নেলসন ম্যান্ডেলার জীবনী - Nelson Mandela Biography in Bengali
নেলসন ম্যান্ডেলার জীবনী - Nelson Mandela Biography in Bengali

নেলসন ম্যান্ডেলার জীবনী

Nelson Mandela Biography in Bengali

নেলসন ম্যান্ডেলার জীবনী – Nelson Mandela Biography in Bengali : নেলসন ম্যান্ডেলা ছিলেন বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং আকর্ষণীয় রাষ্ট্রনায়কদের একজন, যিনি দক্ষিণ আফ্রিকায় বর্ণবাদের অবসান ঘটিয়ে বহু বর্ণ ভিত্তিক গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।

আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্ব, প্রখর রসবোধ, তিক্ততা ভুলে বৈরি প্রতিপক্ষের দিকে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দেয়ার মত উদারতা এবং তাঁর বর্ণাঢ্য ও নাটকীয় জীবন কাহিনী—এসব মিলিয়ে নেলসন ম্যান্ডেলা (Nelson Mandela) ছিলেন এক জীবন্ত কিংবদন্তী।

  মহান সংগ্রামী নেতা নেলসন ম্যান্ডেলা এর একটি সংক্ষিপ্ত জীবনী । নেলসন ম্যান্ডেলা এর জীবনী – Nelson Mandela Biography in Bengali বা নেলসন ম্যান্ডেলা এর আত্মজীবনী বা (Nelson Mandela Jivani Bangla. A short biography of Nelson Mandela. Nelson Mandela Birth, Place, Life Story, Life History, Biography in Bengali) নেলসন ম্যান্ডেলা এর জীবন রচনা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

নেলসন ম্যান্ডেলা কে ছিলেন ? Who is Nelson Mandela ?

নেলসন ম্যান্ডেলা (Nelson Mandela) ছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদ-বিরোধী আন্দোলনের বিপ্লবী, রাজনৈতিক নেতা এবং প্রথম গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত রাষ্ট্রপতি। নেলসন ম্যান্ডেলা (Nelson Mandela) ১৯৯৪ থেকে ১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত দক্ষিণ আফ্রিকার রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেন। নেলসন ম্যান্ডেলা (Nelson Mandela) দেশটির প্রথম কৃষাঙ্গ রাষ্ট্রপ্রধান। আফ্রিকান জাতীয়তাবাদ ও সমাজতন্ত্রের আদর্শের ধারক নেলসন ম্যান্ডেলা (Nelson Mandela) ১৯৯১ থেকে ১৯৯৭ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেসের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

মহান সংগ্রামী নেতা নেলসন ম্যান্ডেলার জীবনী – Nelson Mandela Biography in Bengali :

নাম (Name) নেলসন ম্যান্ডেলা (Nelson Mandela)
জন্ম (Birthday) ১৮ জুলাই ১৯১৮ (18th July 1918)
জন্মস্থান (Birthplace) এম্‌ভেজো, দক্ষিণ আফ্রিকা
জাতীয়তা দক্ষিণ আফ্রিকা
রাজনৈতিক দল আফ্রিকার জাতীয় কংগ্রেস
দাম্পত্য সঙ্গী ইভিলিন ন্‌তকো মাসে (১৯৪৪-১৯৫৭)

উইনি মাদিকিজেলা-ম্যান্ডেলা (১৯৫৭-১৯৯৬)

গ্রাসা মাচেল (১৯৯৮–বর্তমান)

সন্তান মাদিবা থেম্বেকিল 

মাগগাথো লিওয়ানিকা 

মাকাজিউই 

মাকাজিউই 

জিনানি 

জিঞ্জিসোয়া

ধর্ম খ্রিষ্টান ধর্ম
মৃত্যু (Death) ৫ ডিসেম্বর ২০১৩ (5th December 2013)

নেলসন ম্যান্ডেলার জন্ম ও শৈশবকাল – Nelson Mandela Birthday and Childhood :

 ১৯১৮ সালের ১৮ ই জুলাই দক্ষিণ অফ্রিকার থেঙ্গু জনজাতি অধ্যুষিত এক ছোট্ট গ্রামে জন্মেছিলেন রোলিলালা দালিবুঙ্গা । রোলিলালা মানে দুষ্টু ছেলে । অনেকেই তাঁকে তাঁর গোত্র – নাম ‘ মাডিবা ’ বলে ডাকত । বাবা ছিলেন থেম্বু জনজাতির রাজা বা সর্দারের উপদেষ্টা , সম্ভানের ন’বছর বয়সেই মারা যান তিনি । শিশুর দেখাশোনার দায়িত্ব এসে পড়ে ওই সর্দারের উপর । পরে ইংরেজি শিক্ষকের সৌজন্যে তাঁর সাহেবি নাম ‘ নেলসন ’ আদি – নামের সঙ্গে জুড়ে যায়।

নেলসন ম্যান্ডেলার কর্মজীবন – Nelson Mandela Work Life :

 ১৯৪১ সালে , নেলসনের বয়স যখন ২৩ , তখনই অভিভাবকদের স্থির করে দেওয়া বিয়ে থেকে পালিয়ে জোহানেসবার্গে পৌঁছে যান । দু’বছর পর আইনের ডিগ্রি নিতে শ্বেতাঙ্গপ্রধান উইটওয়াটার্সব্র্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে নাম লেখান । দ্রুত দেশের বিভিন্ন অঞ্চল ও জাতিসত্তার মানুষের সঙ্গে তাঁর আলাপ , উদারনৈতিক , বিপ্লবী , আফ্রিকাপন্থী ভাবনা ও ধারণার সঙ্গে — বিশেষ করে আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেসের ( এ . এন সি ) অন্যতম প্রাণপুরুষ ওয়াল্টার সিসুলু – র সঙ্গে পরিচয় এবং বর্ণবিদ্বেষ ও বৈষম্যের বর্বরতা সম্পর্কে চোখ খুলে যাওয়া । ১৯৪২ এ এএন সি’তে যোগ দিলেন । পরের বছর প্রথম বিবাহ , সিসুলুর সম্পর্কিত বোন ইভলিন ম্যাসে – র সঙ্গে । ১৫ বছর পরে ১৯৫৭ জানুয়ারিতে চার সন্তান নিয়ে ইভলিন ম্যান্ডেলার বাড়ি ছেড়ে যান ৷ ইতিমধ্যে নেলসন আইনজীবী হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছেন । ১৯৫২ সালেই জোহানেসবার্গে তাঁর অংশীদার অলিভার তাম্বোর সঙ্গে যৌথ ভাবে ওকালতিও শুরু করেছিলেন , সেই সঙ্গে বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে প্রচার ও আন্দোলনও । ১৯৫২ সালেই তিনি এ এন সি’র ডেপুটি প্রেসিডেন্ট হন । সংখ্যাগরিষ্ঠ কৃষ্ণাঙ্গ মানুষদের উপর শ্বেতাঙ্গ ন্যাশনাল পার্টি সরকারের বঞ্চনা ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ মুখর হন তিনি । আর এ জন্য নেলসন ম্যান্ডেলাকে (Nelson Mandela) দেশদ্রোহের অপরাধে আরও ১৫৫ জনের সঙ্গে গ্রেফতার করা হয় । চার বছর ধরে বিচার চলার পর অভিযোগ প্রত্যাহত হয় । ওদিকে বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে ক্ষোভ ও প্রতিবাদ দেশময় ছড়িয়ে পড়ছে । এরই মধ্যে ১৯৫৮’য় উইনি মাদিকিজেলার সঙ্গে নেলসনের পরিচয় ও বিবাহ হয় ।

ট্রান্সভাল প্রদেশের শাপডিল শহরে কৃষ্ণাঙ্গ মানুষের এক বিক্ষোভ :

 ২১ মার্চ , ১৯৬০ ট্রান্সভাল প্রদেশের শাপডিল শহরে কৃষ্ণাঙ্গ মানুষের এক বিক্ষোভ দমন করতে গিয়ে শেতাঙ্গ পুলিশ গুলি চালিয়ে ৬৯ জনকে হত্যা করে । প্রতিবাদে ফেটে পড়ে দেশ । নিষিদ্ধ ঘোষিত হয় এ এন সি , ম্যান্ডেলা গ্রেফতার হন , ছ’মাস পরে ছাড়াও পান , কিন্তু আন্দোলন ও প্রতিবাদ চলতে থাকে ।

নেলসন ম্যান্ডেলার যাবজ্জীবন কারাদন্ড : Nelson Mandela sentenced to life imprisonment :

 ১৯৬২ , ৫ ই আগস্ট । নাশকতা ও হিংসার মাধ্যমে সরকারকে উৎখাত করার চেষ্টার দায়ে অভিযুক্ত ম্যান্ডেলা গ্রেফতার হলেন । অর্থাৎ রাজদ্রোহ শুরু হল বিচারপর্বঃ প্রসিদ্ধ রিভোনিয়া ট্রায়াল ‘ । কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে নেলসন ম্যান্ডেলা বললেন , “ আমি এমন একটা গণতন্ত্র ও স্বাধীন সমাজের আদর্শে বিশ্বাস করি , যেখানে সকল মানুষই পারস্পরিক সৌহার্দ্যের সঙ্গে এবং সমান সুযোগ নিয়ে বাঁচবে ।… এই আদর্শের জন্য আমি জীবন বিসর্জন দিতেও প্রস্তুত । ১২ ই জুন , ১৯৬৪। রায় ঘোষণা হলঃ নেলসন ম্যান্ডেলার যাবজ্জীবন কারাদন্ড ।

নেলসন ম্যান্ডেলার দেশে বহুজাতিক গণতন্ত্র গড়ার প্রক্রিয়া :

 ১৮ বছর ধরে ম্যান্ডেলাকে রবেন দ্বীপের নিঃসঙ্গ কারাগারে রাখার পরে ১৯৮২ সালে নিয়ে আসা হয় দক্ষিণ আফ্রিকার মূল ভূখন্ডে অবস্থিত পল্সমুর জেলখানায় । ম্যান্ডেলা – সহ এ এন সি – র নেতৃত্ব যখন কারাবন্দি কিংবা স্বেচ্ছানির্বাসনে দেশান্তরী , তখন কৃষ্ণাঙ্গ মহল্লার মানুষেরা নিজেদের মতো যথাসাধ্য আন্দোলন চালিয়ে গেছেন । শত শত কালো মানুষের রক্তে সিক্ত হয়েছে প্রতিটি কৃষ্ণকায় জনপদ । ১৯৮০ সালে নির্বাসিত নেতা বন্ধু অলিভার তাম্বো এক দফা দাবিতে সারা বিশ্ব জুড়ে আন্দোলন গড়ে তোলেন ম্যান্ডেলার মুক্তি চাই । আন্তর্জাতিক চাপ ছিল অনেক আগে থেকেই অর্থনীতির চাপও ছিল । প্রধান রফতানি ‘ হিরে ’ বয়কট করার আন্দোলন মার্কিন মুলুক সহ গোটা দুনিয়ায় ছড়িয়ে পড়ল । হাতেনাতে ফলতে লাগল তার ফল । ১৯৯০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট এফ ডব্লিউ ডি ক্লার্ক এ এন সি – র উপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলেন । 

 অবশেষে , সাতাশ বছর বন্দিত্বের পরে ১১ ই ফেব্রুয়ারি কারাগারের দরজা দিয়ে বেরিয়ে এলেন নেলসন ম্যান্ডেলা । শুরু হল তাঁর অভিভাবকত্বে দেশে বহুজাতিক গণতন্ত্র গড়ার প্রক্রিয়া ।

নেলসন ম্যান্ডেলার নোবেল শান্তি পুরস্কার – Nelson Mandela Nobel peace prize :

 দীর্ঘ অবিচার ও অত্যাচারের প্রতিশোধ যাতে কৃষ্ণাঙ্গরা নিতে উদ্যত না হয় , সে দিকেও তার সজাগ দৃষ্টি । ১৯৯৩ – এর ডিসেম্বরে তাকে ও ডি – ক্লার্ককে যুগ্ম ভাবে নোবেল শান্তি পুরস্কার দেওয়া হল । পাঁচ মাস পরে , এই প্রথম দক্ষিণ আফ্রিকার সব জাতি , বর্ণ , ধর্ম সম্প্রদায়ের মানুষ একসঙ্গে এবং অবাধে তাদের গণতান্ত্রিক ভোটাধিকার প্রয়োগ করে ম্যান্ডেলাকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করলেন ।

ট্রুথ অ্যান্ড রিকনসিলিয়েশন কমিশন :

 ১৯৯৬ সালে তৈরি হল ‘ ট্রুথ অ্যান্ড রিকনসিলিয়েশন কমিশন ’ , অপ্রিয় সত্যের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে এক দীর্ণ সমাজের ফেরার নতুন ইতিহাস জন্ম নিল । ১৯৯৫ সালে রাগবি বিশ্বকাপে বিজয়ী স্বদেশের শ্বেতাঙ্গ খেলোয়াড়দের অভিনন্দন জানাতে মাঠে হাজির হলেন কৃষ্ণাঙ্গ রাষ্ট্রনায়ক , হয়ে উঠলেন বর্ণবৈষম্য – উত্তর নতুন দক্ষিণ আফ্রিকার অবিস্মরণীয় প্রতীক ।

[আরও দেখুন, আলবার্ট আইনস্টাইন জীবনী – Albert Einstein Biography in Bengali]

নেলসন ম্যান্ডেলার রাজনৈতিক জীবন – Nelson Mandela Political Career :

 পাঁচ বছর প্রেসিডেন্ট পদে ছিলেন নেলসন ম্যান্ডেলা । এই পাঁচ বছরের প্রশাসক হিসেবে অসামান্য দক্ষতার পরিচয় দিয়েছিলেন । এমন কথা বললে অত্যুক্তি হবে । কিন্তু বহুধাবিভক্ত , বহু দ্বন্দ্বে তাড়িত সমাজ ও রাজনীতিকে বোঝাপড়ার মধ্য দিয়ে ভারসাম্যে নিয়ে আসার কঠিন কাজটি নেলসন ম্যান্ডেলা (Nelson Mandela) যে ভাবে সাধন করেছিলেন , তাকে ঐতিহাসিক বললে কোনও অত্যুক্তি হয় না । প্রশাসনের দায়িত্ব সহকারী থাবো এম্বেকি – র উপর ন্যস্ত করে তিনি উঠে এলেন বিশ্বমঞ্চে । নানা দেশে সফর , বিভিন্ন রাষ্ট্রনায়কের সঙ্গে বৈঠক , মানবাধিকার ও অন্যান্য প্রশ্নে প্রচার , বহু সম্মান , এই ধারা অব্যাহত থেকেছে , আরও বেশ কিছু কাল । তার পর ২০০৪ সালে অবসর নিয়ে ইতিমধ্যে আশিতম জন্মদিনে তৃতীয় বিবাহ । মোজাম্বিকের প্রসিদ্ধ রাজনীতিক ও মানবাধিকার নেত্রী গ্রাচা মাচেল জীবন সায়াহ্নে তাঁর সঙ্গিনী । নেলসন ম্যান্ডেলা জীবৎকালেই হয়ে উঠেছিলেন এক কিংবদন্তি।

নেলসন ম্যান্ডেলার ভারও রত্ন – Nelson Mandela Bharat Ratna :

 ১৪ ই অক্টোবর ১৯৯০ নেলসন ম্যান্ডেলার ভারত সফরের প্রাক্কালে তাকে ‘ ভারত রত্ন ‘ উপাধিতে ভূষিত করা হয় 

নেলসন ম্যান্ডেলার ভারতে আসা :

 ১৬ ই অক্টোবর থেকে ১৮ ই অক্টোবর নেলসন ম্যান্ডেলা (Nelson Mandela) ভারতবর্ষ পরিভ্রমন করেন । 

[আরও দেখুন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর জীবনী – Rabindranath Tagore Biography in Bengali]

নেলসন ম্যান্ডেলার ডিলিট উপাধি – Nelson Mandela Dilit Title :

 ১৮ ই অক্টোবর কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় নেলসন ম্যান্ডেলাকে (Nelson Mandela) ডিলিট উপাধি প্রদান করেন ৷ পশ্চিমবঙ্গ সরকার তাঁকে যথোচিত সম্মান প্রদর্শন ও সম্বর্ধনা জ্ঞাপন করেন । সম্বর্ধনার উত্তরে নেলসন ম্যান্ডেলা (Nelson Mandela) বলেছিলেন “ পশ্চিমবঙ্গের মত এমন উষ্ণ সম্বর্ধনা ও ভালবাসা পৃথিবীর মধ্যে কোথাও পাইনি ।

 ” একজন রাজনৈতিক ও সংগ্রামী নেতা হিসাবে তার নাম মহাত্মাগান্ধী , গ্যারিবল্পী , লেনিন , মাও সেতুং প্রমুখ মৌলিক সমাজ সংস্কারক নেতার সঙ্গে তুলনীয় যাঁরা জীবনব্যাপী সংগ্রাম চালিয়ে এসেছেন তাদের জনগনের মুক্তি ও স্বাধীনতার জন্যে ।

নেলসন ম্যান্ডেলার মৃত্যু – Nelson Mandela Death :

 গত প্রায় তিন বছর মাঝে মাঝেই অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন । রবেন দ্বীপের কারাগারে অস্বাস্থ্যকর ১৮ টি বছর তাঁকে যক্ষ্মা উপহার দিয়েছিল । পরবর্তী কালে তার সঙ্গে নিউমোনিয়াও যুক্ত হয় । বার বারই তাঁকে ফুসফুসের সংক্রমণ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছিল ৷ গোটা দুনিয়া বেশ কিছুদিন আশঙ্কায় ছিল ।

 অবশেষে সেই আশঙ্কাই সত্যে পরিণত হল । ২০১৩ সালে বর্ণবৈষম্যের মহান নেতা নেলসন ম্যান্ডেলার জীবনাবসান ঘটে ।

নেলসন ম্যান্ডেলার জীবনী – Nelson Mandela Biography in Bengali FAQ :

  1. নেলসন ম্যান্ডেলা কে ছিলেন ?

Ans: নেলসন ম্যান্ডেলা ছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদ-বিরোধী আন্দোলনের বিপ্লবী, রাজনৈতিক নেতা এবং প্রথম গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত রাষ্ট্রপতি।

  1. নেলসন ম্যান্ডেলার জন্ম কবে হয় ?

Ans: নেলসন ম্যান্ডেলার জন্ম হয় ১৮ জুলাই ১৯১৮ সালে ।

  1. নেলসন ম্যান্ডেলা কবে ভারত রত্ন পান ?

Ans: নেলসন ম্যান্ডেলা ১৯৯০ সালে ভারত রত্ন পান ।

  1. নেলসন ম্যান্ডেলা কত সালে অবসর নেন ?

Ans: নেলসন ম্যান্ডেলা ২০০৪ সালে অবসর নেন ।

  1. নেলসন ম্যান্ডেলার স্ত্রী কে কে ?

Ans: নেলসন ম্যান্ডেলার স্ত্রী ইভিলিন ন্‌তকো মাসে (১৯৪৪-১৯৫৭), উইনি মাদিকিজেলা-ম্যান্ডেলা (১৯৫৭-১৯৯৬), গ্রাসা মাচেল (১৯৯৮–বর্তমান) ।

  1. নেলসন ম্যান্ডেলা কবে নোবেল শান্তি পুরস্কার পান ?

Ans: নেলসন ম্যান্ডেলা ১৯৯৩ সালে নোবেল শান্তি পুরস্কার পান ।

  1. ট্রুথ অ্যান্ড রিকনসিলিয়েশন কমিশন কবে স্থাপন করা হয় ?

Ans: ট্রুথ অ্যান্ড রিকনসিলিয়েশন কমিশন ১৯৯৬ সালে স্থাপন করা হয় ।

  1. নেলসন ম্যান্ডেলা কবে জন্মগ্রহণ করেন?

Ans: নেলসন ম্যান্ডেলা জন্মগ্রহণ করেন ১৮ জুলাই ১৯১৮ সালে ।

  1. নেলসন ম্যান্ডেলার মৃত্যু কবে হয় ?

Ans: নেলসন ম্যান্ডেলার মৃত্যু হয় ৫ ডিসেম্বর ২০১৩ সালে ।

  1. নেলসন ম্যান্ডেলা কবে মারা যান?

Ans: নেলসন ম্যান্ডেলা মারা যান ৫ ডিসেম্বর ২০১৩ সালে ।

[আরও দেখুন, অ্যাডলফ হিটলার এর জীবনী – Adolf Hitler Biography in Bengali

আরও দেখুন, উইলিয়াম শেকসপিয়র এর জীবনী – William Shakespeare Biography in Bengali

আরও দেখুন, ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর জীবনী – Ishwar Chandra Vidyasagar Biography in Bengali

আরও দেখুন, নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসুর জীবনী – Netaji Subhash Chandra Bose Biography in Bengali

আরও দেখুন, জর্জ ওয়াশিংটন এর জীবনী – George Washington Biography in Bengali]

নেলসন ম্যান্ডেলা এর জীবনী – Nelson Mandela Biography in Bengali

   অসংখ্য ধন্যবাদ সময় করে আমাদের এই ” নেলসন ম্যান্ডেলা এর জীবনী – Nelson Mandela Biography in Bengali  ” পােস্টটি পড়ার জন্য। নেলসন ম্যান্ডেলা এর জীবনী – Nelson Mandela Biography in Bengali পড়ে কেমন লাগলো কমেন্টে জানাও। আশা করি এই নেলসন ম্যান্ডেলা এর জীবনী – Nelson Mandela Biography in Bengali পোস্টটি থেকে উপকৃত হবে। এই ভাবেই BhugolShiksha.com ওয়েবসাইটের পাশে থাকো যেকোনো প্ৰশ্ন উত্তর জানতে এই ওয়েবসাইট টি ফলাে করো এবং নিজেকে  তথ্য সমৃদ্ধ করে তোলো , ধন্যবাদ।

Subscribe Our YouTube Channel

Join Our Telegram Channel

E-mail Subscription