জ্যাক মা এর জীবনী - Jack Ma Biography in Bengali
জ্যাক মা এর জীবনী - Jack Ma Biography in Bengali

জ্যাক মা এর জীবনী

Jack Ma Biography in Bengali

জ্যাক মা এর জীবনী – Jack Ma Biography in Bengali : জ্যাক মা (Jack Ma) একজন চীনা উদ্যোক্তা, যিনি বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে বড় অনলাইন পাইকারী ক্রয়-বিক্রয় সাইট আলিবাবা’র প্রতিষ্ঠাতা , সাবেক সিইও, ও বর্তমান নির্বাহী চেয়ারম্যান। ২০১৯ এর এপ্রিল মাসের হিসাব অনুযায়ী জ্যাক মা (Jack Ma) এর বর্তমান সম্পদের পরিমান ৪০.১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার! এই বিপুল সম্পদ জ্যাক মাকে (Jack Ma) বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে ধনী মানুষদের একজন করেছে।

  আলিবাবা ডট কম এর কর্ণধার এবং চীনের শীর্ষ ধনী ব্যক্তি জ্যাক মা এর একটি সংক্ষিপ্ত জীবনী । জ্যাক মা এর জীবনী – Jack Ma Biography in Bengali বা জ্যাক মা এর আত্মজীবনী বা (Jack Ma Jivani Bangla. A short biography of Jack Ma. Jack Ma Birth, Place, Life Story, Life History, Biography in Bengali) জ্যাক মা এর জীবন রচনা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

জ্যাক মা কে ? Who is Jack Ma ? 

জ্যাক মা (Jack Ma) জনপ্রিয় ট্রেডিং সাইট আলিবাবা ডট কম এর কর্ণধার এবং চীনের শীর্ষ ধনী ব্যক্তি। বর্তমানে জ্যাক মা (Jack Ma) এর সম্পদের পরিমাণ ২৫০০ কোটি ডলার। আলিবাবাতে জ্যাক মা (Jack Ma) এর ৮% স্টেক আছে এবং পেমেন্ট প্রক্রিয়াকরণ প্রতিষ্ঠান আলি পে তে তার স্টেক প্রায় ৫০%।

জ্যাক মা এর জীবনী – Jack Ma Biography in Bengali :

নাম (Name) জ্যাক মা (Jack Ma)
জন্ম (Birthday) ১০ সেপ্টেম্বর ১৯৬৪ (10 September 1964) 
জন্মস্থান (Birthplace) হাংচৌ, চচিয়াং প্রদেশ, চীন
পিতামাতা (Parents) মা-লাইফা (পিতা / বাবা)

মা চুই ওয়েনচাই (মাতা / মা) 

জাতীয়তা চিনা 
পেশা (Occupation) প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান আলিবাবা গ্রুপ
দাম্পত্য সঙ্গী (Spouse) 张瑛 / Zhāng Yīng

জ্যাক মা জন্ম ও পরিবার – Jack Ma Birthday and Family : 

“জ্যাক মা ইউন” এর জন্ম হয় ১৯৬৪ সালের ১৫ই অক্টোবর, চীনের ঝি-জিয়াং প্রদেশের হ্যাং-চাও শহরে, এক দরিদ্র পরিবারে।

 তাঁর বাবা-মা ছিলেন পেশাদার গল্প বলিয়ে ও সঙ্গীত শিল্পী। এই পেশায় আয় রোজগার খুব বেশি হত না।  দুই ভাই ও এক বোনের মাঝে দ্বিতীয় মা ইউন যে এতবড় বিজনেস ম্যাগনেট হবেন – তা কেউ স্বপ্নেও ভাবেনি।

জ্যাক মা এর ছোটবেলা – Jack Ma Childhood :

 ছোটবেলায় তাঁর প্রথম প্যাশন ছিলো ইংরেজী ভাষা। ঐ বয়সেই জ্যাক মা (Jack Ma) বুঝে গিয়েছিলেন, অবস্থার পরিবর্তন করতে হলে ইংরেজী শেখার কোনও বিকল্প নেই। হ্যাং-চাও ইন্টারন্যাশনাল হোটেলে আসা ইংরেজী-ভাষী পর্যটকদের ফ্রি গাইড হিসেবে কাজ করতেন জ্যাক মা (Jack Ma), ইংরেজী ভাষায় লিসনের বিনিময়ে!

জ্যাক মা (Jack Ma) ৯ বছর ধরে তিনি ৭০ মাইল পথ সাইকেল চালিয়ে পর্যটকদের এলাকা ঘুরিয়ে দেখাতেন, শুধুমাত্র ইংরেজী শেখার জন্য!

জ্যাক মা এর শিক্ষাজীবন – Jack Ma Education Life : 

ইলন মাস্ক বা বারাক ওবামার মত জ্যাক মা তুখোড় ছাত্র ছিলেন না। চীনে কলেজ ভর্তি পরীক্ষা বছরে মাত্র একবার হত। সব কলেজেই একই সময়ে পরীক্ষা হত, এবং পরীক্ষায় পাশ করে কলেজে সুযোগ পেতে জ্যাক মার ৪ বছর লেগেছিল। 

জ্যাক মা (Jack Ma) ১৯৮৮ সালে হ্যাং-চাও টিচার্স ইন্সটিটিউট (বর্তমান ‘হ্যাং-চাও নরমাল ইউনিভার্সিটি) এর ইংরেজী বিভাগ থেকে বি.এ ডিগ্রী নিয়ে বের হন।

 এর পর ২০০৬ সালে বেইজিং এর ‘চিউং-কং গ্রাজুয়েট স্কুল অব বিজনেস’ থেকে ব্যবসায় শিক্ষায় ডিগ্রী নেন।

জ্যাক মা এর ব্যার্থতা : 

আলিবাবার আগে জ্যাক মা সত্যিসত্যিই একজন পুরোপুরি ব্যর্থ মানুষ ছিলেন। ৪বার ফেল করে কলেজে ঢোকার পর, যখন পাশ করে বের হলেন – তখন ব্যর্থতা কাকে বলে, তা তিনি আবারও হাড়ে হাড়ে টের পেলেন। জ্যাক মার জীবন কাহিনী এর  সবচেয়ে করুণ, কিন্তু শক্তিশালী অংশ এটি। 

 ‘হ্যাং-চাও দিয়ানজি ইউনিভার্সিটি’তে ইংরেজীর লেকচারার হিসেবে যোগ দেয়ার আগে, তিনি ৩০টি চাকরির জন্য চেষ্টা করেন, এবং প্রতিটিতেই ব্যর্থ হন।

জ্যাক মা এর ইন্টারনেট এর সাথে পরিচয় : 

জ্যাক মা (Jack Ma) তাঁর ইংরেজী শিক্ষকের চাকরিটা বেশ উপভোগ করতেন।  কিন্তু বেতন ছিল খুবই কম। মাসে মাত্র ১২ ডলার! এই সামান্য বেতনে বলতে গেলে কিছুই করা যায় না।

 তাঁর উদ্দেশ্য ছিল দারিদ্র থেকে বের হয়ে আসা।  এত কষ্ট করে পড়াশুনা করার পেছনেও দারিদ্র থেকে মুক্তি পাওয়ার ইচ্ছা ছিল।  কিন্তু  পড়াশুনার পর সম্মানজনক একটা চাকরি পেয়েও তাঁর আর্থিক অবস্থা খারাপই রয়ে গেল।

জ্যাক মা (Jack Ma) এক সময়ে মনে হল, তিনি তো ইংরেজীর জ্ঞান কাজে লাগিয়েই একটি ব্যবসা শুরু করতে পারেন।  ৯০ দশকের একদম শুরুর দিকে তিনি তাঁর অনুবাদ সংস্থা বা ট্রান্সলেশন ফার্ম খুলে বসলেন।  অর্থের বিনিময়ে চীনা ভাষা থেকে ইংরেজী, এবং ইংরেজী থেকে চীনা ভাষায় বিভিন্ন জিনিস অনুবাদ করতেন।  মাঝে মাঝে দোভাষীর কাজও করতেন।

আলিবাবার প্রতিষ্ঠা : 

১৯৯৮ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত জ্যাক মা চীনের বৈদেশিক বানিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন একটি আইটি কোম্পানীর প্রধান হিসেবে কাজ করেন।

১৯৯৯ সালে চাকরি ছেড়ে দিয়ে জ্যাক মা (Jack Ma) নিজের শহর হ্যাং-চাও এ ফিরে আসেন এবং ১৮ জন বন্ধু মিলে অনলাইন পাইকারি পন্য বেচাকেনার সাইট আলিবাবা প্রতিষ্ঠার কাজে হাত দেন।

 আলিবাবা এর নামকরন এর ইতিহাস বলতে গিয়ে, জ্যাক মা (Jack Ma) বলেছিলেন:

“শুরু করার সময়ে আমার মনেহয়েছিল, ইন্টারনেট যেহেতু একটি বৈশ্বিক ব্যাপার, আমাদের প্রতিষ্ঠানের নামটিও বৈশ্বিক হওয়া উচি‌ৎ, সেইসাথে নামটি যেন সহজেই চেনা যায়।  সেই সময়ে Yahooনামটি ছিল সেরা – আমি অনেক দিন ধরে এমন একটি নাম বের করার চেষ্টা করছিলাম ।  তারপর হঠা‌ৎ মনে হল আলিবাবা নামটি ভালো হতে পারে।

সৌভাগ্যই বলতে হবে, চিন্তাটি মাথায় আসার সময়ে আমি সানফ্রান্সিস্কোর একটি রেস্টুরেন্টে দুপুরের খাবার খাচ্ছিলাম।  ওয়েট্রিস খাবার সার্ভ করতে এলে, আমি তাকে বললাম আলিবাবাকে চেনে কিনা। সে বলল সে চেনে। আমি জিজ্ঞাসা করলাম, আলিবাবা কি? – সে বলল “চিচিং ফাক”! – অসাধারণ!

রাস্তায় বের হবার পর আমি প্রায় ২০ জন মানুষকে আলিবাবা সম্পর্কে প্রশ্ন করলাম। সবাই আলিবাবা, ৪০ চোর ও তাদের গুপ্তধন – সবই জানে।  আমি বুঝে গেলাম এটা আসলেই দারুন একটা নাম হতে পারে। বলতে গেলে সবাই এটা একবারে ধরতে ও মনে রাখতে পারবে, আর নামটা শুরু হয় A দিয়ে”।

১৯৯৯ এর অক্টোবর ও ২০০০ এর জানুয়ারীতে দুইবারে মোট ২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের ইনভেস্টমেন্ট পায় আলিবাবা। 

তাঁদের এই পরিকল্পনার উদ্দেশ্য ছিল, চীন এর আভ্যন্তরীণ ই-কমার্স মার্কেটকে উন্নত করা।  এবং সেই সাথে, চীন দেশের ক্ষূদ্র ও কুটির শিল্পকে আন্তর্জাতিক বাজারের প্রতিযোগীতায় এগিয়ে যেতে সাহায্য করা।

২০০৩ সালে জ্যাক মা আন্তর্জাতিক ই-কমার্স সিস্টেমের উন্নতির জন্য eBay এর আদলে Taobao Marketplace, আলি-পে, আলি মামা, এবং Lynx প্রতিষ্ঠা করেন।

[আরও দেখুন, ইলন মাস্ক এর জীবনী – Elon Musk Biography in Bengali]

এইসব উদ্যোগ সেই সময়ে পাগলামি হিসেবে দেখা হয়েছিল।  কেউ ভাবেনি যে প্রতিটি উদ্যোগেই জ্যাক মা সফল হবেন।  সেই সময়ে একটি পত্রিকা তাঁকে ‘ক্রেজি জ্যাক’ বা ‘পাগল জ্যাক’ – নামে অভিহিত করেছিল।

কিন্তু অল্পদিনের মধ্যেই দেখা গেল, তাওবাও দারুন সফল একটি ই-কমার্স সাইট হয়ে উঠেছে।  এই সাফল্যের কারণে ই-বে বিপুল অর্থের বিনিময়ে তাওবাওকে কিনে নিতে চায়, কিন্তু জ্যাক মা সেই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন, এবং এর বদলে ইয়াহুর সহপ্রতিষ্ঠাতা জেরি ইয়াং এর কাছ থেকে ১ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিনিয়োগ গ্রহণ করেন।

বর্তমানে তাওবাও মার্কেটপ্লেস বিশ্বের এক নম্বর ই-কমার্স ওয়েবসাইট।  এবং বিশ্বের সবচেয়ে বেশি ভিজিট হওয়া ওয়েবসাইটগুলোর মধ্যে অষ্টম।  ২০১৮ সালের এ্যালেক্সা রিপোর্ট অনুযায়ী, প্রতি মাসে গড়ে ৬১ কোটি ৭০ লাখ মানুষ সাইটটি ব্যবহার করে।

জ্যাক মা এর ব্যাক্তিগত জীবন – Jack Ma Personal life : 

স্টিভ জবস এর মত জ্যাক মা-ও তাঁর পারিবারিক ও ব্যক্তিগত জীবনকে মিডিয়ার বাইরে রাখতে পছন্দ করেন।  তাঁর পরিবারের আভ্যন্তরীণ বিষয় সম্পর্কে খুব বেশি তথ্য পাওয়া যায় না।

ছাত্র অবস্থায় জ্যাক মার পরিচয় হয় ক্যাথি ঝাং এর সাথে।  পরবর্তীতের তাঁরা বিয়ে করেন।  জ্যাক মার সাফল্যের পেছনে ক্যাথির অবদান জ্যাক সব সময়েই স্বীকার করেন।

৫ ফুট ৫ ইঞ্চি উচ্চতার জ্যাক মোটেও সুদর্শন নন।  ক্যাথির সাথে তাঁর পরিচয়ের সময়ে জ্যাক ছিলেন একজন ব্যর্থ মানুষ।  কিন্তু তারপরও ক্যাথি জ্যাকের প্রেমে পড়েন।  এ প্রসঙ্গে ক্যাথি পরে বলেছেন: “এটা ঠিক যে ও সুদর্শন নয়।  কিন্তু ওর মাঝে এমন কিছু ব্যাপার ছিল, বা আছে, যা আমি অন্য কোনও পুরুষের মাঝে কখনওই খুঁজে পাইনি”।

[আরও দেখুন, মার্ক জুকারবার্গ এর জীবনী – Mark Zuckerberg Biography in Bengali]

জ্যাক মা এর পুরস্কার ও স্বীকৃতি : Jack Ma Prizes : 

  • ২০০৪ সালে চীনের জাতীয় টেলিভিশন তাঁকে বছরের সেরা ১০ অর্থনৈতিক ব্যক্তির একজন হিসেবে ঘোষণা করে।  এটাই ছিল তাঁর প্রথম বড় স্বীকৃতি।
  • ২০০৫ সালে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম তাঁকে একজন তরুন আন্তর্জাতিক নেতা হিসেবে নির্বাচন করে।
  • ২০০৫ সালে প্রথমবারের মত তিনি পৃথিবীর সবচেয়ে ক্ষমতাবান ২৫ জন ব্যবসায়িক ব্যক্তির তালিকায় স্থান পান।
  • ২০০৮ সালে জ্যাক মা বিশ্বের সেরা ৩০জন সিইওর একজন হিসেবে স্বীকৃতি পান।
  • ২০০৯ সালে টাইম ম্যাগাজিন তাঁকে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাবান ১০০ ব্যক্তির তালিকায় স্থান দেয়।
  • ২০০৯ সালে জ্যাক মাকে চীনের সবচেয়ে সম্মানিত ১০জন উদ্যোক্তার একজন ঘোষণা করা হয়।
  • একই বছর চীনের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন তাঁকে দশকের সেরা ব্যবসায়িক নেতার পুরস্কার প্রদান করে।
  • ২০১৩ সালের নভেম্বরে হংকং ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এ্যান্ড টেকনোলজি জ্যাক মা কে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রী প্রদান করে।
  • ২০১৪ সালে ফোর্বস ম্যাগাজিন তাঁকে বিশ্বের ৩০তম ক্ষমতাবান ব্যক্তি হিসেবে তালিকাভুক্ত করে।
  • ২০১৫ সালে এশিয়ান এ্যাওয়ার্ড কতৃপক্ষ জ্যাক মাকে বছরের সেরা উদ্যোক্তার পুরস্কার প্রদান করে।
  • ২০১৭ সালে ফরচুন ম্যাগাজিন তাঁকে বর্তমান বিশ্বের শ্রেষ্ঠ ৫০ নেতার মাঝে ২য় স্থান দেয়।
  • ২০১৮ এর মে মাসে প্রযুক্তিতে অবদানের জন্য ইউনিভার্সিটি অব হংকং তাঁকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রী প্রদান করে। 

জ্যাক মা এর জীবনী – Jack Ma Biography in Bengali FAQ :

  1. জ্যাক মা কে ?

Ans: জ্যাক মা হলো জনপ্রিয় ট্রেডিং সাইট আলিবাবা ডট কম এর কর্ণধার এবং চীনের শীর্ষ ধনী ব্যক্তি।

  1. জ্যাক মা এর জন্ম কবে হয় ?

Ans: জ্যাক মা এর জন্ম হয় ১০ সেপ্টেম্বর ১৯৬৪ সালে।

  1. জ্যাক মা এর মায়ের নাম কী ?

Ans: জ্যাক মা এর মায়ের নাম মা চুই ওয়েনচাই ।

  1. জ্যাক মা এর জন্ম কোথায় হয় ?

Ans: জ্যাক মা এর জন্ম হয় চিনে ।

  1. জ্যাক মা এর পিতার নাম কী ?

Ans: জ্যাক মা এর পিতার নাম মা-লাইফা ।

  1. কত সালে ফোর্বস ম্যাগাজিন তাঁকে বিশ্বের ৩০তম ক্ষমতাবান ব্যক্তি হিসেবে তালিকাভুক্ত করে?

Ans: ২০১৭ সালে ফোর্বস ম্যাগাজিন তাঁকে বিশ্বের ৩০তম ক্ষমতাবান ব্যক্তি হিসেবে তালিকাভুক্ত করে।

  1. কত সালে প্রথমবারের মত তিনি পৃথিবীর সবচেয়ে ক্ষমতাবান ২৫ জন ব্যবসায়িক ব্যক্তির তালিকায় স্থান পান ?

Ans: ২০০৫ সালে প্রথমবারের মত তিনি পৃথিবীর সবচেয়ে ক্ষমতাবান ২৫ জন ব্যবসায়িক ব্যক্তির তালিকায় স্থান পান ।

[আরও দেখুন, স্টিভ জবস এর জীবনী – Steve Jobs Biography in Bengali

আরও দেখুন, জেফ বেজোস এর জীবনী – Jeff Bezos Biography in Bengali

আরও দেখুন, বিল গেটস এর জীবনী – Bill Gates Biography in Bengali

আরও দেখুন, সুন্দর পিচাই এর জীবনী – Sundar Pichai Biography in Bengali]

জ্যাক মা এর জীবনী – Jack Ma Biography in Bengali

   অসংখ্য ধন্যবাদ সময় করে আমাদের এই ” জ্যাক মা এর জীবনী – Jack Ma Biography in Bengali  ” পােস্টটি পড়ার জন্য। জ্যাক মা এর জীবনী – Jack Ma Biography in Bengali পড়ে কেমন লাগলো কমেন্টে জানাও। আশা করি এই জ্যাক মা এর জীবনী – Jack Ma Biography in Bengali পোস্টটি থেকে উপকৃত হবে। এই ভাবেই BhugolShiksha.com ওয়েবসাইটের পাশে থাকো যেকোনো প্ৰশ্ন উত্তর জানতে এই ওয়েবসাইট টি ফলাে করো এবং নিজেকে  তথ্য সমৃদ্ধ করে তোলো , ধন্যবাদ।

Subscribe Our YouTube Channel

Join Our Telegram Channel

E-mail Subscription