পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ (জলবায়ুবিদ্যা - ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | The Planetory Wind System - Climatology Geography
পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ (জলবায়ুবিদ্যা - ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | The Planetory Wind System - Climatology Geography

জলবায়ুবিদ্যা – ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর

পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ | The Planetory Wind System – Climatology (Geography) Question and Answer in Bengali

পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ (জলবায়ুবিদ্যা – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | The Planetory Wind System (Climatology – Geography) : জলবায়ুবিদ্যা – Climatology (ভূগোল – Geography) পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ – The Planetory Wind System প্রশ্ন ও উত্তর  নিচে দেওয়া হল। এই (পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ – The Planetory Wind System – জলবায়ুবিদ্যা Climatology – ভূগোল Geography) প্রশ্নোত্তর গুলি স্কুল, কলেজ ও বিভিন্ন প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষার জন্য খুব ইম্পর্টেন্ট। তোমরা যারা পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ – The Planetory Wind System – জলবায়ুবিদ্যা – Climatology (ভূগোল – Geography) অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর (Short Question and Answer) খুঁজে চলেছো, তারা নিচে দেওয়া প্রশ্নউত্তর ভালো করে পড়তে পারো। 

পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ (The Planetory Wind System) জলবায়ুবিদ্যা – ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর

1. ফেরেলের সুত্র কি?

উত্তরঃ কোরিওলিস বলের প্রভাবে নিয়ত বায়ুপ্রবাহগুলি উত্তর গোলার্ধের ডানদিকে ও দক্ষিণ গোলার্ধের বাঁ দিকে বেঁকে প্রবাহিত হয় যা ফেরেলের সুত্র নামে পরিচিত ।

2. বাইস ব্যালট সূত্র কি?

উত্তরঃ কেন্দ্রমুখী বলের প্রভাবে উত্তর গোলার্ধে বায়ুর গতির দিকে পেছন ফিরে দাঁড়ালে ডানদিকের চেয়ে বাঁদিকে বায়ুর চাপ কম মনে হয় । দক্ষিণ গোলার্ধে এর বিপরীত অবস্থার সৃষ্টি হয় । একে বাইস ব্যালট সূত্র বলে।

3. কোরিওলিস বল কে আবিষ্কৃত করে?

উত্তরঃ ফরাসী পদার্থবিদ কোরিওলিস কোরিওলিস বল আবিষ্কৃত করে।

4. জিওস্ট্রাফিক বায়ু কি?

উত্তরঃ জিওস্ট্রাফিক বায়ু হল— Wind turned by the earth rotational movement ” .

5. ফেরেলের সুত্র কে কত খ্রিস্টাব্দে আবিষ্কার করেন?

উত্তরঃ মার্কিন বিজ্ঞানী ফেরেল 1859 খ্রিস্টাব্দে ফেরেলের সুত্র আবিষ্কার করেন।

6. বাইস ব্যালট সূত্র কে কত খ্রিস্টাব্দে প্রমাণ দেন?

উত্তরঃ 1857 খ্রিস্টাব্দে এই সূত্রটি ওলন্দাজ ( ডাচ ) আবহবিদ বাইস ব্যালট প্রমাণ দেন ।

7. সমুদ্রবায়ুর গুরুত্ব কি?

উত্তরঃ সমুদ্রবায়ুর প্রভাবে উষ্ণতা হ্রাস পায় ও বৃষ্টিপাত ঘটাতে সাহায্য করে ।

8. স্থলবায়ুর গুরুত্ব কি?

উত্তরঃ স্থলবায়ুর সাহায্যে পালতোলা নৌকায় সমুদ্রযাত্রায় ও হ্রদ বায়ুরূপে ( USA ) এই বায়ু খুবই উপকারী ও স্বাস্থ্যকর । 

9. গর্জনশীল চল্লিশা কত ডিগ্রি অক্ষরেখায় দেখা যায়?

উত্তরঃ দক্ষিণ গোলার্ধে 40 ° -60 ° অক্ষাংশে।

10. সমুদ্রবায়ু কখন কোন দিক থেকে কোন দিকে প্রবাহিত হয়?

উত্তরঃ সমুদ্রবায়ু বিকাল বেলায় সমুদ্র থেকে স্থলভাগের দিকে প্রবাহিত হয় ।

11. স্থলবায়ু কখন কোন দিক থেকে কোন দিকে প্রবাহিত হয়?

উত্তরঃ স্থলবায়ু ভোরের বেলায় উচ্চচাপযুক্ত স্থলভাগ থেকে নিম্নচাপযুক্ত জলভাগের দিকে স্থলবায়ু বায়ু প্রবাহিত হয়।

12. পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহ কোন কোন নিয়মে প্রবাহিত হয়?

উত্তরঃ  ভূ – পৃষ্ঠের সমান্তরালে বা অনুভূমিকভাবে প্রবাহিত বায়ুপ্রবাহের নিয়মগুলি নিম্নরূপ :

 A ) যে অঞ্চলের বায়ুর চাপ বেশি সেই অঞ্চল থেকে পার্শ্ববর্তী নিম্নচাপ অঞ্চলের দিকে বায়ু সর্বদা প্রবাহিত হয় ।

 B ) কোরিওলিস বলের প্রভাবে নিয়ত বায়ুপ্রবাহগুলি উত্তর গোলার্ধের ডানদিকে ও দক্ষিণ গোলার্ধের বাঁ দিকে বেঁকে প্রবাহিত হয় যা ফেরেলের সুত্র নামে পরিচিত । 

C ) কেন্দ্রমুখী বলের প্রভাবে উত্তর গোলার্ধে বায়ুর গতির দিকে পেছন ফিরে দাঁড়ালে ডানদিকের চেয়ে বাঁদিকে বায়ুর চাপ কম মনে হয় । দক্ষিণ গোলার্ধে এর বিপরীত অবস্থার সৃষ্টি হয় । একে বাইস ব্যালট সূত্র বলে ( ১৮৫৭ ) । 

D ) বায়ুপ্রবাহের দিক অনুসারে বায়ুর নামকরণ করা হয় । 

 E ) বায়ুচাপের ঢাল বায়ুপ্রবাহের গতিকে নিয়ন্ত্রণ করে ।

13. কোরিওলিস বল বলতে কি বোঝ?( CORIOLIS FORCE ) 

উত্তরঃ পৃথিবীর আবর্তনের ফলে সৃষ্টি কেন্দ্রবহিমুখী শক্তির প্রভাবে বায়ুপ্রবাহ ও সমুদ্রস্রোত সোজাসুজি উচ্চচাপ থেকে নিম্নচাপ অঞ্চলের দিকে না গিয়ে ফেরেলের সূত্রানুসারে উত্তর গোলার্ধে ডানদিকে ও দক্ষিণ গোলার্ধে বামদিকে বেঁকে প্রবাহিত হয় । ফরাসী পদার্থবিদ কোরিওলিস আবিষ্কৃত এই আবর্তনজনিত বলকে কোরিওলিস বল বলে । এই শক্তি বায়ুপ্রবাহের সর্বদা অনুভূমিক দিকের সমকোণে কাজ করে । কোরিওলিস বল পৃথিবীর বিভিন্ন অক্ষাংশে বিভিন্ন হয় । 

14. জিওস্ট্রফিক বায়ু কাকে বলে( GEOSTROPHIC WIND )?

উত্তরঃ গ্রীক শব্দ ‘ Geo ‘ অর্থ ‘ পৃথিবী ‘ ও ‘ Strepho ‘ অর্থ ‘ ঘোরা ‘ অর্থাৎ জিওস্ট্রাফিক বায়ু হল— Wind turned by the earth rotational movement ” . উচ্চাকাশে ( ট্রপোস্ফিয়ারের উচ্চ অংশে 6-8 কিমি ) বায়ু নিম্নাকাশের বায়ুর মতো ভূ – পৃষ্ঠে বাধাপ্রাপ্ত হয় না । ঊর্ধ্বাকাশে বায়ুচাপের তারতম্যের সমকোণে প্রবাহিত হয় । কেননা ঊর্ধ্বাকাশে চাপের প্রভেদ ও কোরিওলিস বলের মধ্যে সমতা বাধিত হয় ফলে বায়ু সমচাপরেখার সমান্তরালে বয়ে যেতে থাকে । এই বায়ুকে জিওস্ট্রফিক বায়ু বলে ।

15.  ভারতের কৃত্রিম তন্তু নির্ভর বস্ত্র শিল্পগুলো বন্দর সংলগ্ন স্থানে গড়ে উঠেছে – কারণ ব্যাখ্যা করো।

উত্তরঃ  ভারতে কৃত্রিম তন্তু নির্ভর বস্ত্র শিল্পগুলো বন্দর সন্নিহিত অঞ্চল , যেমন — মুম্বাই , জামনগর , সুরাট , নিউম্যাঙ্গ্যালোর , তুতিকোরিন , হলদিয়া ( প্রস্তাবিত ) প্রভৃতি স্থানে গড়ে উঠেছে । কারণ এই শিল্পের কাঁচামাল টেরিকট , টেরিলিন , রেয়ন , সিন্থেটিক সুতো , পেট্রো রসায়ন শিল্প কেন্দ্র থেকে পাওয়া যায় । এই পেট্রো রসায়ন শিল্প কেন্দ্রগুলো বন্দরের নিকটবর্তী তৈল শোধনাগার সন্নিহিত অঞ্চলে গড়ে উঠেছে । এছাড়া আমদানীকৃত উপজাত দ্রব্যের উপর নির্ভর করেও বন্দর সন্নিহিত অঞ্চলে এই শিল্পের প্রসার ঘটেছে । 

16.  ফেরেলের সুত্র ( FERREL’S LAW ) বলতে কি বোঝ ?

উত্তরঃ পৃথিবীর আবর্তনগতিজনিত বিকর্ষণ শক্তির প্রভাবে বায়ুপ্রবাহের গতিবিক্ষেপ ঘটে । বায়ুপ্রবাহের ক্ষেত্রে পৃথিবীর উপর গতিশীল দিকে গতিজাড ধর্ম অনুযায়ী উত্তর কিগোলার্ধের ডানদিকে ও দক্ষিণ গোলার্ধের বামদিকে বেঁকে যায় । 

  বায়ুপ্রবাহের গতিবিক্ষেপের কথা মার্কিন বিজ্ঞানী ফেরেল 1859 খ্রিস্টাব্দে আবিষ্কার করেন বলে তার নামানুসারে বায়ুপ্রবাহের এই দিক বিক্ষেপক শক্তিকে ফেরেলের সূত্র বলে । পৃথিবী পশ্চিম থেকে পূর্বে আবর্তনের ফলে সৃষ্ট কেন্দ্রাতিগ বলের প্রভাবে বায়ু উত্তর গোলার্ধের ডানদিকে ও দক্ষিণ গোলার্ধের বামদিকে প্রবাহিত হয় । যদি পৃথিবী পূর্ব থেকে পশ্চিমে ঘুরত তবে এর বিপরীত অবস্থা ঘটত ।

17. বাইস ব্যালটের সূত্র কাকে বলে বা বলতে কি বোঝায় । 

উত্তরঃ বায়ুর চাপ ও বায়ুপ্রবাহ একে অপরের সাথে আন্তঃসম্পর্কযুক্ত । নিরক্ষরেখার ভুকেন্দ্রাতিগ শক্তির প্রভাব নগণ্য হলেও মেরুর দিকে যতই যাওয়া যায় ততই এর প্রভাব বাড়তে থাকে । এই কারণে উত্তর গোলার্ধের বাতাস সমচাপরেখা বরাবর উচ্চচাপমুক্ত অঞ্চলে ঘড়ির কাঁটার দিকে অর্থাৎ ডানদিকে এবং নিম্নচাপ অঞ্চলের বামদিকে প্রবাহিত হয় । আবার দক্ষিণ গোলার্ধে এর বিপরীত অবস্থা হয় । 1857 খ্রিস্টাব্দে এই সূত্রটি ওলন্দাজ ( ডাচ ) আবহবিদ বাইস ব্যালট প্রমাণ দেন । তাই এই সূত্রটিকে বাইস ব্যালটে’র সূত্র বলে । 

18. আয়নবায়ু বা বাণিজ্যবায়ু বা পূর্বাণীবায়ু কাকে বলে( TREDE WIND OR EASTERLIES ) ?

উত্তরঃ স্যাকসন শব্দ ‘ Treadon ‘ থেকে ‘ Trade ‘ শব্দটির উৎপত্তি । এই ‘ Treade ‘ শব্দের অর্থ ‘ বাণিজ্য নয় । একটি সামুদ্রিক নৌবিদ্যা সম্পর্কিত প্রবাদ বাক্য ‘to blow tredon’ বা wind থেকে এসেছে। যার অর্থ ‘ নিয়মিত গতিপথে ( on a constant course ) . 

প্রাচীনকালে পালতোলা জাহাজের সাহায্যে এই আয়ন বায়ুকে কাজে লাগিয়ে দুই ক্রান্তীয়রেখার দেশসমূহের জলপথে ব্যবসা – বাণিজ্য চলত । এই বায়ুর সাহায্যে ব্যবসা – বাণিজ্য চলত বলে আয়ন বায়ুর আর এক নাম বাণিজ্য বায়ু।

19. সমুদ্রবায়ু ( SEA BREEZE ) বলতে কি বোঝায়?

উত্তরঃ সাময়িক বায়ুর অন্যতম হল সমুদ্রবায়ু । দিনের বেলা প্রচণ্ড সূর্যতাপে জলভাগের তুলনায় স্বলভাগ বেশি উত্তপ্ত হয় । ফলে জলভাগে উচ্চচাপ ও স্থলভাগে নিম্নচাপ বিরাজ করে । ফলে বিকাল বেলায় সমুদ্র থেকে স্থলভাগের দিকে যে বায়ু প্রবাহিত হয় তাকে সমুদ্রবায়ু বলে । 

 বৈশিষ্ট্য : ( i ) অপরাহে বায়ুমণ্ডলের 1-2 কিমি গভীরতার মধ্যে সীমাবদ্ধ।

 ( ii ) উষ্ণ ও নাতিশীতোয় মণ্ডলে সমুদ্রবায়ু যথাক্রমে 40-50 কিমি ও 15-25 কিমি বিস্তৃত ।

( iii ) নাতিশীতোয় মণ্ডলে সমুদ্রবায়ুর গতি 10-20 কিমি / ঘণ্টা ।

গুরুত্ব : সমুদ্রবায়ুর প্রভাবে উষ্ণতা হ্রাস পায় ও বৃষ্টিপাত ঘটাতে সাহায্য করে । 

20. স্থলবায়ু ( LAND BREEZE ) বলতে কি বোঝায়?

উত্তরঃ সাময়িক বায়ুর অন্যতম হল স্থলবায়ু । সাধারণত মধ্যরাত্রি থেকে ভোররাত্রিতে স্থলভাগের তুলনায় জলভাগ বেশি উষ্ণ থাকে । ফলে জলভাগে নিম্নচাপ ও স্থলভাগে উচ্চচাপ বিরাজ করে । ফলে উচ্চচাপযুক্ত স্থলভাগ থেকে নিম্নচাপযুক্ত জলভাগের দিকে ভোরের বেলায় যে বায়ু প্রবাহিত হয় , তাকে স্থলবায়ু বলা হয় । 

বৈশিষ্ট্য : i ) মধ্যরাত্রি থেকে ভোররাত্রির মধ্যে স্থলবায়ু প্রবলভাবে প্রবাহিত হয় । 

ii ) স্থলবায়ুর গতি 5-10 কিমি / ঘণ্টা , বিস্তার 10-15 কিমি ও 2000 মিটার গভীরতাযুক্ত ।

  গুরুত্ব : স্থলবায়ুর সাহায্যে পালতোলা নৌকায় সমুদ্রযাত্রায় ও হ্রদ বায়ুরূপে ( USA ) এই বায়ু খুবই উপকারী ও স্বাস্থ্যকর । 

21. গর্জনশীল চল্লিশা ( POARING FORTIES ) , ভয়ঙ্কর পঞ্চাশ ( FURIOUS FIF . TIES ) ও তীক্ষ্ণ – চিৎকারী ষাট ( SHRIEKING SIXTIES ) বলতে কি বোঝ?

উত্তরঃ পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধের 40 °-60 ° অক্ষাংশে পশ্চিমাবায়ু প্রবাহিত অঞ্চলে রকি , আল্পস , তিয়েনসান , আলতাই ও সায়ান ইত্যাদি পর্বতের বাধার জন্য প্রবলবেগে বায়ু প্রবাহিত হয় না । কিন্তু দক্ষিণ গোলার্ধে 40 ° -60 ° অক্ষাংশে প্রশান্ত , আটলান্টিক ও ভারত মহাসাগরের উন্মুক্ত জলরাশি অবস্থান করায় বহু বিশেষ বাধাপ্রাপ্ত হয় না , ফলে বায়ু এখানে প্রবলবেগে প্রবাহিত হয় ( 45 কিমি / ঘণ্টা ) । তাই পশ্চিমা বায়ুর প্রভাবে সমুদ্রে প্রতীপ ঘূর্ণবাত , সমুদ্র উত্তাল হয়ে জলঘূর্ণি ও গর্জন সহকারে উৎক্ষিপ্ত হয় । তাই 40 ° দক্ষিণ অক্ষরেখাকে ‘ গর্জনশীল চল্লিশা , 50 ° দক্ষিণ অক্ষরেখাকে ‘ ভয়ঙ্কর পঞ্চাশ ‘ এবং 60 ° দক্ষিণ অক্ষরেখাকে ‘ তীক্ষ্ণ – চিৎকারী ঘাট ’ বলে । 

  উত্তমাশা অন্তরীপে গর্জনশীল চল্লিশা অবস্থানের জন্য বহু ইওরোপীয় নাবিকের ভারত অভিযানের স্বপ্ন বিফল হয় । 

FILE INFO : পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ – The Planetory Wind System | জলবায়ুবিদ্যা – ভূগোল প্রশ্নোত্তর (Climatology – Geography)

File Details:

PDF Name : পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ – The Planetory Wind System | জলবায়ুবিদ্যা – ভূগোল প্রশ্নোত্তর (Climatology – Geography)

Price : FREE

Download Link : Click Here To Download

INFO : Geography – Climatology – Question and Answer | ভূগোল – জলবায়ুবিদ্যা – পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ (The Planetory Wind System) প্রশ্নোত্তর

 ” ভূগোল (Geography) – জলবায়ুবিদ্যা (Climatology) – পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ – The Planetory Wind System “ একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ টপিক বিভিন্ন শ্রেনীর পরীক্ষা (Class 5, 6, 7, 8, 9,  Madhyamik, Class 11, Higher Secondary – HS, College & University Exam) এবং বিভিন্ন চাকরির (WBCS, WBSSC) পরীক্ষায় এখান থেকে প্রশ্ন অবশ্যম্ভাবী । সে কথা মাথায় রেখে BhugolShiksha.com এর পক্ষ থেকে ভূগোল পরীক্ষা প্রস্তুতিমূলক প্রশ্নো ও উত্তর উপস্থাপনের প্রচেষ্টা করা হলাে। ছাত্রছাত্রী, পরীক্ষার্থীদের উপকারে লাগলে, আমাদের প্রয়াস  ভূগোল (Geography) জলবায়ুবিদ্যা (Climatology) – পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ – The Planetory Wind System / পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ সংক্ষিপ্ত ছোট প্রশ্ন ও উত্তর / পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ (জলবায়ুবিদ্যা – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | The Planetory Wind System (Climatology – Geography)  SAQ / Short Question and Answer / পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ (জলবায়ুবিদ্যা – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | The Planetory Wind System (Climatology – Geography) Quiz / পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ (জলবায়ুবিদ্যা – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | The Planetory Wind System (Climatology – Geography) QNA / পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ (জলবায়ুবিদ্যা – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | The Planetory Wind System (Climatology – Geography) Question and Answer FREE PDF Download ) পরীক্ষা প্রস্তুতিমূলক প্রশ্নোত্তর সফল হবে।

পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ (জলবায়ুবিদ্যা – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | The Planetory Wind System (Climatology – Geography) Question and Answer in Bengali

    স্কুল, কলেজ ও বিভিন্ন ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনার ডিজিটাল মাধ্যম BhugolShiksha.com । এর প্রধান উদ্দেশ্য পঞ্চম শ্রেণী থেকে নবম শ্রেণী, মাধ্যমিকউচ্চ মাধ্যমিক সমস্ত বিষয় এবং গ্রাজুয়েশনের শুধুমাত্র ভূগোল বিষয়কে  সহজ বাংলা ভাষায় আলোচনার মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীদের কাছে সহজ করে তোলা। 

পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ (জলবায়ুবিদ্যা – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | The Planetory Wind System (Climatology – Geography)

        আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ সময় করে আমাদের এই ” পৃথিবীর বায়ুপ্রবাহসমূহ (জলবায়ুবিদ্যা – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | The Planetory Wind System (Climatology – Geography) ” পােস্টটি পড়ার জন্য। এই ভাবেই আমাদের ভূগোল শিক্ষা – Bhugol Shiksha – BhugolShiksha.com ওয়েবসাইটের পাশে থাকুন। ভূগোল বিষয়ে যেকোনো প্ৰশ্ন উত্তর জানতে এই ওয়েবসাইটটি ফলাে করুন এবং নিজেকে ভৌগোলিক  তথ্য সমৃদ্ধ করে তুলুন , ধন্যবাদ।

Subscribe Our YouTube Channel

Join Our Telegram Channel

E-mail Subscription