ল্যারি পেইজ এর জীবনী - Larry Page Biography in Bengali
ল্যারি পেইজ এর জীবনী - Larry Page Biography in Bengali

ল্যারি পেইজ এর জীবনী

Larry Page Biography in Bengali

ল্যারি পেইজ এর জীবনী – Larry Page Biography in Bengali : গুগল সার্চ ইঞ্জিন আমাদের দৈনন্দিন জীবনের এক অপরিহার্য অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। গুগল আমাদের যতটা কাছে থাকে, এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা ল্যারি পেইজ (Larry Page) ততটাই থাকেন পর্দার আড়ালে। তাই ল্যারি পেইজ (Larry Page) এর সম্পর্কে বেশি কিছু জানা যায় না। আজ ল্যারি পেইজকে (Larry Page) নিয়েই এই লেখা। 

  গুগলের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ল্যারি পেইজ এর একটি সংক্ষিপ্ত জীবনী । ল্যারি পেইজ এর জীবনী – Larry Page Biography in Bengali বা ল্যারি পেইজ এর আত্মজীবনী বা (Larry Page Jivani Bangla. A short biography of Larry Page. Larry Page Birth, Place, Life Story, Life History, Biography in Bengali) ল্যারি পেইজ এর জীবন রচনা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

ল্যারি পেইজ কে ? Who is Larry Page ? 

লরেন্স পেইজ / ল্যারি পেইজ  (Larry Page) একজন আমেরিকান কম্পিউটার বিজ্ঞানী এবং ইন্টারনেট উদ্যোক্তা। লরেন্স পেইজ (Larry Page) ও সের্গেই ব্রিন এর সাথে গুগল প্রতিষ্ঠা করেন।

ল্যারি পেইজ এর জীবনী – Larry Page Biography in Bengali :

নাম (Name) লরেন্স পেইজ / ল্যারি পেইজ (Larry Page)
জন্ম (Birthday) ২৩ মার্চ ১৯৭৩ (23 March 1973) 
জন্মস্থান (Birthplace) মিশিগান, যুক্তরাষ্ট্র
পিতামাতা (Parents)  কার্ল ভিক্টর পেইজ, গ্লোরিয়া পেইজ 
জাতীয়তা  আমেরিকান
পেশা (Occupation) কম্পিউটার বিজ্ঞানী

ইন্টারনেট উদ্যোক্তা

পরিচিতির কারণ  গুগলের সহ-প্রতিষ্ঠাতা

আলফাবেট এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা

পেইজর‍্যাঙ্কের সহ-উদ্ভাবক

দাম্পত্য সঙ্গী (Spouse) Lucinda Southworth 

ল্যারি পেইজ এর জন্ম – Larry Page Birthday : 

১৯৭৩ সালের ২৬ মার্চ যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগানে জন্মগ্রহণ করেন লরেন্স এডওয়ার্ড পেজ, যিনি ল্যারি পেইজ (Larry Page) নামেই পরিচিত।

ল্যারি পেইজ এর পিতামাতা – Larry Page Parents : 

ল্যারি পেইজ (Larry Page) ছিলেন বাবা কার্ল ভিক্টর পেজ এবং মা গ্লোরিয়া পেজের দ্বিতীয় সন্তান। বাবা ছিলেন মিশিগান স্টেট ইউনিভার্সিটির কম্পিউটার সায়েন্স ও আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের অধ্যাপক। একই প্রতিষ্ঠানে মা-ও কম্পিউটার প্রোগ্রামিং শেখাতেন। বাবা-মা দুজনই কম্পিউটার বিজ্ঞানের সাথে সম্পর্কযুক্ত হওয়ায় বাড়িতে ব্যক্তিগত কম্পিউটার আর কম্পিউটার বিজ্ঞান সম্পর্কিত বই ও সাময়িকী দিয়ে ভরা ছিল। ফলে শৈশবেই কম্পিউটার সম্পর্কিত জ্ঞান অনেকখানি আয়ত্ত করে ফেলেন ল্যারি পেজ। তাঁর বড় ভাই কার্ল পেজ জুনিয়রও একজন সফল অনলাইন উদ্যোক্তা হন। 

ল্যারি পেইজ এর শিক্ষাজীবন – Larry Page Education Life : 

ল্যারি পেজের প্রাথমিক বিদ্যাপাঠের শুরুটা হয় মন্টেসরি স্কুল থেকে। সেখানের পরিবেশে তাঁর সৃজনশীলতার যে বিকাশ ঘটে, তা পরবর্তী জীবনে তাঁর কাজে প্রভাবিত করেছে বলে মনে করেন তিনি। এরপর পড়াশোনা করেন ইস্ট ল্যান্সিং হাই স্কুলে। স্নাতক করেন ইউনিভার্সিটি অব মিশিগানে কম্পিউটার বিজ্ঞানে। এ সময় ল্যারি পেইজ (Larry Page) সেখানকার ‘সোলার কার টিম’-এ যোগ দেন। উচ্চতর পড়াশোনার জন্য স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে যান পিএইচডি করতে। সেখানেই যাত্রা শুরু হয় গুগলের।

গুগলের গল্প – Story of Google : 

স্ট্যানফোর্ডে এসে ল্যারি পেজের সাথে পরিচয় হয় কম্পিউটার বিজ্ঞানের আরেক ছাত্র সার্গেই ব্রিনের। তারা তখন একসাথে একটি গবেষণা প্রকল্পে কাজ করা শুরু করেন। তারা বিভিন্ন ওয়েবের লিংকগুলো সংগ্রহ করতেন। তারপর একটি অ্যালগরিদমের সাহায্যে ওয়েবসাইটের গুরুত্ব অনুযায়ী র‍্যাংকিং করেন। এই অ্যালগরিদমকে বলা হতো ‘পেজর‍্যাংক’। এভাবে তারা একটি সার্চ ইঞ্জিন তৈরি করেন, যাতে সার্চ দিলে সবচেয়ে প্রাসঙ্গিক ওয়েবসাইটগুলোর লিংক চলে আসতো। সার্চ ইঞ্জিনটির নাম দেয়া হয় ‘ব্যাকরাব’। তারা এই সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম সংস্করণ নিয়ে আসে ১৯৯৬ সালের আগস্টে স্ট্যানফোর্ডের ওয়েবসাইটে। 

  ল্যারি পেজ ও সার্গেই ব্রিন ১৯৯৭ সালে সার্চ ইঞ্জিনের নতুন নাম দেন ‘গুগল’। গুগল নামটি নেয়া হয় একটি গাণিতিক শব্দ থেকে, যা দিয়ে বোঝানো হতো ১ এর পর ১০০টি শূন্য। তাদের মতে এটি সার্চ ইঞ্জিনের তথ্য ভান্ডারের বিশালতা নির্দেশ করে। শুরুতে ল্যারি পেজ বা সার্গেই ব্রিন কারোরই গুগলকে নিয়ে ব্যবসা করার ইচ্ছা ছিল না। তারা একাডেমিক দিকেই মনযোগী ছিলেন। তাই গুগলকে চাইলেন বিক্রি করে দিতে। তখন সবচেয়ে বড় সার্চ ইঞ্জিন কোম্পানি ছিল ‘ইয়াহু!’। ১৯৯৭ সালে তারা ১ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে গুগলকে কেনার জন্য ইয়াহুকে প্রস্তাব দেন। কিন্তু ইয়াহু ফিরিয়ে দেয়। মজার ব্যাপার, ২০০২ সালেও তারা ইয়াহুর কাছে গুগলকে বিক্রি করার চেষ্টা করেন। তখনও তারা ফিরিয়ে দেয়।

[আরও দেখুন, সুন্দর পিচাই এর জীবনী – Sundar Pichai Biography in Bengali]

গুগলের সফলতা – The Success of Google : 

গুগল সার্চ ইঞ্জিনের জনপ্রিয়তা বাড়তে থাকায় ২০০৪ সালে গুগল শেয়ার বাজারে নাম লেখায়। এতে করে ল্যারি পেজ ও সার্গেই ব্রিন- দুজনই বিলিয়নিয়ার হয়ে যান। পেজ সিইও থেকে সরে দাঁড়ালেও ভোটাধিকারের ক্ষমতা ও সর্বোচ্চ অংশের শেয়ার তাদের দুজনেরই ছিল। সিইও পদ থেকে সরে দাঁড়ানোয় পেজ অসন্তুষ্ট ছিলেন। তবে এই সময়টা তিনি অন্যদিকে মন দেন।

 ল্যারি পেজ শুরু থেকেই চাইতেন গুগলের কাজ যেন শুধু সার্চ ইঞ্জিনেই সীমাবদ্ধ না থাকে। ভবিষ্যতে প্রভাব ফেলতে পারে এমন জিনিসের প্রতি তাঁর বরাবরই আগ্রহ ছিল। তিনি চাইলেন মানুষের পকেটের মধ্যে কম্পিউটারকে পৌঁছে দিতে। ল্যারি পেইজ (Larry Page) ২০০৫ সালে ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার দিয়ে একটি কোম্পানি কেনেন। এর নাম ছিল ‘অ্যান্ড্রয়েড’। অ্যান্ড্রয়েডের সিইও ও সহ-প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন অ্যান্ডি রুবিন। পেজ তখন রুবিনের সাথে প্রায়ই আলাপে বসতেন। এরিক স্মিট বা সার্গেই ব্রিন কেউই পেজের এই ধারণা নিয়ে আগ্রহী ছিলেন না। গুগলের মতো বড় কোম্পানির কাছে ৫০ মিলিয়ন ডলার তেমন কিছু নয়। তাই এরিক স্মিট এটা নিয়ে আর মাথা ঘামাননি। 

সার্চ ইঞ্জিন ও অ্যান্ড্রয়েডের সফলতায় গুগলের বিজ্ঞাপন বাণিজ্য ক্রমাগত উর্ধ্বমুখী হতে থাকে। ২০১০ সালে গুগল ১৮০ বিলিয়ন ডলারের কোম্পানি হয় এবং এর কর্মীর সংখ্যা দাঁড়ায় ২৪,০০০। সার্চ ইঞ্জিনের সফলতায় এরিক স্মিটের অনেক অবদান থাকলেও অ্যান্ড্রয়েডের ক্ষেত্রে ল্যারি পেজ স্মিটের কাছ থেকে কোনো সহায়তা নেননি। এটাই তাঁকে আত্মবিশ্বাস এনে দেয়।

[আরও দেখুন, মার্ক জুকারবার্গ এর জীবনী – Mark Zuckerberg Biography in Bengali]

ল্যারি পেইজ এর ব্যাক্তিগত জীবন – Larry Page Personal life : 

সিলিকন ভ্যালির বড় কোম্পানির সিইওরা যেখানে সুপারস্টারদের মতো চলাফেরা করেন, ল্যারি পেজ সেখানে ব্যতিক্রম। ব্যক্তিগত ও পারিবারিক জীবন সকলের থেকে দূরেই রাখেন। মিডিয়াতেও তাঁকে খুব বেশি দেখা যায় না। ২০০৭ সালে বিয়ে করেন রিসার্চ সায়েন্টিস্ট লুসিন্ডা সাউথওর্থকে। স্ত্রী এবং দুই বাচ্চার সংসার নিয়ে থাকেন পালো আল্টোতে। ল্যারি পেইজ (Larry Page) ভোকাল কর্ড প্যারালাইসিসে আক্রান্ত। তাই তার কন্ঠস্বর কিছুটা নরম। 

  তাঁর বাবাও পোলিও রোগে আক্রান্ত ছিলেন। ২০০৬ সালে বাবার নামে চালু করেন ‘দ্য কার্ল ভিক্টর পেজ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন’। এছাড়াও ল্যারি পেজ অনেক দাতব্য কাজের সাথে জড়িত। বর্তমানে তাঁর মোট সম্পদের পরিমাণ প্রায় ৫৬ বিলিয়ন ডলার। ২০১৯ সালে ফোর্বস সাময়িকীর বিশ্বের ধনীদের তালিকায় দশম স্থানে আছেন তিনি।

ল্যারি পেইজ এর জীবনী – Larry Page Biography in Bengali FAQ :

  1. ল্যারি পেইজ কে ?

Ans: ল্যারি পেইজ একজন আমেরিকান কম্পিউটার বিজ্ঞানী এবং ইন্টারনেট উদ্যোক্তা ।

  1. ল্যারি পেইজ এর জন্ম কোথায় হয় ?

Ans: ল্যারি পেইজ এর জন্ম হয় মিশিগান, আমেরিকায় ।

  1. ল্যারি পেইজ এর পিতার নাম কী ?

Ans: ল্যারি পেইজ এর পিতার নাম কার্ল ভিক্টর পেইজ।

  1. ল্যারি পেইজ এর মাতার নাম কী ?

Ans: ল্যারি পেইজ এর মাতার নাম গ্লোরিয়া পেইজ।

  1. ল্যারি পেইজ কবে জন্মগ্রহণ করেন ?

Ans: ল্যারি পেইজ ২৩ মার্চ ১৯৭৩ সালে জন্মগ্রহণ করেন ।

  1. ল্যারি পেইজ এর স্ত্রীর নাম কী ?

Ans: ল্যারি পেইজ এর স্ত্রীর নাম Lucinda Southworth .

  1. গুগল এর প্রতিষ্ঠাতা কে ?

Ans: গুগল এর প্রতিষ্ঠাতা ল্যারি পেইজ ।

  1. গুগল নামটি কোথায় থেকে নেওয়া হয় ?

Ans: গুগল নামটি নেওয়া হয় একটি গাণিতিক শব্দ থেকে ।

[আরও দেখুন, জেফ বেজোস এর জীবনী – Jeff Bezos Biography in Bengali

আরও দেখুন, ইলন মাস্ক এর জীবনী – Elon Musk Biography in Bengali

আরও দেখুন, স্টিভ জবস এর জীবনী – Steve Jobs Biography in Bengali

আরও দেখুন, বিল গেটস এর জীবনী – Bill Gates Biography in Bengali]

ল্যারি পেইজ এর জীবনী – Larry Page Biography in Bengali

   অসংখ্য ধন্যবাদ সময় করে আমাদের এই ” ল্যারি পেইজ এর জীবনী – Larry Page Biography in Bengali  ” পােস্টটি পড়ার জন্য। ল্যারি পেইজ এর জীবনী – Larry Page Biography in Bengali পড়ে কেমন লাগলো কমেন্টে জানাও। আশা করি এই ল্যারি পেইজ এর জীবনী – Larry Page Biography in Bengali পোস্টটি থেকে উপকৃত হবে। এই ভাবেই BhugolShiksha.com ওয়েবসাইটের পাশে থাকো যেকোনো প্ৰশ্ন উত্তর জানতে এই ওয়েবসাইট টি ফলাে করো এবং নিজেকে  তথ্য সমৃদ্ধ করে তোলো , ধন্যবাদ।

Download Our Android App

Subscribe Our YouTube Channel

Join Our Telegram Channel