ ব্যাপারে বিশেষ খেয়াল রাখতেন।

 শনি ও রবিবার তাকে ভিজিপি ইউনিভার্সালে গুলি করতে হবে। যাতে তারা বাচ্চাদের সাথে সময় কাটাতে পারে। তার বাবা অসাধারণ অভিনয় করেছেন। তাদের কারণে কোনো শিশু যেন সমস্যায় না পড়ে সেদিকেও বিশেষ নজর রাখা হয়েছে। এটাই ছিল কারণ।  সব শিশুই তাদের বাস্তবতা লুকিয়ে রেখেছিল। যাতে বিদ্যালয়ে তাদের প্রতি কোনো বৈষম্য না হয়।

মহেশ বাবুর শিক্ষাজীবন – Mahesh Babu Education Life :

মহেশ বাবু (Mahesh Babu) ছোটবেলা থেকেই পড়াশোনায় খুব ভালো ছিলেন।  তিনি St. বেদেস অ্যাংলো ইন্ডিয়ান হায়ার সেকেন্ডারি স্কুল, চেন্নাই থেকে প্রাথমিক শিক্ষা লাভ করেন। এখানে বিখ্যাত অভিনেতা কার্তিক ছিলেন তাঁর স্কুলের সাথী। তারপর চেন্নাইয়ের লয়োলা কলেজ থেকে ব্যাচেলর অফ কমার্স ডিগ্রি লাভ করেন।

   লয়োলা কলেজে মহেশ বাবুর আরেক ব্যাচমেট ছিলেন থালাপ্যাথি বিজয়। এই দুজনেই অভিনয়ে ক্যারিয়ার শুরু করার আগেই। কলেজের সময় থেকেই একে অপরের ভালো বন্ধু হয়ে ওঠে। চেন্নাইয়ে শিক্ষা লাভের পরও তিনি তেলেগু পড়তে ও লিখতে পারেননি। কারণ তিনি তার স্কুলে ইংরেজির পাশাপাশি হিন্দিকে অন্য ভাষা হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন।

মহেশ বাবু শিশু অভিনেতা রূপে – Mahesh Babu As A Child Artist : 

মহেশ বাবু (Mahesh Babu) এর বয়স যখন মাত্র 4 বছর তখন থেকে তেলেগু ছবির সেটে আসেন। সটি ছিল 1979 সালের ছবি ‘নিদা’। এখানে শুটিংয়ে ব্যস্ত ছিলেন ছবির পরিচালক দেশিরি নারায়ণ রাও। সেই ছবির কিছু দৃশ্যে মহেশ বাবু শিশুশিল্পী হিসেবে আবির্ভূত হন।

  ১৯৮৩ সালে ‘পোড়াতাম’ ছবির শুটিং চলাকালীন ড.  পরিচালক কোডি রামকৃষ্ণ মহেশ বাবুর বাবা কৃষ্ণকে বললেন। তাকে নায়কের ভাইয়ের চরিত্রে দেওয়া উচিত।  মহেশবাবু শুরুতে খুব নার্ভাস ছিলেন। এরপর শিশুশিল্পী হিসেবে মহেশ বাবু কাজ করেছেন অনেক ছবিতে।

  যার মধ্যে প্রধান ছবি ছিল ‘সংখারাভাম’, ‘বাজার রাউডি’, ‘মুগগুরু কোডুকুলু’, এবং ‘গুদাচারি 117’।  এরপর তার বাবা কৃষ্ণ তার লেখাপড়ার দিকে নজর রাখেন। অভিনয় বন্ধ করতেও বলা হয়েছে। কিন্তু বড় হয়ে এত বড় তারকা হয়ে উঠবেন তিনি। এ বিষয়ে কারো কোনো ধারণা ছিল না।

মহেশ বাবুর তেলেগু সিনেমা ক্যারিয়ার – Mahesh Babu Telugu Movie Career : 

স্নাতক শেষ করার পর মহেশ বাবু (Mahesh Babu) তিন থেকে চার মাস অভিনয়ের প্রশিক্ষণ নেন। মহেশ বাবু (Mahesh Babu) তেলেগু পড়তে ও লিখতে পারতেন না। মহেশ বাবু (Mahesh Babu) কেবল তখনকার কথোপকথন ভাষায় তেলুগু বলতে জানতেন। যে কারণে প্রথম দিকের ছবিগুলোর ডাবিংয়ে বেশ সমস্যায় পড়তেন তিনি।

    শুরুতে নিজের সংলাপগুলো মনে রাখতেন, অন্যের কাছ থেকে শুনে। তারপর আবার ডাব করতেন। 1999 সালে, প্রধান অভিনেতা হিসাবে মহেশ বাবুর প্রথম ছবি ‘রাজা কুমারুডু’ মুক্তি পায়। যেটি ছিল একটি রোমান্টিক কমেডি ছবি। এই ছবিতে তার বিপরীতে দেখা গেছে প্রীতি জিনতাকে। এই ছবিটি খুব হিট হয়েছিল। ছবিটি পরবর্তীতে ‘প্রিন্স নাম্বার ওয়ান’ নামে হিন্দিতে ডাব করে মুক্তি দেওয়া হয়।

       মহেশ বাবু (Mahesh Babu) এর প্রথম ছবি থেকেই বেশিরভাগ মানুষ তাকে প্রিন্স মহেশ বাবু নামে ডাকতে শুরু করে। এক বছর পর 2000 সালে মহেশ বাবুর আরও দুটি ছবি মুক্তি পায়। ‘যুব রাজু‘ এবং ‘ভামসি’ কিন্তু এই দুটি ছবিই বক্স অফিসে বিশেষ কিছু দেখাতে পারেনি। তবে ‘ভামসি’ ছবির সেটে দেখা হয় তাদের। তার হবু স্ত্রী হলেন নম্রতা শিরোদকর।

এর পর মহেশ বাবুর কয়েকটি জনপ্রিয় ছবি ‘মুরারি’ এবং ‘ওকাডু’ মুক্তি পায়। ‘ওকাডু’ ছবির জন্য মহেশ বাবুকে প্রথমবার তেলেগু ছবির সেরা অভিনেতার ‘ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড’ দেওয়া হয়। ওকাডু ছিল সেই ছবি। যা পরে 2015 সালে।  ‘তেভার’ নামে অর্জুন কাপুরকে নিয়ে তৈরি। যদিও হিন্দিতে ছবিটি ছিল ফ্লপ।

    এরপর ২০০৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত মহেশ বাবু (Mahesh Babu) এর দুটি ছবি ‘ননী’ ও ‘অর্জুন’ ধারাবাহিকভাবে ফ্লপ হয়। যার জেরে মহেশবাবু তখন বেশ টেনশনে পড়েছিলেন।  তারপর কিছুক্ষণ বিশ্রাম নেওয়ার পর। অথাদু ছবিতে কাজ করেছেন তিনি।  যেটি 2005 সালে মুক্তি পায়। এটি একটি সুপারহিট ছবি প্রমাণিত হয়।

       এরপর ২০০৬ সালে মুক্তি পায় মহেশ বাবুর ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বড় ছবি ‘পোকিরি’। যা আয়ের দিক থেকে তেলেগু সিনেমার আগের অনেক রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে। এটি মহেশ বাবুকে এক নম্বর অবস্থানে নিয়ে যায়। এটি একই চলচ্চিত্র ছিল। যা পরবর্তীতে ২০০৯ সালে সালমান খানকে নিয়ে তৈরি হয় ‘ওয়ান্টেড’ নামে। ছবিটি সে সময় সালমান খানের ডুবন্ত ক্যারিয়ার কেড়ে নেয়।

      যাইহোক, মহেশ বাবুর অনেক ছবির রিমেক বিভিন্ন ভাষায় তৈরি হয়েছে। কিন্তু মহেশ বাবু তার ফিল্ম কেরিয়ারে এখন পর্যন্ত কোনো রিমেক ছবিতে অভিনয় করেননি। মহেশ বাবু (Mahesh Babu) সবসময় নতুন গল্প ও নতুন ছবিতে কাজ করতে পছন্দ করেন।

মহেশ বাবুর বিবাহ জীবন – Mahesh Babu Marriage Life : 

২০০২ সালে পরিচালক বি গোপালের ছবি ‘ভামসি’, যার শুটিং চলছিল অস্ট্রেলিয়ায়। সেখানেই মহেশ বাবুর সঙ্গে দেখা হয়েছিল তাঁর সহ-অভিনেত্রী নম্রতা শিরোদকরের। এই সাক্ষাৎ ধীরে ধীরে প্রেমে পরিণত হয়। প্রায় 4 বছর ধরে চলে তাদের প্রেম। নম্রতা শিরোদকর তাঁর থেকে আড়াই বছরের বড়।  তারপর বিয়েতে। এই বিয়ের জন্য তার বাবা-মাকে প্রস্তুত করতে মহেশ বাবুর কিছুটা সময় লেগেছিল।

       একসময় সে রাজি হয়ে যায়। তারপরে বিয়ে করলেন মহেশ বাবু (Mahesh Babu) ও নম্রতার জুটি। 10 ফেব্রুয়ারী 2005-এ তাদের বিয়ে হয়। বিয়ের পর নম্রতা শিরোদকর চলচ্চিত্র থেকে পুরোপুরি দূরে সরে যান। তাদের প্রথম সন্তানের জন্ম 31 আগস্ট 2006 এ। যার নাম ছিল গৌতম কৃষ্ণ। এরপর ২০১২ সালের ২০ জুলাই তাদের ঘরে কন্যা সন্তানের জন্ম হয়।  যার নাম ছিল সিতারা।

[আরও দেখুন, রাম চরণ এর জীবনী – Ram Charan Biography in Bengali]

মহেশ বাবুর বিবাদ – Mahesh Babu Controversy :

যাইহোক, মহেশ বাবু সবসময় বিতর্ক থেকে দূরে থাকেন। কিন্তু তবুও, তার নাম কিছু বিতর্কের সাথে জড়িত। মহেশ বাবুর একটি ছবির প্রচারের সময়। তার কয়েকজন ভক্ত সিডি মালিকের দোকানে যান। তার দ্বারা পাইরেটেড সিডি বিক্রির জন্য, দোকান অনেক ভাংচুর করা হয়। তাকে বলা হয়েছিল খুব ভালো মন্দ।

      মহেশবাবুও সেই সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন।  যার পরিপ্রেক্ষিতে সে সময় মহেশ বাবু ও তাঁর ভক্তদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। যদিও তেলুগু ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির কিছু বড় অভিনেতা যেমন চিরঞ্জীবী, নাগার্জুন, পবন কল্যাণ, অনেক অভিনেতা মহেশ বাবুকে পুরোপুরি সমর্থন করেছিলেন। পরে গোটা বিষয়টি চাপা পড়ে যায়।

     এ ছাড়া আরও একটি বিতর্ক ছিল। মহেশ বাবু (Mahesh Babu) যখন রয়্যাল স্ট্যাগ হুইস্কির বিজ্ঞাপন প্রচার করেছিলেন। বিষয়টি নিয়ে মহেশ বাবুর কিছু ভক্ত ও অনেকে তার বিরোধিতা করেন। যদিও পরে তা সংক্ষিপ্ত হয়ে যায়।

      এছাড়াও, মহেশ বাবু (Mahesh Babu) ভারত স্তরে থাম্পস আপ-এর ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর রয়েছেন। থাম্পস আপের জন্য তার একটি নতুন বিজ্ঞাপন রণবীর সিংয়ের সাথে চালু হয়েছে।

[আরও দেখুন, প্রভাস এর জীবনী – Prabhas Biography in Bengali]

মহেশ বাবুর জীবনী – Mahesh Babu Biography in Bengali FAQ : 

1. মহেশ বাবু কে ?

Ans: একজন ভারতীয় সাউথ ইন্ডিয়ান অভিনেতা ।

2. মহেশ বাবু এর জন্ম কবে হয় ?

Ans: মহেশ বাবু এর জন্ম হয় ৯ আগস্ট ১৯৭৪ সালে ।

3. মহেশ বাবু এর জন্ম কোথায় হয় ?

Ans: মহেশ বাবু এর জন্ম হয় চেন্নাইয়ে ।

4. মহেশ বাবু এর পুরো নাম কী ?

Ans: মহেশ বাবু এর পুরো নাম মহেশ বাবু ঘাট্টামানেনি ।

5. মহেশ বাবু এর পিতার নাম কী ?

Ans: মহেশ বাবু এর পিতার নাম কৃষ্ণ ঘাট্টামানেনি ।

6. মহেশ বাবু এর মাতার নাম কী ?

Ans: মহেশ বাবু এর মাতার নাম কী ইন্দিরা দেবী ।

7. মহেশ বাবু এর স্ত্রীর নাম কী ?

Ans: মহেশ বাবু এর স্ত্রীর নাম নম্রতা শিরোদকর ।

8. মহেশ বাবু এর কর্মজীবন কবে শুরু হয় ?

Ans: ১৯৭৯ সালে ।

[আরও দেখুন, দীপিকা পাড়ুকোন এর জীবনী – Deepika Padukone Biography in Bengali

আরও দেখুন, শ্রদ্ধা কাপুর এর জীবনী – Shraddha Kapoor Biography in Bengali

আরও দেখুন, সঞ্জয় লীলা বনশালি এর জীবনী – Sanjay Leela Bhansali Biography in Bengali

আরও দেখুন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর জীবনী – Rabindranath Tagore Biography in Bengali]

মহেশ বাবু এর জীবনী – Mahesh Babu Biography in Bengali

  অসংখ্য ধন্যবাদ সময় করে আমাদের এই ” মহেশ বাবু এর জীবনী – Mahesh Babu Biography in Bengali  ” পােস্টটি পড়ার জন্য। মহেশ বাবু এর জীবনী – Mahesh Babu Biography in Bengali পড়ে কেমন লাগলো কমেন্টে জানাও। আশা করি এই মহেশ বাবু এর জীবনী – Mahesh Babu Biography in Bengali পোস্টটি থেকে উপকৃত হবে। এই ভাবেই BhugolShiksha.com ওয়েবসাইটের পাশে থাকো যেকোনো প্ৰশ্ন উত্তর জানতে এই ওয়েবসাইট টি ফলাে করো এবং নিজেকে  তথ্য সমৃদ্ধ করে তোলো , ধন্যবাদ।

Subscribe Our YouTube Channel

Join Our Telegram Channel

E-mail Subscription