মানচিত্র অভিক্ষেপ (ব্যবহারিক ভূগোল - ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Methods Map Projection (Practical Geography) Geography
মানচিত্র অভিক্ষেপ (ব্যবহারিক ভূগোল - ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Methods Map Projection (Practical Geography) Geography

ব্যবহারিক ভূগোল – ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর

মানচিত্র অভিক্ষেপ | Methods Map Projection – Practical Geography (Geography) Question and Answer in Bengali

মানচিত্র অভিক্ষেপ (ব্যবহারিক ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Methods Map Projection (Practical Geography – Geography) : ব্যবহারিক ভূগোল – Practical Geography (ভূগোল – Geography) মানচিত্র অভিক্ষেপ – Methods Map Projection প্রশ্ন Oও উত্তর  নিচে দেওয়া হল। এই (মানচিত্র অভিক্ষেপ – Methods Map Projection – ব্যবহারিক ভূগোল Practical Geography – ভূগোল Geography) প্রশ্নোত্তর গুলি স্কুল, কলেজ ও বিভিন্ন প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষার জন্য খুব ইম্পর্টেন্ট। তোমরা যারা মানচিত্র অভিক্ষেপ – Methods Map Projection – ব্যবহারিক ভূগোল – Practical Geography (ভূগোল – Geography) অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর (Short Question and Answer) খুঁজে চলেছো, তারা নিচে দেওয়া প্রশ্নউত্তর ভালো করে পড়তে পারো।

মানচিত্র অভিক্ষেপ (Methods Map Projection) ব্যবহারিক ভূগোল – ভূগোল প্রশ্ন ও উত্তর

1. মানচিত্র অভিক্ষেপ ( MAP PROJECTION )

Ans: মানচিত্রাঙ্কন ( Cartography ) বিদ্যায় ‘ অভিক্ষেপ ‘ শব্দটি ব্যাপক অর্থে ব্যবহৃত হয় । সমতল কাগজের উপরিভাগের দ্বিমাত্রিক তলের উপর যখন ত্রিমাত্রিক পৃথিবী বা তার কোন অংশকে মানচিত্র অঙ্কনের জন্য নির্দিষ্ট স্কেল , কতকগুলি সূত্র , নীতি ও সীমাবদ্ধতা মেনে সুব্যবস্থিত পদ্ধতিতে অক্ষরেখা ও দ্রাঘিমারেখাগুলো দ্বারা জালের মতো বিন্যস্ত ( Network ) ছককে মানচিত্র অভিক্ষেপ বলে । পৃথিবীর প্রকৃতি ও আকৃতির উপর নির্ভর করে বিভিন্ন প্রকার অভিক্ষেপ প্রচলিত ।

2. গ্রীড ( GRID ) বা প্রাটিকুল ( GRATICULE ) , মণ্ডল ( ZONE ) ও গোর ( GORE ) কী ?

Ans: A ) গ্রীড বা গ্রাটিকুল ( Grid or Graticule ) : অক্ষরেখা ও দ্রাঘিমারেখা দ্বারা সৃষ্টি ছক বা ছিদ্রকে প্রাটিকুল বলে ।

B ) ণ্ড ( Zone ) : দুই অক্ষরেখার মধ্যবর্তী স্থানকে মণ্ডল বলা হয় ।

C ) গোর ( Gore ) : দুই দ্রাঘিমারেখার মধ্যে অবস্থিত স্থানকে গোর বলা হয় ।

3. মানচিত্র অভিক্ষেপের প্রয়োজনীয়তা ও গুরুত্ব কী ? 

Ans: বর্তমানে মানচিত্র অভিক্ষেপের ব্যবহার বহুমুখী । প্রথমত , পৃথিবী গোলাকার ; তাই পৃথিবীর সমগ্র স্থান সমতল ক্ষেত্রে আনতে মানচিত্র অভিক্ষেপের ব্যবহার আছে । দ্বিতীয়ত , একটি মাত্র অভিক্ষেপে সমগ্র পৃথিবীর মানচিত্র অঙ্কন করলে স্থানভেদে বিভিন্ন আকৃতির বিকৃতি হয় ; এইসব ত্রুটি মুক্ত করার জন্য বিভিন্ন সময় বিভিন্ন মানচিত্র উদ্ভাবিত হয়েছে । তৃতীয়ত , মানচিত্র অভিক্ষেপের সাহায্যে পৃথিবীর ক্ষুদ্রতম স্থান সুন্দরভাবে বুঝতে পারা যায় । চতুর্থত মানচিত্র অভিক্ষেপের সাহায্যে গবেষণা ( এডুইন রবার্ট পিয়েরীর উত্তর মেরু অভিযান ) , সমুদ্রপথ ( মার্কেটের অভিক্ষেপ ) ইত্যাদি জানা যায় । এছাড়া ধান উৎপাদন ( মলউইড , সানুসয়ডাল অভিক্ষেপ ) ও রেলপথ নির্মাণ , বিমানপথ নির্মাণে অভিক্ষেপ প্রয়োজন ।

4. দৃশ্যানুগ বা চিত্রানুপাত অভিক্ষেপ ( PERSPECTIVE PROJECTION ) কী ? 

Ans: আলোর উপস্থিতির ওপর ভিত্তিতে শ্রেণীকৃত একটি অন্যতম অভিক্ষেপ দৃশ্যানুগ অভিক্ষেপ । অক্ষাংশ বা দ্রাঘিমাযুক্ত কোন একটি কাচ নির্মিত ভূ – গোলকের মধ্য দিয়ে আলোকপাত করলে ওই অক্ষরেখা ও দ্রাঘিমারেখাগুলোর ছায়া একটি তলে প্রতিফলিত করলে যে অভিক্ষেপ পাওয়া যায় তাকে দৃশ্যানুগ অভিক্ষেপ বলে । যেমন- Polar zenithal stereographic Projection .

5. অদৃশ্যানুগ বা অচিত্রানুপাত ( NON – PERSPECTIVE ) অভিক্ষেপ । 

Ans: যখন অঙ্কের সাহায্যে বিভিন্ন গণনার মাধ্যমে আমাদের কোন বিশেষ উদ্দেশ্য বা প্রয়োজন মেটাতে অক্ষরেখা ও দ্রাঘিমারেখাগুলির বিন্যাসের কিছু পরিবর্তন করলে সেই অভিক্ষেপটি অদৃশ্যানুগ বা অজ্যামিতিক অভিক্ষেপে পরিণত হয় । যেমন- Polar zenithal equal area projection .

6. সৃজনী ভূ – গোলক ( GENERATING GLOBE ) কী ? 

Ans: সৃজনী ভূ – গোলক বলতে এমন এক কাঁচ নির্মিত গোলককে বোঝায় যার উপর অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমাংশের দাগ কাটা থাকে । এইরূপ গোলকের মধ্য দিয়ে আলো – ছায়া পড়ে দৃশ্যানুগ অভিক্ষেপ তৈরি হতে পারে । এটি নির্দিষ্ট স্কেলে ছোট করা পৃথিবীর মতোই অবয়ব ।

7. গ্র্যাটিকিউল ( GRATICULES ) কী ? 

Ans: পৃথিবীকে কাল্পনিক রেখার দ্বারা অক্ষাংশে ও দ্রাঘিমাংশে ভাগ করা হয় । সমতলক্ষেত্রে বিশেষ পদ্ধতিতে অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমা অঙ্কনের ফলে যে ছকের সৃষ্টি হয় , তাকে গ্র্যাটিকিউল বলে । ছকের প্রত্যেক বর্গক্ষেত্রকে গ্রীড ( Grid ) বলে । এই ছকের গ্র্যাটিকিউলের মধ্যেই মানচিত্র অঙ্কন করা হয় ।

8. বিকাশযোগ্য তল বা পৃষ্ঠ ( DEVELOPABLE SURFACE ) কী ? 

Ans: যে তল বরাবর অক্ষরেখা ও দ্রাঘিমারেখা সমন্বিত ক্ষেত্রকে স্থানান্তর করা যায় , সেই তল বা পৃষ্ঠকে বিকাশযোগ্য তল বা পৃষ্ঠ বলে । যেমন , মধ্য অক্ষাংশের অভিক্ষেপের জন্য শাঙ্কব তল ( Conical Surface ) ও নিরক্ষীয় অঞ্চলের জন্য বেলনাকার তল ( Cylindrical Surface ) প্রয়োজন । এই দুটি যথাক্রমে অর্ধপ্রকৃতির ক্রম ও আয়তাকার সমতলে পরিণত হয় ।

9. প্রমাণ অক্ষরেখা ( STANDARD PARALLEL ) ও মধ্য দ্রাঘিমারেখা ( CENTRAL MERIDIAN ) কী ? 

Ans: বিভিন্ন ধরনের বিকাশযোগ্য তলের , যেমন – শঙ্কু ( Conical ) , বেলন ( Cylindrical ) প্রভৃতি সৃজনী ভূ – গোলকের ( Generating Globe ) যে অক্ষরেখা লাইন বরাবর স্পর্শ করে থাকে তাকে প্রমাণ অক্ষরেখা ( Standard Parallel ) বলে । এই প্রমাণ অক্ষরেখার দৈর্ঘ্য সৃজনী ভূ – গোলকের অনুরূপ অক্ষরেখার দৈর্ঘ্যের সমান । তাই এই অক্ষরেখা বরাবর স্কেল ঠিক থাকে । আবার কোন অভিক্ষেপের দ্রাঘিমাগত বিস্তৃতির ঠিক মাঝখানে অবস্থিত দ্রাঘিমারেখাটিকে মধ্য দ্রাঘিমারেখা বলে । এটি সাধারণত সরলরেখা দ্বারা প্রকাশ করা হয় ।

10. শীর্ষদেশীয় অভিক্ষেপ ( ZENITHAL PROJECTION ) কী ? 

Ans: কোন শঙ্কু বা বেলনের পরিবর্তে যখন কোন তলবিশিষ্ট ( Plane ) ক্ষেত্র কোন বিন্দুতে গোলক স্পর্শ করে এবং ওই তলের উপর জালের মতো অক্ষ ও দ্রাঘিমা রেখাগুলোর ছায়াপাত করে অভিক্ষেপের ছক অঙ্কন করা হয় , তখন তাকে শীর্ষদেশীয় অভিক্ষেপ বলে । এই অভিক্ষেপের উপর অঙ্কিত মানচিত্রের কেন্দ্র থেকে সবদিকের বিন্দুগুলোর দিক নির্ভুল থাকে তাই একে দিগাংশিক অভিক্ষেপ – ও ( Azimuthal Projection ) বলে ।

11. শীর্ষদেশীয় অভিক্ষেপের ( ZENITHAL PROJECTION ) শ্রেণীবিভাগ ও ব্যবহার লেখো । 

Ans: আলোকের উৎসের ভিত্তিতে এই অভিক্ষেপ পাঁচ প্রকার । যথা

i ) নোমনিক বা কেন্দ্রীয় অভিক্ষেপ ( Gnomonic or Central Projection ) | ব্যবহার : সমুদ্র চলাচলকারী জাহাজ নাবিকদের এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ।

ii ) স্টেরিওগ্রাফিক অভিক্ষেপ ( Sterographic Projection ) । ব্যবহার : উত্তর ও দক্ষিণ মেরুর প্রকৃতি আকৃতি বজায় রাখার জন্য । iii ) অর্থোগ্রাফিক অভিক্ষেপ ( Orthographic Projection ) | ব্যবহার : মহাকাশ পর্যবেক্ষণের জন্য ব্যবহৃত হয় । Minist iv ) সমদূরবর্তী শীর্ষদেশীয় অভিক্ষেপ ( Zenithal Euqidistant Projection ) ব্যবহার : ভূ – পৃষ্ঠের সাথে মানচিত্রের দুটো স্থানের সঠিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য ব্যবহৃত v ) সম আয়তনিক শীর্ষদেশীয় অভিক্ষেপ ( Zenithal Equal Area Projection ) ব্যবহার : মানচিত্রের সঠিক ক্ষেত্রফল বজায় রাখার জন্য ব্যবহৃত হয় ।

12. সরল শাঙ্কব অভিক্ষেপ ( SIMPLE CONICAL PROJECTION ) কী ? 

Ans: যখন একটি শাঙ্কব তলের উপর কাচ নির্মিত ভূ – গোলক থেকে মানচিত্রটি অভিক্ষিপ্ত হয় , তখন তাকে সরল শাঙ্কব অভিক্ষেপ বলে । এইপ্রকার অভিক্ষেপে মনে করা হয় একটি শঙ্কু উৎস গোলকটিকে স্পর্শ করে থাকে । এই অভিক্ষেপ একটি দৃশ্যানুগ অভিক্ষেপ । মধ্য অক্ষাংশের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র দেশগুলির জন্য এই অভিক্ষেপ অত্যন্ত প্রয়োজনীয় । যেমন— আইসল্যান্ড , ব্রিটেন ও বাল্টিক সাগরের তীরবর্তী দেশগুলি ।

13. দিগাংশিক অভিক্ষেপ ( AZIUMTHAL PROJECTION ) কী ? 

Ans: যে প্রকার অভিক্ষেপে জেনারেটিং গ্লোবের দুটি বিন্দুর মধ্যে সঠিক বিয়ারিং বা দিক বজায় রাখা হয় , তাকে দিগাংশিক অভিক্ষেপ বলে । এই প্রকার অভিক্ষেপে অভিক্ষেপ তলটি ভূ – গোলকের কোন নির্দিষ্ট অংশে স্পর্শক রূপে অবস্থান করছে বলে কল্পনা করা হয় । এর ফলে মানচিত্রে যেকোন দুটি বিন্দুর পারস্পরিক অবস্থান ভূ – পৃষ্ঠেও একই হয় । সমুদ্রপথ ও বিমানপথ দেখানোর জন্য এই অভিক্ষেপ অত্যন্ত প্রয়োজনীয় । মার্কেটর অভিক্ষেপ এই অভিক্ষেপের প্রকৃষ্ট নিদর্শন ।

14.  অ্যাফিলেটিক অভিক্ষেপ ( APHYLATIC PROJECTION ) কী ? 

Ans: যে সকল অভিক্ষেপ অঙ্কনের সময় আকৃতি , আয়তন , দিক বা দূরত্ব ইত্যাদি কোন ধর্মই মানা হয় না , শুধুমাত্র কোন বিশেষ প্রয়োজন মেটাতে ব্যবহৃত হয় তাকে অ্যাফিলেটিক অভিক্ষেপ বলা হয় । যেমন Simple conical projection with one standard parallel .

15. সমদূরবর্তী অভিক্ষেপ ( EQUIDISTANT PROJECTION ) । 

Ans: যে প্রকার অভিক্ষেপে একটি নির্দিষ্ট স্কেলে ভূ – পৃষ্ঠের দুটি বিন্দুর মধ্যে মানচিত্রে ও আনুপাতিকহারে একই রাখার চেষ্টা করা হয় অর্থাৎ সমান দূরত্ব বজায় রাখা হয় এবং একটি বা দুটি বিন্দুতেই স্কেল সঠিকভাবে বজায় রাখা সম্ভব হয় , তাকে সমদূরবর্তী অভিক্ষেপ বলা হয় । যেমন- Polar zenithal equi – distant projection .

16. কেন্দ্রীয় অভিক্ষেপ ( CENTRAL PROJECTION ) বা নোমনিক অভিক্ষেপ ( GNOMONIC PROJECTION ) কী ? 

Ans: অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমাংশ অঙ্কিত কাচ নির্মিত ভূ – গোলকের মধ্য দিয়ে আলোকসম্প্রপাত করলে অভিক্ষেপ সমতলে যে অভিক্ষেপ পাওয়া যায় , তাকে দৃশ্যানুগ অভিক্ষেপ বলে । যখন আলোর উৎসটি ঐ উৎস ভূ – গোলকের কেন্দ্রে অবস্থান করে তখন ঐ অভিক্ষেপটিকে নোমনিক অভিক্ষেপ ( Gnomonic Projection ) বলে । যেমন- Bonne’s Projection .

17. বহুশাঙ্কর অভিক্ষেপ ( POLYCONIC PROJECTION ) কী ? 

Ans: সহজ শাঙ্কব , অভিক্ষেপের একটি পরিবর্তিত রূপ বহুশাঙ্কব অভিক্ষেপ । এই অভিক্ষেপে সমগ্র অক্ষাংশগুলি বিভিন্ন মাপের বৃত্তচাপ দ্বারা অঙ্কন করা হয় । এইজন্য একে বিভিন্ন কৌণিক অভিক্ষেপ বলে । এতে কোন দেশের আকৃতি ও আয়তন প্রায় সঠিকভাবে দেখানো যায় ।

18. RHUMB LINE OR LOXODRAME কী ? 

Ans: Rhumb line হল Mercator’s অভিক্ষেপের উপর একটি সরল দিক জ্ঞাপন রেখা । এই রেখা দ্রাঘিমারেখাগুলির সাথে একই কোণে ছেদ করে এবং অক্ষাংশগুলির সাথে সমান কোণে অবস্থান করে । এর ফলে মানচিত্র তথা ভূ – গোলকের উপর অপরিবর্তনীয় বেয়ারিং রেখার উদ্ভব হয় । এটি নাবিকেরা বেশি ব্যবহার করেন ।

19. আন্তর্জাতিক অভিক্ষেপ ( INTERNATIONAL PROJECTION ) । 

Ans: যে অভিক্ষেপে অক্ষরেখা ও দ্রাঘিমারেখাগুলি এক মিলিয়ন ( দশ হাজার ) স্কেলে প্রতি এক ডিগ্রী বরাবর অঙ্কিত হয় , তাকে আন্তর্জাতিক অভিক্ষেপ বলে । ব্যবহারিক উদ্দেশ্যের জন্য এটি অর্থোমরফিক ও সম – আয়তনিক উভয় গুণসম্পন্ন । বৃহৎ স্কেলের স্থানীয় ভূ – বৈচিত্র্যসূচক মানচিত্রের ( Topographical Map ) জন্য এই অভিক্ষেপ খুবই উপযোগী ।

20. নিরক্ষরেখার দুই পার্শ্বে কোন অভিক্ষেপ প্রযোজ্য ? 

Ans: নিরক্ষরেখার দুই পার্শ্বে ( 20 ° N – 20 ° S ) অর্থাৎ নিরক্ষীয় অঞ্চলে বেলন অভিক্ষেপ ( Cylindrical Projection ) সবচেয়ে আদর্শ । এছাড়া সিনুসোইডাল অভিক্ষেপ ( Sinusoidal Projection ) ও গলের 7 . অভিক্ষেপ ( Galls Projection ) – ও এই নিরক্ষীয় অঞ্চলের মানচিত্রে উপযোগী । আফ্রিকা , দক্ষিণ আমেরিকা ইত্যাদি নিরক্ষীয় অঞ্চলের মানচিত্র অঙ্কনে তাই এই অভিক্ষেপগুলি ব্যবহৃত হয় ।

21. নাতিশীতোর মধ্য অক্ষাংশের জন্য কোন অভিক্ষেপ অধিক উপযুক্ত ? 

Ans: মধ্য অক্ষাংশের জন্য শাঙ্কর অভিক্ষেপ ( Conical Projection ) সবচেয়ে আদর্শ ( One and two standard Parallel ) । এছাড়া বোনস্ অভিক্ষেপ ( Bonne’s Projection ) ; সিনুসোইডাল অভিক্ষেপ ( Sinusoidal Projection ) ও গল অভিক্ষেপ ( Gall Projection ) – ও এই অঞ্চলের মানচিত্র অঙ্কনে উপযোগী । তাই বাল্টিক সাগর অধ্যুষিত দেশসমূহ , যেমন- স্পেন , নেদারল্যান্ড , ফ্রান্স ইত্যাদি দেশে এই অভিক্ষেপ আদর্শ ।

22. মেরু অঞ্চলের মানচিত্র অঙ্কনে কোন্ কোন্ অভিক্ষেপ কার্যকরী ? 

Ans: মেরু অঞ্চলের স্থলভাগ ও জলভাগ অঙ্কনের জন্য শীর্ষদেশীয় জেনিথাল বর্গের অভিক্ষেপ ( Polar Zenthal Projection ) সবচেয়ে কার্যকরী ।

23. আন্টার্কটিকা মহাদেশ প্রদর্শনের জন্য কোন অভিক্ষেপ সর্বাধিক উল্লেখযোগ্য ? 

Ans: আন্টার্কটিকা মহাদেশ দেখানোর জন্য Polar Zenithal Projection সবচেয়ে উপযুক্ত । প্রথমত এই অভিক্ষেপের অন্যতম গুণ সঠিক আকৃতি বজায় রাখা । আন্টার্কটিকার সর্বত্র আকৃতি ঠিক রাখার জন্য এই অভিক্ষেপ প্রয়োজন । দ্বিতীয়ত , এই অভিক্ষেপে কেন্দ্রের দিগাংশ সর্বত্র ঠিক থাকে । আন্টার্কটিকা মেরুতে অবস্থিত হওয়ায় এই অভিক্ষেপ আদর্শ । তৃতীয়ত , এই অভিক্ষেপে আন্টার্কটিকা মানচিত্রের অক্ষরেখা ও দ্রাঘিমারেখার স্কেল সর্বত্র সমান থাকে ।

24. আন্টার্কটিকা মহাদেশকে দেখানোর জন্য কোন অভিক্ষেপ উপযুক্ত ?

Ans: আন্টার্কটিকার মানচিত্র অঙ্কনের জন্য Polar Zenithal শ্রেণির যেকোন মানচিত্র অভিক্ষেপ ব্যবহার করা যেতে পারে । তার মধ্যে Polar zenithal equal area projection অধিক মাত্রায় কার্যকরী হয় । এছাড়া ‘ Orthomorphic ‘ এবং ‘ Stereographic ’ অভিক্ষেপ দিয়েও কুমেরু মহাদেশের মানচিত্র অঙ্কন করা যায় । Equal area projection- এর ক্ষেত্রে মানচিত্রের আয়তন ও প্রকৃত আয়তনের সঙ্গে সামস্য থাকে । আন্টার্কটিকা মহাদেশকে দেখানোর জন্য উপরোক্ত Projection গুলির প্রয়োজন । কারণ ( i ) বৃত্তাকার বলে দেখাতে সুবিধা । ( ii ) Polar zenithal orthographic projection- এর ক্ষেত্রে কেন্দ্র থেকে বিচ্যুতি হার কম হয় । ( iii ) এই অভিক্ষেপে অক্ষরেখা ও দ্রাঘিমারেখার মধ্যে একটা সমতা থাকে ।

25. মার্কেটর অভিক্ষেপ নাবিকদের খুবই আদর্শ কেন অথবা , পৃথিবীর সমুদ্র পথ দেখানোর জন্য কোন্ অভিক্ষেপ ব্যবহৃত হয় অথবা , মার্কেটর অভিক্ষেপের বিশেষ গুণ । 

Ans: সমুদ্রে চলাচলকারী বিভিন্ন দেশের নাবিকদের জন্য সঠিক দিক পাওয়া অত্যন্ত প্রয়োজনীয় । সমুদ্রে সঠিক দিক পাবার জন্য মার্কেটর অভিক্ষেপের কোন বিকল্প নেই । কারণ এটি এমন একটি অভিক্ষেপ যার উপর সরলরেখা দ্বারা যে কোন বিন্দু থেকেই নির্ভুলভাবে কম্পাস বিয়ারিং পাওয়া যায় ও এই অভিক্ষেপে বিভিন্ন বিন্দুকে সরলরেখায় যোগ করলে ঐ রেখা স্বল্পতর দূরত্বকে নির্দেশ করে । ফলে নৌ পরিচালনায় ক্ষুদ্রতম রাস্তা সহজেই নিরূপিত হওয়ায় নাবিকদের জাহাজ চালানোর সুবিধা হয় ।

26. ভারতের মানচিত্র অঙ্কনের অভিক্ষেপ নির্বাচন করো । 

Ans: ভারত 8 ° 4 ′ উত্তর থেকে 37 ° 6 ′ উত্তর অক্ষাংশ এবং 6807 ‘ পূর্ব থেকে 97 ° 25 ‘ পূর্ব দ্রাঘিমার মধ্যে বিস্তার । ভারতের পূর্ব – পশ্চিমে বিস্তার বিশাল নয় ও প্রান্তিক অঞ্চল ততটা বিকৃত হয় না । তাই ভারতের মানচিত্রের জন্য বোনস্ অভিক্ষেপ ( Bonne’s Projection ) সবচেয়ে উপযুক্ত ।

27. Mercators অভিক্ষেপের ব্যবহার কী ? 

Ans: মার্কেটরস অভিক্ষেপ হল এক ধরণের Cylindrical Orthomorphic Projection । এটি অঙ্কন করেছিলেন Flemish Mercator এবং Wright এর ব্যবহারগুলি হল i ) সমুদ্রে চলাচলকারী নাবিকদের জন্য সঠিক দিক জ্ঞাপন একটি অভিক্ষেপ হল Mercator’s অভিক্ষেপ । ii ) পৃথিবীর মানচিত্র প্রস্তুতিতে এই অভিক্ষেপ ব্যবহৃত হয় । ( iii ) বায়ুপ্রবাহ ও সমুদ্রস্রোতের মানচিত্র প্রস্তুতিতে এটি ব্যবহৃত হয় । iv ) এটি এমন একটি অভিক্ষেপ যার উপর সরলরেখা দ্বারা যেকোন বিন্দু থেকেই নির্ভুলভাবে কম্পাস বিয়ারিং পাওয়া যায় এবং এই অভিক্ষেপে বিভিন্ন বিন্দুকে যোগ করলে ঐ রেখা স্বল্পতর নির্দেশ করে । v ) এই অভিক্ষেপের দ্বারা নৌ পরিচালনায় ক্ষুদ্রতম রাস্তা সহজেই নিরুপিত হয় ।

মেমরী প্লাস : 

মানচিত্র অভিক্ষেপের বিবর্তনের ইতিহাস ( Brief History of Map Projection ) : মানচিত্র বিবর্তনের ইতিহাস অতি প্রাচীন । শ্রীক অদ কবি হোমারের সময় থেকেই এই অভিক্ষেপের ধারণা জন্মায় । 600 খ্রীষ্টপূর্বাব্দে মিলেটাসের প্যালেস ( Thales of Miletus ) সর্বপ্রথম সফলভাবে সূর্যগ্রহণের কথা বলেন । প্রায় 580 খ্রীষ্টপূর্বাব্দে এ্যানাসিনেস্তার ( Anaximander ) সর্বপ্রথম পৃথিবীর মানচিত্র আঁকার কৃতিত্ব দেখান । 500 খ্রীষ্টপূর্বাব্দে দেকাটিয়াস ( Hecataeus ) এ্যা व মিল্ডারের মানচিত্রটি সংশোধন করেন । পরবর্তী সময়ে হেরোডোটাস ( Herodotus ) ও ডেমোক্লিটাস ( Democritus ) পৃথিবীর মানচিত্র প্রস্তুত করেন । ইরাটোসথেনেস পৃথিবীর গোলাকার আকৃতি , অক্ষরেখা ও দ্রাঘিমারেখার অবস্থান দ্বারা পৃথিবীর এক বিজ্ঞানসম্মত মানচিত্র অঙ্কন করেন । তাই ইরাটোসথেনেসকে ( Eratosthenes ) মানচিত্র অঙ্কনের পিতা বঙ্গা হয় । পরবর্তীকালে হিপারচাস ( Hipparchus ) , স্টাবো ( Strabo ) , টলেমীর ( Ptolemy ) তে মানচিত্র আরো আধুনিকতা পায় ।

আবার আলেকজান্ডারের দ্বিগ্বিজয় , মার্কোপোলো , ইবন বতুতা প্রমুখ পরিব্রাজকের ভ্রমণসঙ্গ আবিষ্কার , কলম্বাস , ভাস্কো – দা – গামা , বালবোয়া , ম্যাগেলান , টাসম্যান ও জেনশ কুকের নতুন পৃথিবীর নতুন রাস্তা আবিষ্কৃত হওয়ায় পৃথিবীর মানচিত্র পরিপূর্ণতা পায় ।

FILE INFO : মানচিত্র অভিক্ষেপ – Methods Map Projection | ব্যবহারিক ভূগোল – ভূগোল প্রশ্নোত্তর (Practical Geography – Geography)

File Details:

PDF Name : মানচিত্র অভিক্ষেপ – Methods Map Projection | ব্যবহারিক ভূগোল – ভূগোল প্রশ্নোত্তর (Practical Geography – Geography)

Price : FREE

Download Link : Click Here To Download

INFO : Geography – Practical Geography – Question and Answer | ভূগোল – ব্যবহারিক ভূগোল – মানচিত্র অভিক্ষেপ (Methods Map Projection) প্রশ্নোত্তর

” ভূগোল (Geography) – ব্যবহারিক ভূগোল (Practical Geography) – মানচিত্র অভিক্ষেপ – Methods Map Projection “ একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ টপিক বিভিন্ন শ্রেনীর পরীক্ষা (Class 5, 6, 7, 8, 9,  Madhyamik, Class 11, Higher Secondary – HS, College & University Exam) এবং বিভিন্ন চাকরির (WBCS, WBSSC) পরীক্ষায় এখান থেকে প্রশ্ন অবশ্যম্ভাবী । সে কথা মাথায় রেখে BhugolShiksha.com এর পক্ষ থেকে ভূগোল পরীক্ষা প্রস্তুতিমূলক প্রশ্নো ও উত্তর উপস্থাপনের প্রচেষ্টা করা হলাে। ছাত্রছাত্রী, পরীক্ষার্থীদের উপকারে লাগলে, আমাদের প্রয়াস  ভূগোল (Geography) ব্যবহারিক ভূগোল (Practical Geography) – মানচিত্র অভিক্ষেপ – Methods Map Projection / মানচিত্র অভিক্ষেপ সংক্ষিপ্ত ছোট প্রশ্ন ও উত্তর / মানচিত্র অভিক্ষেপ (ব্যবহারিক ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Methods Map Projection (Practical Geography – Geography)  SAQ Practical Geography / Short Question and Answer / মানচিত্র অভিক্ষেপ (ব্যবহারিক ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Methods Map Projection (Practical Geography – Geography) Quiz / মানচিত্র অভিক্ষেপ (ব্যবহারিক ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Methods Map Projection (Practical Geography – Geography) QNA / মানচিত্র অভিক্ষেপ (ব্যবহারিক ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Methods Map Projection (Practical Geography – Geography) Question and Answer FREE PDF Download ) পরীক্ষা প্রস্তুতিমূলক প্রশ্নোত্তর সফল হবে।

মানচিত্র অভিক্ষেপ (ব্যবহারিক ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Methods Map Projection (Practical Geography – Geography) Question and Answer in Bengali

স্কুল, কলেজ ও বিভিন্ন ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনার ডিজিটাল মাধ্যম BhugolShiksha.com । এর প্রধান উদ্দেশ্য পঞ্চম শ্রেণী থেকে নবম শ্রেণী, মাধ্যমিকউচ্চ মাধ্যমিক সমস্ত বিষয় এবং গ্রাজুয়েশনের শুধুমাত্র ভূগোল বিষয়কে  সহজ বাংলা ভাষায় আলোচনার মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীদের কাছে সহজ করে তোলা।

মানচিত্র অভিক্ষেপ (ব্যবহারিক ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Methods Map Projection (Practical Geography – Geography)

আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ সময় করে আমাদের এই ” মানচিত্র অভিক্ষেপ (ব্যবহারিক ভূগোল – ভূগোল) প্রশ্ন ও উত্তর | Methods Map Projection (Practical Geography – Geography) ” পােস্টটি পড়ার জন্য। এই ভাবেই আমাদের ভূগোল শিক্ষা – Bhugol Shiksha – BhugolShiksha.com ওয়েবসাইটের পাশে থাকুন। ভূগোল বিষয়ে যেকোনো প্ৰশ্ন উত্তর জানতে এই ওয়েবসাইটটি ফলাে করুন এবং নিজেকে ভৌগোলিক  তথ্য সমৃদ্ধ করে তুলুন , ধন্যবাদ।

Subscribe Our YouTube Channel

Join Our Telegram Channel

E-mail Subscription